প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সপ্তাহব্যাপী জঙ্গিবিরোধী গণসংযোগ শুরু করেছে ডিএমপি

সুজন কৈরী : জঙ্গিবাদ বিরোধী জনসচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে রোববার থেকে সপ্তাহব্যাপী গণসংযোগ শুরু করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। ‘গণসংযোগ সপ্তাহ’ চলবে আগামী ৪ মে পর্যন্ত।

এর অংশ হিসেবে ডিএমপি’র ৫০টি থানায় সংশ্লিষ্ট বিট অফিসার এলাকাবাসীকে নিয়ে উঠান বৈঠক করবেন। কমিউনিটি পুলিশের মাধ্যমে সভার আয়োজন করা হবে। পাড়া-মহল্লার পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও সভার আয়োজন করবেন। সভায় সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক নির্মূলে পুলিশের পদক্ষেপ ও জনগণের করণীয় বিষয়ের উপর আলোচনা করা হবে।

ডিএমপির এডিসি (মিডিয়া) ওবায়দুর রহমান জানান, সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় সংঘটিত সন্ত্রাসী কার্যক্রম এবং বাংলাদেশে ইতোপূর্বে সংঘটিত সন্ত্রাসী ঘটনার পেছনে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন অনুষঙ্গ রয়েছে যার ব্যাপ্তি ও পরিধি ব্যাপক ও বিস্তৃত। এ রকম একটি সমস্যা শুধুমাত্র আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দ্বারা নিরসন সম্ভব নয়। সর্বসাধারণের ব্যাপক এবং সক্রিয় অংশ গ্রহণের মাধ্যমেই একটি রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বজায় রাখা সম্ভব। বর্তমানে ডিএমপিতে ৩০২টি বিটকে সক্রিয় ও কার্যকর করে ধারাবাহিকভাবে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণের জন্য সপ্তাহব্যাপী এ গণসংযোগ চলবে।

উগ্রবাদ প্রতিরোধে পরিবার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মীয়, রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ, গণমাধ্যম, এনজিও ও সিভিল সোসাইটির সদস্যগণসহ কমিউনিটির প্রত্যেকের কার্যকর ভ‚মিকা পালনের সুযোগ রয়েছে।

নগরবাসীর কর্তব্য প্রসঙ্গে ডিএমপি জানায়, পরিবার থেকে সন্তানদের নৈতিকতা, মানবিকতা, সহনশীলতা ও সহাবস্থানের চর্চা শেখানো। দেশপ্রেম, বাঙালি সংস্কৃতি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তরুণদের উদ্বুদ্ধ করা। সব মাধ্যমের শিক্ষা ব্যবস্থায় বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক চেতনা, ঐতিহ্য ও ইতিহাসকে অন্তভ‚র্ক্ত করা। খেলাধুলা এবং সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড ও উগ্রবাদ বিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম অন্তভর্‚ক্ত করা। পাড়া-মহল্লায় ক্লাব, পাঠাগার, ক্রীড়ানুষ্ঠান ও বিনোদনমূলক কার্যক্রমের সুবিধা নিশ্চিত করা। প্রাপ্তবয়স্ক না হলে সন্তানদের ব্যক্তিগতভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারে নিরুৎসাহিত করা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের আচরণগত পরিবর্তনের প্রতি লক্ষ্য রাখা ও অভিভাবকের সঙ্গে মতবিনিময়। পরিবারের সদস্য বিশেষ করে সন্তানের সঙ্গে বন্ধুসুলভ আচরণ করা, ছোটবেলা থেকেই ধর্মের সঠিক ব্যাখ্যা নিয়ে আলোচনা ও ধর্মের ইতিবাচক দিক তুলে ধরা। মিডিয়াতে ব্যাপক হারে উগ্রবাদ বিরোধী প্রচারণা চালানো এবং টিভি চ্যানেলগুলোতে শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান প্রচার করা। ইমাম ও খতিবদের উগ্রবাদের বিপক্ষে বক্তব্য দানে উদ্বুদ্ধকরণ। আন্তঃধর্মীয় মানুষের পারস্পরিক সম্প্রীতি বৃদ্ধি ও অভিজ্ঞতা বিনিময়।

এছাড়া নিজ পরিবারের কোনো সদস্যের বা সন্তানের বিশেষ কোনো পরিবর্তন ঘটছে কি-না, তা খেয়াল রাখার পাশাপাশি বাসাবাড়ির মালিকদের ভাড়াটিয়াদের সম্পর্কে সজাগ থাকাতে অনুরোধ জানিয়েছে ডিএমপি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত