প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ড. এম সাখাওয়াত হোসেন বললেন, শ্রীলংকার রাজনীতিতে সংঘাত বাড়তে পারে

দেবদুলাল মুন্না : সাবেক নির্বাচন কমিশনার ও সাবেক সামরিক কর্মকর্তা, বর্তমানে এনএসইউর অনারারি ফেলো ড. এম সাখাওয়াত হোসেন মনে করেন, ‘যারাই এই হামলা ঘটিয়ে থাকুক, শ্রীলঙ্কার রাজনীতিতে এই ঘটনা আরও সংঘাতময় করে তুলবে।

এ হামলার পর দীর্ঘ সময় কেউ কোনো দায়দায়িত্ব স্বীকার করেনি, যেমনটা অন্যান্য সময়ে দেখা গেছে। এ হামলা নিউজিল্যান্ডের মতো একক সন্ত্রাসী বা ‘লোন উলফ’ হামলাও নয়। শেষ পর্যন্ত ঘটনার প্রায় তিন দিন পর আইএসের তরফ থেকে হামলার দায়িত্ব স্বীকার করা হয়েছে। যদিও এর সপক্ষে কোনো প্রমাণ তারা দেয়নি। হামলার এক দিন পর পুলিশের মুখপাত্রের সূত্রে আমরা জেনেছি যে সন্দেহভাজন গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা এই হামলার সঙ্গে জড়িত এবং সবাই শ্রীলঙ্কার বাসিন্দা।

পরে জানা যায় যে তাঁরা সবাই স্বল্প পরিচিত এবং স্থানীয় কথিত ইসলামি জঙ্গি সংগঠন ন্যাশনাল তাওহিদ জামাতের (এনটিজে) সদস্য এবং এই সংগঠনের কথিত প্রধান মোহাম্মদ জাহারাম হাশিম এই ঘটনার হোতা। যে বাহনে করে বিস্ফোরক স্থানান্তর করা হয়েছে, সেই বাহন ও চালককে আটক করার খবর প্রকাশিত হলেও বেশি কিছু জানা যায়নি। এ পর্যন্ত যেসব ভাষ্য পাওয়া গেছে, তার ভিত্তিতে অনুমান করা ছাড়া চুড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্তে আসা কঠিন।

শ্রীলঙ্কা সরকারের পক্ষ থেকে একবার বলা হয়েছে যে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হামলার প্রতিশোধ নিতেই এই হামলা হয়েছে। আইএসের পক্ষ থেকে অবশ্য তেমন কিছু বলা হয়নি। আসলে এই হামলার ঘটনা এখনো বিভ্রান্তি আর ধোঁয়াশার মধ্যে রয়ে গেছে। শ্রীলঙ্কার এ হামলায় দুটি গুরুত্বপূর্ণ দিক ক্ষতির সম্মুখীন হবে। প্রথমত, আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি। এমনিতেই তামিল হিন্দুরা ৩০ বছরের গৃহযুদ্ধে প্রচ- ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই হামলা বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে সন্দেহ ও অবিশ্বাসকে আরও বাড়িয়ে তুলবে।’ সম্পাদনা : ওমর ফারুক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত