প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের খোলা চিঠি

অনিক আহমেদ, গবি সংবাদদাতা: বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) অনুমোদিত উপাচার্যের দাবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে খোলা চিঠি দিয়েছে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শনিবার (২৭ এপ্রিল) রাতে শিক্ষার্থীরা “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দেশরত্ন শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ” শিরোনামে এই চিঠি ফেসবুকে ব্যাপক হারে শেয়ার করতে থাকে।

চিঠিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বৈধ উপাচার্য জনিত সমস্যার সমাধানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেন। পাঠকদের উদ্দেশ্যে চিঠিটি হুবহু নিচে তুলে ধরা হলো-

“মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

বিষয়ঃ ‘গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে বৈধ ভি.সি চাই’ প্রসঙ্গে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,

বিনীত নিবেদন, আমরা গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল সাধারন শিক্ষার্থীবৃন্দ এই মর্মে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি যে, বাংলাদেশের মোট ১০৩ টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আয়তনে অন্যতম বড় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে আমাদের গণ বিশ্ববিদ্যালয়। লেখাপড়াসহ খেলাধুলা, নারী ক্ষমতায়ন, বাংলা ভাষার ব্যবহার নিশ্চিতকরণ ইত্যাদি সকল দিক থেকে আমরা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে প্রতিযোগিতায় বেশ শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছি। তবে আমরা আরো সংযুক্ত করতে চাই যে “বঙ্গবন্ধু আন্তবিশ্ববিদ্যালয় চ্যাম্প-২০১৯” এ আমরা মোট দশটি ইভেন্টের মধ্যে সাতটিতে অংশগ্রহণ করে মোট চারটি ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়ে আপনার হাত থেকেই গোল্ডকাপ গ্রহন করেছি, যাদের মধ্যে তিনটি মেয়েরা এবং প্রধান আকর্ষণ “ছেলেদের ফুটবল খেলা” ইভেন্টেও ছেলেরা চ্যাম্পিয়ন হয়ে গোল্ডকাপ গ্রহণ করেছি।

বিবেচ্য বিষয়,

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটা বিষয় ভেবে দেখুন, আপনি এমন একটা বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষার্থীদের হাতে “বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ” তুলে দিলেন যাদের বিগত তিন বছর যাবৎ একজন বৈধ ভিসি নাই। গোল্ডকাপ জিতে অবশ্যই আমরা আনন্দিত, তবে এই আনন্দটা একদমই ফিকে হয়ে যায়, যখন দেখতে পাই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় এর একজন “বৈধ ভিসি” নাই।

আমরা বিশ্ববিদ্যালয় এর সাধারন শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন যাবৎ “গণ বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ ছাত্র পরিষদ” এর ব্যানারে “বৈধ ভি.সি চাই” আন্দোলন করে যাচ্ছি। এছাড়াও আমাদের এই আন্দোলন এর ফলে আজ ১৪ দিন যাবৎ শিক্ষার্থীরা ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন করে নিজেদের পড়াশোনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যাচ্ছে যেটা কখনোই কাম্য নয় ।

অতএব, এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আপনি চাইলে আমরা অতি তাড়াতাড়ি একজন বৈধ ভিসি পেতে পারি। এতো বড় একটা বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রায় পাচ হাজার শিক্ষার্থীদের কথা ভেবে একজন “বৈধ ভি.সি” কিভাবে আমারা খুব দ্রুত পেতে পারি সেই বিষয়ে আমরা আপনার সহযোগিতা পেলে আপনার প্রতি কৃতজ্ঞ হই।

বর্তমানে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে শুধুমাত্র ট্রাস্টি বোর্ড কর্তৃক নিয়োগ প্রাপ্ত ডা: লায়লা পারভিন বানু ম্যাম ভিসি হিসেবে দায়িত্ব প্রাপ্ত রয়েছে যা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক বৈধ নয় বা আইননানুগ বৈধ নয়।

আমরা এইভাবে দীর্ঘসময় আন্দোলন করে লেখাপড়ায় নিজেদের ক্ষতিগ্রস্ত না করে শুধু বৈধ ভিসি পেয়ে পড়াশোনায় মনোযোগী হতে চাই। আমাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে একজন বৈধ ভিসি পেতে সহযোগিতা করবেন এই আশাই করি। আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে অনিশ্চয়তার দিকে ধাবিত হই আপনি অবশ্যই এমনটা কামনা করেন না। আপনার প্রতি আমাদের অটুট বিশ্বাস আছে আপনি বিষয়টি আমলে নিয়ে একটি গ্রহনযোগ্য প্রশংসনীয় সমাধান দিবেন। সেই বিশ্বাসের উপর ভর দিয়েই বৈধ ভিসি পাওয়ার আবেদন জানাচ্ছি।

অতএব, বিনীত অনুরোধ এই যে, গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন বৈধ ভিসি দিয়ে আমাদের মঙ্গল করিবেন।

বিনীত নিবেদক,
গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ

উল্লেখ্য, গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইউজিসি অনুমোদিত উপাচার্যের দাবিতে ক্লাস, পরীক্ষা বর্জন করে গত ৬ এপ্রিল থেকে আন্দোলন করে আসছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত