প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বকেয়া ১২৮ কোটি টাকা পরিশোধ না করায় সিটিসেলের সম্প্রচার বন্ধ, সংসদে মোস্তফা জব্বার

তরিকুল সুমন: ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, দেশের মোবাইল কোম্পানির মধ্যে সিটিসেলের কাছে সরকারের রাজস্ব বকেয়া রয়েছে ১২৮ কোটি টাকা। বকেয়ার টাকা পরিশোধ না করায় কোম্পানির সম্প্রচার বন্ধ রয়েছে। এ সংক্রান্ত জটিলতা কাটাতে হাইকোর্টে একাধিক মামলা রয়েছে। রোববার সংসদে ঢাকা-২০ থেকে নির্বাচিত এমপি বেনজীর আহমেদের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে সংসদকে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরিন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকালে এ অধিবেশন শুরু হয়।

এমপির একই প্রশ্নের জবাবে মোস্তাফা জব্বার আরো বলেন, বিটিআরসি সরকারি রাজস্ব নিশ্চিতে নিয়মিত সেলফোন কোম্পানিগুলোর অডিট করা হয়। ইতিমধ্যে গ্রামীণ ও রবির অডিট সম্পন্ন হয়েছে। অডিটে গ্রামীণ ফোনের কাছে বিটিআরসির ৮,৪৯৪.০১ কোটি এবং এনবিআরের ৪,০৮৫.৯৪ কোটিসহ মোট ১২,৫৭৯.৯৫ কোটি টাকা পাওয়া হয়েছে। আর রবির কাছে বিটিআরসির ৬৭৭.৭৬ কোটি এবং এনবিআরের ১৮৯.৪৭ কোটিসহ মোট ৮৬৭.২৩ কোটি টাকা পাওয়া হয়েছে। এসব বকেয়া পাওয়া পরিশোধে গ্রামিণ ও রবির কাছে পত্র পাঠানো হয়েছে। এসব অর্থ আদায়ের কার্যক্রম প্রক্রিয়াদীন।

এছাড়া বাংলালিংক ও এয়ারটেল অপারেটরের অডিট করার জন্য অডিটর নিয়োগের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া সরকারি মোবাইল অপারেটর টেলিটকের কাছে ৩জি স্পেপট্রাম অ্যাসাইনমেন্ট ফি বাবদ ১,৫৮৫.১৩ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে। উক্ত বকেয়া পরিশোধের জন্য বিটিআরসির পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

বেনজীর আহমেদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে সর্বনিম্ন কলরেট অননেট ও অফনেট এ ভ্যাট ছাড়া .৪৫ পয়সা এবং সর্বোচ্চ ২ টাকা। মোবাইল সেলফোন কোম্পানিগুলো উল্লেখিত সীমার মধ্যে বিভিন্ন অফার ও প্যাকেজ সেবা প্রদান করে থাকে।

চট্টগ্রাম-১১ আসনের এমপি এম. আবদুল লতিফের লিখিত প্রশ্নের জবাবে মোস্তাফা জব্বার বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের ঘোষণা রয়েছে। এ কাজ বাস্তবায়নে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ প্রধান সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রনকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড ইতিমধ্যে একটি প্রাথমিক কর্ম-পরিকল্পনা প্রস্তুত করে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ নির্মাণ ও উৎক্ষেপের উপর কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

সংরক্ষিত মহিলা এমপি বেগম আদিবা আনজুম মিতার প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ইন্টারনেটের মূল্য হ্রাসকরণ বর্তমান সরকারের এক অন্যতম সাফল্য যা দেশের অর্থনীতিতে সূদুর প্রসারী ভূমিকা রাখছে। সাধারণ জনগণের জন্য ইন্টারনেটের ব্যয় হ্রাস করার লক্ষ্যে সরকারের নানামুখী পদক্ষেপের ফলশ্রুতিতে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ এর মূল্য জনগণের ক্রয়সীমার মধ্যে এসেছে। দেশে ইন্টারনেটের প্রসার ও গতি বৃদ্ধি, ডিজিটাল ডিভাইড হ্রাস এবং আইটিভিত্তিক সার্ভিসসমূহের বিকাশ ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

লিয়াকত আলী খোকা এমপির এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষেল অধীনে দেশের সকল বিভাগ ও জেলায় হাই-টেক পার্ক/সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ঢাকা জেলার কাওরান বাজারে জনতা টাওয়ারে, যশোরের সদর উপজেলায় শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, রাজশাহী বিভাগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাই-টেক পার্ক, রাজশাহী, সিলেট বিভাগে সিলেট ইলেক্ট্রনিক্স সিটি এবং গাজীপুরে কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাই-টেক পার্ক স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়াও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেশের সকল বিভাগে হাই-টেক পার্ক/আইটি ভিলেজ স্থাপনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আগামীতে জমি ও বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে আইটি ভিলেজ/হাই-টেক পার্ক/সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক স্থাপনের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত