প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজনীতিতে যোগ দিলে স্ত্রী ছেড়ে চলে যাবে, আশঙ্কা রঘুরাম রাজনের

রাশিদ রিয়াজ : ভারতের প্রখ্যাত এই সাবেক গভর্নর আর একটা মনমোহন সিং হওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিলেন। দক্ষতার সঙ্গে রিজার্ভ ব্যাংক সামনালোর অভিজ্ঞতা থাকলেও তিনি কিন্তু দেশের দায়িত্ব নিতে রাজনীতিতে আসতে রাজি নন। বরং তেমন প্রশ্ন ওঠায় রাজনের জবাব, রাজনীতিতে যোগ দিলেই তার স্ত্রী তাকে ত্যাগ করবেন। সম্প্রতি চেন্নাইয়ে এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরিচালন পর্ষদের বৈঠকে যোগ দিতে গিয়েছিলেন রঘুরাম। তখনই সেখানেই এক সাক্ষাৎকারে তিনি এমনটা জানান।

এই লোকসভা ভোটের মৌসুমে বিভিন্ন পেশার সফল ব্যক্তিদের রাজনীতিতে যোগ দিত দেখা যাচ্ছে। এদের অনেকে বিভিন্ন দলের প্রার্থীও হচ্ছেন। ফলে এমন পরিস্থিতিতে এক সাক্ষাৎকারে, আইএমএফ-এর প্রধান অর্থনীতিবিদ রঘুরামের কাছে জানতে চাওয়া হয় – কোনও রাজনৈতিক দলে যোগদান অথবা নতুন দল গড়ার সম্ভাবনা রয়েছে কি না? তখন তিনি জানিয়েছেন, ‘রাজনীতিতে যোগ দিলেই আমার স্ত্রী আমাকে ছেড়ে চলে যাবে বলে দিয়েছে।’ রঘুরামের মতে, রাজনীতির ধরনটা মোটামুটি সব জায়গাতেই এক। শুধু বক্তৃতার মাধ্যমে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট হাসিলের কৌশল সেখানে গুরুত্বপূর্ণ। তিনি রাজি নন নিজেকে সেই ¯্রােতে সামিল করতে।

প্রসঙ্গত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং এক সময়ে ছিলেন ভারতের রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর। সক্রিয় রাজনীতিতে যোগ দিয়ে মনমোহন হয়েছিলেন দেশটির অর্থমন্ত্রী এবং তার অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন ভারতে আর্থিক সংস্কার চালু হয়। পরবর্তী কালে তিনি দুদফায় প্রধানমন্ত্রীও হন। সেই উদাহরণ টেনে ইতিমধ্যেই রঘুরাম রাজন নিয়ে নানা মহলে জল্পনা তৈরি হয়েছে। কিন্তু মনমোহনের পথ অনুসরণে নারাজ রঘুরাম।

তবে সরাসরি রাজনীতিতে যোগ না-দিলেও ইতিমধ্যেই বিভিন্ন দলের কর্মসূচি সম্পর্কে আলোচনা করেছেন তিনি। তাকে মন্তব্য করতে দেখা গিয়েছে রাহুল গান্ধী ঘোষিত ‘ন্যায়’ প্রকল্প বা নরেন্দ্র মোদী সরকারের আর্থিক ব্যবস্থা নিয়ে। এক সময় মোদী সরকারের সঙ্গে মতবিরোধের কারণেই রিজার্ভ ব্যাংকের গভর্নর পদে দ্বিতীয় মেয়াদে থাকতে পারেননি রঘুরাম। বিমুদ্রাকরণ , জিএসটি’র হার-সহ মোদী সরকারের বিভিন্ন আর্থিক সিদ্ধান্তে সমালোচনাও করায় তার রাজনীতিতে যোগদানের সম্ভাবনা নিয়ে জল্পনা শুরুহয়েছিল। এই সময়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত