প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জামায়াতের মতো এত বড় দল থেকে ৫/৭জন বেরিয়ে গেলে কোন ক্ষতি হবে না, বিবিসিকে হান্নান

কায়কোবাদ মিলন : সাবেক সচিব এবং জামায়াতে ইসলামীর অন্যতম নীতি নির্ধারক শাহ আব্দুল হান্নান বলেন, জামায়াতের মত এত বড় দল থেকে ৫/৭ জন বেরিয়ে গেলে দলের কোন ক্ষতি হবে না। তাদের পক্ষ থেকে মাত্র একটি বার্তাই দেয়া হয়েছিলো। ওদের সঙ্গে কোন সম্পর্ক না রাখতে ।

জামায়াতে ইসলামীর একটি অংশ শনিবার নতুন দল গঠনের ঘোষণা দিয়েছে। তাদের এই অংশের নীতিমালা ও আর্দশ দেশের সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে বলে তারা দাবি করছেন। বিবিসি

শনিবার সংবাদ সম্মেলনে নেতৃত্ব দেন জামায়াত থেকে বহিষ্কৃত মুজিবুর রহমান মঞ্জু। তিনি এক সময় শিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ছিলেন। এই অংশটি মুক্তিযুদ্ধে জামায়েতের ভূমিকার জন্য দেশবাসীর কাছে ক্ষমা প্রর্থনার পক্ষে। তাদের প্রশ্ন, মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী প্রজন্ম কেন তাদের পূর্বসুরী নেতাদের কর্মকণ্ডের অনুমোদন করবে, কেনো সেই দায় দায়িত্ব বয়ে বেড়াবে।

জামায়াত থেকে বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়টি এই ঘটনা কি মূল দলে প্রভাব ফেলবে ? উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল আব্দুর রাজ্জাক পদত্যাগ করেছিলেন। আর মুজিবুর মঞ্জু পরবর্তীতে জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরার সদস্য হয়েছিলেন।

মুজিবুর রহমান মঞ্জু বলেন, আমরা ১৯ দফা প্রণয়ন করেছি। ৫ টি সাব কমিটিও গঠন করেছি। একটি বিষয় স্পষ্ট, তাদের দল কোন ভাবেই ধর্মভিত্তিক হবে না। তাদের প্লাটফর্ম হবে উন্মুক্ত। এ এক স্বতন্ত্র ধারা। সব ধর্ম বর্ণের মানুষ তাদের দলে আসতে পারবেন।

মুজিবুর রহমান মঞ্জুর সঙ্গে মঞ্চে ছিলেন অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম। তাজুল ইসলাম মানবতা বিরোধী মামলায় জামায়াত নেতাদের পক্ষে ব্যাপক লড়াই করেছেন। তিনি কখনোই জামায়াতের কেউ ছিলেন না বলে বিবিসিকে জানান। আর জামায়াত নেতাদের পক্ষ নিয়েছিলেন প্রফেশনালি অর্থাৎ একজন আইনজীবী হিসেবে। ব্যারিষ্টার আবদুর রাজ্জাককে জামায়াতের সংস্কার পন্থীদের কর্মকান্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কী না তা জানা যায়নি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক দিলারা চৌধুরী বলেন, সংস্কার পন্থীদের বেরিয়ে যাওয়ার প্রভাব অবশ্যই জামায়াতের ওপর পড়বে।
বিবিসির কাদির কল্লোল বলেছেন, মঞ্জুদের বিরুদ্ধে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের কেউই কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি। তবে কাদির কল্লোল দলের শীর্ষ নেতা ডা. সফিকুর রহমানের সঙ্গে কথা বলেছেন। ডা. সফিকের মতে মঞ্জু-তাজুল গং এর তৎপরতা জামায়াতে কোন প্রভাব পড়বে না। তিনি বলেন, জামায়াতে সংস্কারপন্থী বলে কিছু নেই। দলে বিভিন্ন সময় ভিন্ন মত উত্থাপিত হয়েছে। কিন্তু আলাপ আলোচনার মাধ্যমে তার অবসান ঘটানো হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত