প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিড়ালের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার যুদ্ধ ঘোষণা, ২০ লাখ বিড়াল নিধনের পরিকল্পনা

আব্দুর রাজ্জাক : নরম পশমযুক্ত বিড়াল অনেক আকর্ষণীয় ও মায়াবী হওয়া সত্ত্বেও অস্ট্রেলিয়ায় তাদের প্রধান শত্রু হিসেবে গণ্য করা হয়। দেশটিতে প্রায় ২০ থেকে ৬০ লাখ বিড়াল আছে যাদের কোনো মালিকানা নেই। এই ঘাতক বিড়ালগুলোর হাত থেকে রক্ষা পেতে ২০২০ সালের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া প্রায় ২০ লাখ বিড়াল হত্যার পরিকল্পনা করেছে। সিএনএন

অস্ট্রেলিয়ার পরিবেশ ও জ্বালানি বিভাগ জানায়, ঘাতক বিড়ালগুলো প্রতিদিন প্রায় ১০ লাখ পাখি ও ১৭ লাখ সরীসৃপ হত্যা করছে। ইঁদুর ও খরগোসের মতো অন্যান্য প্রজাতিও বিড়ালের হুমকিতে আছে। তবে বিড়ালগুলো এজন্য ধ্বংস করা হচ্ছে না যে, আমরা এগুলো পছন্দ করি না, বরং অন্যান্য প্রজাতি রক্ষায় এ অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানান বিভাগটির মুখপাত্র অ্যান্ড্রিউস।

অস্ট্রেলিয়ার কিছু এলাকা আছে যেখানে প্রশাসনিকভাবে বিড়ালের বিরুদ্ধে আরো কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় নগরী কুইন্সল্যান্ডে বিড়াল নিধনে একটি কাউন্সিল রয়েছে। প্রতিটি বিড়ালের খুলির জন্য এই কাউন্সিল হত্যাকারীকে ৭ ডলার প্রদান করে। তবে অস্ট্রেলিয়ার এই নীতির নিন্দা জানিয়ে একে নিষ্ঠুর বলে অভিহিত করে পিপল ফর দ্য এথিকাল ট্রিটমেন্ট অব অ্যানিমেল নামে একটি অধিকার সংগঠন।

বিড়াল বিরোধী নীতি শুধু অস্ট্রেলিয়াতেই রয়েছে এমন নয়। পার্শবর্তী দেশ নিউজিল্যান্ডের একজন খ্যাতনামা পরিবেশবিদ বিড়াল ম্ক্তু নিউজিল্যান্ডের প্রস্তাব দিয়েছেন। তার প্রস্তাবে দেশটির পোষা ও বন্য সকল বিড়াল নিধনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

ধারণা করা হয়, ১৭ শতাব্দিতে অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম বিড়াল পৌঁছায়। এর পর থেকে বিড়ালের সংখ্যা ক্রমে বেড়েই চলছে। বিড়ালের যেসব প্রজাতি বনে বাস করে তারা শিকারের জন্য লোকালয়ে আসে এবং প্রাণহানী ঘটায়। আর তাদেরই কয়েকটি প্রজাতি দেশটিতে পোষা হয় তাই বন্য ও পোষা বিড়ালের মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্য নেই। এমতাবস্থায় সকল বিড়াল হত্যার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত