প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পোশাক খাত নিয়ে টিআইবির প্রতিবেদন মিথ্যাচার ছাড়া কিছু নয়, বললেন রুবানা হক

স্বপ্না চক্রবর্তী : ‘বাংলাদেশের পোশাক খাতের শ্রমিকদের বেতন তো বাড়েই নি বরং ২৬ শতাংশ কমেছে’ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)’র এমন প্রতিবেদনকে নিছক মিথ্যাচার ছাড়া কিছু নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিজিএমইএ এর সভাপতি রুবানা হক। তিনি বলেন, শুধু তাই নয় রানা প্লাজা নিয়ে অ্যাকশন এইডের প্রতিবেদনও অসঙ্গতিপূর্ণ।

গত মঙ্গলবার রাত সোয়া ১২টার দিকে জুরাইন কবরস্থানে রানা প্লাজা ধসে নিহত শ্রমিকদের স্মরনে কবর জিয়ারত ও শ্রদ্ধা জানানো শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় টিআইবির ওই প্রতিবেদন প্রসঙ্গে রুবানা হক বলেন, টিআইবি বলছে ২৬ ভাগ বেতন কমেছে। যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। কারণ প্রতিবছর ৫ শতাংশ হারে শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি পেয়ে থাকে। কাজেই এসব আরও ভালো করে জানতে হবে। প্রতিবেদনটি আমরা আরও ভালো করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছি। এরপরই এ বিষয়ে বিস্তারিত বলতে পারবো। তিনি বলেন, টিআইবি ২৬টি প্রতিষ্ঠানকে ঋণ খেলাপি বলছে। কারা সেই ঋণ খেলাপি সেটি জানতে হবে। যারা ঋণ খেলাপি তারা হয়তো অনেক ছোট প্রতিষ্ঠান। আমরা বলতে চাই, ইচ্ছে করে যারা ঋণ খেলাপি রয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে আমরা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করব। আর যারা অনিচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপি, আমরা তাদের পাশে সর্বশক্তি নিয়ে দাড়াবো। একই সময় রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি প্রসঙ্গে অ্যাকশন এইডের দেওয়া প্রতিবেদন প্রসঙ্গে বলেন, প্রতিবছর রানা প্লাজ দুর্ঘটনার বর্ষপূর্তি যখন আসে ঠিক তখনই পোশাক খাত নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে অ্যাকশন এইড। সারা বছর কেনো করে না তা বুঝি না। কাজেই পোশাক খাত নিয়ে কেউ কোনো ষড়যন্ত্র করছে কি না সেদিকেও সজাগ থাকবে হবে। তিনি বলেন, তাদের কাছে জানতে চাই কতজনের ওপর তারা জরিপ করেছে। ১৪০০ কোম্পানির মধ্যে মাত্র ২০০ কোম্পানির ওপর জরিপ করে এমন তথ্য প্রকাশ করা ঠিক না। ২০ ভাগ শ্রমিক কর্মক্ষমতা হারিয়েছে।

বিজিএমইএ এর প্রথম নারী সভাপতি আরও বলেন, রানা প্লাজার পর আমরা ঘুরে দাঁড়িয়েছি। নতুন করে পোশাক খাত বিশ্বের বুকে জায়গা করে নিয়েছে। নতুন নতুন অভিজ্ঞতা হয়েছে। শ্রমিকদের কল্যাণে ও মানোন্নয়নে কাজ করা হচ্ছে। শ্রমিকদের জীবন মানের উন্নতি হয়েছে। ছোট ছোট ভুল যেখানে ছিল সেগুলোও এখন আর নেই। বিদেশি প্রেসক্রিপশনে নয়, নিজেদের উদ্যোগে পোশাক খাতে কাজ করা হবে। কীভাবে শ্রমিকদের কল্যাণ সাধিত হয়, ভবিষ্যতে সেই চিন্তা আরও বেশি করে করা হবে। শ্রমিকরা না থাকলেও আমরা চলতে পারব-এমনটা ভাবার একেবারই সুযোগ নেই। তিনি বলেন, রানা প্লাজায় নিহত ও আহতদের পরিবারের জন্য নতুন করে করার কিছুই নেই। তবে এ ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে সেদিকে নজর দিতে হবে। সবসময় এরকম ঘটনা রোধে সোচ্চার থাকবে বিজিএমইএ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত