প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শ্রীলঙ্কায় হামলা ও বনানীতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সংসদে শোক প্রস্তাব গ্রহণ

তরিকুল সুমন : প্রস্তাবের উপরে বক্তব্য দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, শ্রীলংকার সন্ত্রাসী হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আমাদের সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং বর্তমানে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ফজলুল করীম সেলিমের কন্যার বড় ছেলে ৮ বছরের জায়ান চৌধুরী মৃত্যুবরণ করেছে এবং শেখ সেলিমের মেয়ে সোনিয়ার জামাই সেখানে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। আমি তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। আর সেখানে শুধু জায়ান চৌধুরী-ই নয়, প্রায় ৪০জনের কাছাকাছি শিশুসহ সাড়ে তিনশ’র কাছাকাছি মানুষ মারা গেছে। এই ধরণের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, বোমা হামলা, এর নিন্দা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। যারা এই ঘৃণ্য অপরাধ ঘটিয়ে থাকে তারা এর মধ্য দিয়ে কি অর্জন করছে জানি না। নিহতদের মধ্যে যে ছোট্র শিশু, নিষ্পাপ, কোনো অপরাধ যাদের নাই। তারা কেনো এভাবে জীবন দেবে? ঠিক এর কিছুদিন পূর্বেই নিউজিল্যান্ডের মসজিদে সরাসরি গুলি করে অনেকগুলি মানুষকে হত্যা করা হলো। সেখানেও নারী, পুরুষ, শিশু ছিল। আমাদের ক্রিকেট টিম সেখানে ছিল। খুব অল্পের জন্য তারা বেঁচে গিয়েছে।

এর আগে একাদশ জাতীয় সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশনের শুরুতে সন্ধ্যা পৌনে শোক প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, সন্ত্রাস জঙ্গীবাদ কোনো কল্যাণ বয়ে আনতে পারে না। আবার মানুষ্য সৃষ্ট সন্ত্রাসও আমরা দেখি। নুসরাত- তাকে গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারল। যে একটা অন্যায়ের প্রতিবাদে সে করেছিল, এই ধরণের যে অমানবিক ঘটনাগুলো ঘটে এটা সত্যিই মানে আমি বলব মানব জাতির জন্য অত্যন্ত অকল্যাণকর। আমাদের দেশে আমরা এ রকম বোমা হামলা, জঙ্গি হামলা আমরা তা কঠোর হাতে হস্তে দমন করেছি। আমি দেশবাসিকে বলব, দেশবাসিকে সতর্ক থেকে যদি কোথাও কোনো অস্বাভাবিক কোনো কিছু তারা পান, সঙ্গে সঙ্গে যেনো তারা আমাদের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাকে জানান। আমরা চাই না এ ধরণের ঘটনা পৃথিবীর কোথাও ঘটুক। এ ধরণের ঘৃণ্য হামলা যারা করে তারা সন্ত্রাসী, জঙ্গিবাদ। তাদের কোনো ধর্ম নাই। তাদের কোনো দেশ, কাল, পাত্র নেই। জঙ্গি জঙ্গিই, সন্ত্রাসী সন্ত্রাসীই। আর ইসলাম ধর্মের নামে যারা সন্ত্রাস করে, তারা আমাদের পবিত্র এই ধর্মকে সকল মানব জাতির কাছে হেয় প্রতিপন্ন করে দিচ্ছে। ইসলাম শান্তির ধর্ম। সব ধর্মেই হিন্দু, মুসলমান, খ্রিস্টান, বোদ্ধ সব ধর্মেই কিন্তু শান্তির কথাই বলা আছে। কিন্তু তারপরও যে, কিছু লোক ধর্মীয় উন্মাদনায় তারা যে, মানুষের প্রতি আঘাত আনে জীবন কেড়ে নেয় এটা মানব জাতির জন্য অত্যন্ত বেদনাদায়ক এবং কষ্টকর। জায়ান চৌধুরী একটা ছোট্র বাচ্চা। মাত্র আট বছর বয়স। আজকে সে আমাদের মাঝে নেই। তার বাবাও মৃতুশয্যায়। বাবাকে এখনো জানতে দেওয়া হয়নি যে, জায়ান নেই। সে বারবার খুঁজছে। আর তার মা, বাবা পরিবারের অবস্থা আপনারা বুঝতেই পারেন। আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে বলি এ ঘটনায় যারা মারা গেছে শুধু তারা নয়, যাদের জন্য আমরা শোক প্রস্তাব নিলাম, তাদের সকলের আত্মার মাগফেরাত আমি কামনা করছি। তাদের শোক সন্তপ্ত পরবারের প্রতি আমি আমার সমবেদনা জানাই। আর দেশবাসির কাছে এটাই আমার আহ্বান তাদের জন্য দোয়া চাই। আর এ ধরণের সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ থেকে যেনো সকলে দূরে থাকি। এ ধরণের ঘৃণ্য কাজের সঙ্গে যেনো কোনো মানুষ-মানুষ যারা তারা যেনো জড়িত না হয় সেটাই আমার কামনা।

শোক প্রস্তাবে সম্প্রতি শ্রীলঙ্কার সিরিজি বোমা হামালার ঘটনায় হতাহত এবং জাতীয় সংসদের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলির সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীরর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়।

এছাড়া ঢাকার বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের, নিউজল্যান্ডের ক্রাইষ্টচার্চে দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায়, ইথিওপিয়ায় বিমান বিধ্বস্তে নিহতের ঘটনায় শোক প্রকাশ করা হয় এবং প্রস্তাব সংসদে গ্রহণ করা হয়।

আরো শোক প্রস্তাব আনা হয় অভিনেতা টেলি সামাদ, প্রধানমন্ত্রীর ফুফু হামিদা খানম বানু, পিআইবি’র মহাপরিচালক শাহ আলমগীল, কবি আল মাহমুদ, সঙ্গীত শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহ, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের বাবা, মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি, ফায়ারম্যান সোহেল রানাসহ প্রয়াত কয়েক জনের নামে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। শোক প্রস্তাব গ্রহণের পর নিহতদের আত্মার মাকফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত