প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গণফোরামের পর বিএনপির এমপি জাহিদের শপথ গ্রহণ
জনগণের চাপে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে এই শপথ নিতে বাধ্য হয়েছেন জাহিদ

তরিকুল সুমন : একাদশ জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান শপথ নিয়েছেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় সংসদ ভবনে তার দফতরে এই শপথবাক্য পাঠ করান। যদিও জাহিদুর রহমান জনগণের চাপে দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে এই শপথ নিতে বাধ্য হয়েছেন বলে দাবি করেছেন। দলটির আরো দুজন সংসদ সদস্য শপথ নিতে পারেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছে।

একাদশ সংসদ নির্বাচ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের জয়ীদের মধ্যে গণফোরামের সুলতান মনসুর ও মোকাব্বির খান এর আগেই শপথ নিয়েছেন। এবার শপথ নিলেন ধানের শীষের জাহিদুর রহমান। ঠাকুরগাঁও-৩ আসন থেকে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছিলেন তিনি। এবারের নির্বাচনে বিএনপি থেকে যে ছয়জন নির্বাচিত হয়েছিলেন তাদের মধ্যে তিনিই প্রথম শপথ নিলেন। তবে শুরু থেকেই বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল তাদের কেউ শপথ নেবেন না।

জানা গেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালেই জাহিদুর রহমান শপথ নেয়ার বিষয়ে তার আগ্রহের কথা জানিয়ে স্পিকারের নিকট চিঠি লেখেন। তখন বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার কোনো তথ্য পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে স্পিকারের একান্ত সচিব এম এ কামাল বিল্লাহ চিঠির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

শপথ গ্রহণ শেষে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের জাহিদুর রহমান বলেন, এই শপথ দলের সিদ্ধান্তের বাইরেই। আমি দীর্ঘদিন তো অপেক্ষা করলাম। যেহেতু সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি, এলাকার মানুষের প্রচন্ড চাপ। গত ১৫ দিন ধরে ঢাকায় আছি। এলাকার মানুষের একটাই বক্তব্য, শপথ নিয়ে ফিরে আসেন। শপথ গ্রহণের আগে দলের কোনো পর্যায়ে কথা হয়েছে কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, না, আগে বলেছি। দেখাও করেছি। কোনো প্রকারে সম্মতি দেয়নি। দলীয় সিদ্ধান্ত শপথ নেবে না। এখনো পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।

দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে শপথ নেয়াতে বহিষ্কার হবেন কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার বিষয়ে দল যেন কোনো সিদ্ধান্ত নিতেই পারে। সেটা তো জেনেশুনেই শপথ গ্রহণ করেছি। দল যদি মনে করে বহিষ্কার করবে, করতেই পরে। বহিষ্কার করলেও কিন্তু আমি দলে আছি। আমি এই দলের একজন নিবেদিত প্রাণ। সেই ছাত্র জীবন থেকে দীর্ঘ ৩৮ বছর এই দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত।

কাজেই বিএনপি আমাকে বহিষ্কার করলেও আমি তো বিএনপি থেকে বহিষ্কার হবো না। আমি আছি। তিনি বলেন, জনগণ আমাকে নির্বাচিত করেছেন। তাদের প্রত্যাশা আমি যেন শপথ গ্রহণ করে এলাকা ও দেশের সম্পর্কে ভূমিকা পালন করতে পারি।

সাংবাদিকদের জবাবে জাহিদ বলেন, দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে মাঠে লড়াই করেছি। আমি এবার দিয়ে চতুর্থবার নির্বাচন করলাম। এই আসনটি আমাদের বিএনপির ছিল না। স্বাধীনতার পর থেকে এ আসনটি আওয়ামী লীগের। এই প্রথম বিএনপি বিজয় হতে সক্ষম হয়েছে। তিনি বলেন, আমার নেত্রী একজন বয়স্ক নারী, ৭৩ বছর বয়স। উনাকে যেন গণতন্ত্রের স্বার্থে মুক্ত করে দেয়া হয়, সংসদে এই আহ্বান জানাব। এটাই আমার সংসদ সদস্য হিসেবে প্রথম অঙ্গিকার। আর এলাকার হাজার হাজার নিরপরাধ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহ্বান করব। বলব, আপনি এগুলো দেখেন। এগুলোর বাদী পুলিশ। পুলিশ যা করেছে সব মিথ্যা মামলা করেছে। আপনার লোক কোন মামলা করেনি। এটা দেখা উচিত। গণতন্ত্রের স্বার্থে সেসব মামলা প্রত্যাহারের দাবি রাখব।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত