প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঝালকাঠিতে মেঘা’র হতভাগ্য পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

এস এম রাজ্জাক পিন্ট, ঝালকাঠি: বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে দাম্পত্ত্য সম্পর্কে জড়িত থেকেও প্রেমিকা ঝালকাঠির মেধাবী কলেজ ছাত্রী ইডেন বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজ কল্যান ২য় বর্ষে পড়ুয়া সায়মা কালাম মেঘা ডাকনাম চাঁদনীর সাথে প্রতারণায় ও বিয়ের আইনী বৈধতা প্রদানে অস্বীকার করে আত্মহত্যা পথে ঠেলে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ২৫ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় শোকাহত পরিবারের সদস্যরা বুকভরা দু:খ-কষ্ট নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করে প্রতারক প্রেমিক মাহিবি ও তার পবিরারের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করেছে।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে তারা অভিযোগ করেন, তাদের একমাত্র কন্যা ইডেন বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজ কল্যান বিভাগের ২য় বর্ষের মেধাবী ছাত্রী সায়মা কালাম মেঘার সাথে ঝালকাঠির পূর্ব চাঁদকাঠী ভিআইপি কোয়াটারের পেছনের বাসিন্ধা সাবেক জজশীপের পেশকার মরহুম নফিজুর রহমান ও কীত্তিপাশা হাসপাতালের সেবিকা সেলিনা বেগমের পুত্র মাহিবি হাসানের (২৫) মধ্যে প্রায় ৩ বছর পূর্বে ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একই এলাকার বাসিন্ধা হিসাবে প্রায় দু’বছর তাদের সম্পর্কের পর সহজ-সরল মেয়ে মেঘাকে হুজুরের মাধ্যমে বিয়ে করার নাটক করে ও মাহিবি অনেক বার ঢাকায় গিয়ে তাকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে যায়। বছর খানেক পূর্বে বিষয়টি জানতে পেরে তারা মেয়েকে কঠোর শাসনে রাখলে উক্ত প্রেমিক রুপী মাহিবি পুনরায় মেঘা কে আইনী স্বীকৃতি প্রদানের প্রলোভন দিয়ে সম্পর্ক গড়ে তুললেও দুবার কাবিন রেজিষ্ট্রি তারিখ দিয়ে মাকে রাজী করানোর কৌশল নিয়ে তারিখ পিছিয়ে দেয়া।

তারা অভিযোগ আরো উল্লেখ করেন, ছয়মাস পূর্বে মেঘার পরিবার মাহিবির বাসায় গিয়ে তাদের বিয়ে নিয়ে কথাবর্তা বললে কিছুটা আশ্বাস্থ হলে দুজনের সম্পর্ক সকলের কাছে জানাজানি হলেও হঠাৎ করে মাহিবি আর তার মা সেলিনা বেগম তাদের বিয়েতে অস্বীকৃতি জানায় ও মেঘাকে নিয়ে নানা অশ্লীল, মুখরোচক কথা রটাতে থাকে। এঅবস্থায় মেঘা পুনরায় পড়াশুনায় মনযোগী হয়ে ২য় বর্ষে ফাইনাল পরীক্ষার প্রস্তুতী শুরু করে। প্রেমিক রুপী পাষন্ড মাহিবি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আবারো তার পিছু নেয় ও তার মাকে না জানিয়ে গত ২১ এপ্রিল রবিবার পবিত্র শবেবরতের দিন ঢাকায় তাদের বিয়ে কাবিন রেজিষ্ট্রি দিন চুরান্ত করে শনিবার ঢাকায় থাকবে বলে আশ্বস্ত করে।

এমন কি কয়েকমাস পূর্বে দুজনে মিলে বিয়ের শাড়িসহ স্বজস্বজ্জার গহনাদি নিয়ে মেঘা ২১ এপ্রিল অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে থাকলেও মাহিবি ঢাকায় না গিয়ে দুপুরে মেঘাকে মোবাইল ফোনের ইমু’তে ভিডিও কল দিয়ে চরম অপমান ও বিদ্রæপ করলে প্রেমিক মাহিবির বার বার দেয়া আঘাত আর সহ্য করতে না পেরে তার চোখের সামনে ওড়া দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহননের পথে ঝাপিয়ে পরে বলে পাষন্ড মাহিবি নির্বিকার ভাবে তা প্রত্যক্ষ করে বলে মেঘার বাবা-মা সহপাটি বন্ধুদের কাছ থেকে জানতে পারেন।

তাদের সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রশাসনের কাছে প্রশ্ন করেন, বিকাল পৌনে ৫টায় ঢাকায় বসে মেঘা আত্মহত্যার করছে উল্লেখ করে ঝালকাঠিতে থাকা ঘাতক মাহিবি বিকাল ৫:০৯মিঃ চাদনীর মাকে ও বিকাল ৫:২২মিঃ মেঘার বান্ধবী আফরিন জাহানকে তার (০১৬৩৩৫০৪৫৭০)ফোনে ঘাতক মাহিবির (০১৭৫০০৭১৮৫৩) ফোন দিয়ে মেঘার ফাঁস দিয়ে আত্মহননের কথা জানালো কিভাবে। ভিডিও করে মেঘার গলায় ফাস লাগানোর দৃশ্য সরাসরি প্রত্যক্ষ করেও নরপশু মাহিবির তাকে থামানোর চেষ্টা না করা উপরন্তু তার বন্ধুদের ফেসবুকে পৃথিবী ছেড়ে চলে যাওয়া মেঘার বিরুদ্ধে চরিত্র হননকারী পোষ্ট দেওয়ানো কি পেশাদার খুনীদের চেয়েও ভয়ংকর নয় বলে তারা প্রশ্ন রাখেন। সংবাদ সম্মেলনে তার এসব প্রশ্ন রেখে একমাত্র মেয়ে সায়মা কালাম মেঘা (চাঁদনী)কে ভালোবাসার নামে নষ্ট খেলায় মত্তো হওয়া নরপিশাচ মাহিবি হাসান, তার অপকর্মের ইন্ধনদাতা মা সেলিনা বেগমসহ ফেসবুকে অপপ্রচারকারী তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে তদন্তপূর্বক কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে বিনীত অনুরোধ করছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত