প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দেবী

মুমিতুল মিম্মা : দেবীরা মহান। দেবীরা উচ্চাসনে অধিষ্ঠিত। দেবীদের উচ্চাসন ত্যাগ করতে নেই। দেবীদের ভুল করতে নেই। দেবীদের সাধারণ চিন্তা ভাবনা করতে নেই। দেবীদের ঠোঁটের উপরে গোঁফের রেখা থাকতে নেই, পায়ে দেবতাদের মতো বড় বড় লোম থাকতে নেই। দেবীরা হবেন লোমহীন। দেবীদের হতে হবে সুললিত। দেবীরা হবে কিন্নর কণ্ঠের অধিকারী। দেবীদের হেঁড়ে গলায় চিৎকার করতে নেই। দেবীরা গান গাইতে চেষ্টা করতে পারে অথবা কবিতা আবৃত্তি। দেবীরা স্ল্যাং ব্যবহার করেন না। দেবীদের মুখের ভাষা শুনলেই অন্তর ঠা-া হয়ে যায়। দেবীদের সবার সঙ্গে অহেতুক তর্কে যেতে নেই। দেবীদের অনেক ধৈর্যশীল হতে হয়। দেবীদের তাদের নিজস্ব মর্যাদা ধরে রাখতে হয়।

দেবীরা কখনও শারীরিক লাঞ্ছনার শিকার হন না। যদি দেবী নিজ মুখে সেটা স্বীকার করেন তাহলে বুঝে নিতে হবে দেবী মিথ্যাচার করছেন। কারণ দেবীদের দেখলে কখনও কারও ‘উত্থান’ হতেই পারে না। দেবীদের চেহারার পবিত্রতা ‘উত্থিত দ-’ নমনীয় করে ফেলতে পারে। যদি দেখা যায় দেবীরা তা করতে পারছেন না তাহলে বুঝে নিতে হবে দেবীর ভেতরেই কোনো সমস্যা আছে। যদি আশপাশে কোনো দেবী দেখতে পান তাহলে তাকে জ্ঞান দিন কি করে তার দেবীত্ব আরও বাড়ানো যায়। বেশি করে জ্ঞান দিয়ে তাকে প্রয়োজনে অতিষ্ঠ করে তুলুন।

নিজে কোনো রকম দায়িত্ব না নিয়ে, তার পরিস্থিতি কোনো রকম না বুঝেই তাকে উপদেশ দিন ভালো কাজ করার। দেবী শান্তভাবে শুনে গেলে বুঝে নিবেন তিনি দেবীত্ব বাড়াবার চেষ্টা করছেন। আর যদি উপদেশ শুনে তিনি প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বসেন তাহলে বুঝে নেবেন…‘ভালো কথা শোনাতে গেলাম এমন করে বসলো? এ একটু বেশি বোঝে!’ দেবীদের বেশি বুঝতে নেই। দেবীদের অবসাদ নেই। দেবীদের শারীরিক ক্লান্তি নেই কারণ তিনি দেবী! ঋণাত্মক কিছুই তার মধ্যে থাকতে নেই কারণ তিনি দেবী। তিনি হবেন জাগতিক ধনাত্মকের উৎস। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত