প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাবির ভর্তি জালিয়াতিতে বাতিল হবে ৯১ জন শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব, ভর্তি পরিক্ষায় আনা হচ্ছে পরিবর্তন

নুর নাহার : ডিজিটাল জালিয়াতি করে বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া ৯১ জন শিক্ষার্থীর ছাত্রত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কর্তৃপক্ষ বলছে অধিকতর তদন্তের জন্য ওই সব শিক্ষার্থীর তথ্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে দেয়া হয়েছে। এদিকে দ্রুত এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন ডাকসুসহ বিশ^বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। ইনডিপেনডেন্ট টিভি

বিগত কয়েক বছরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরিক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগ ওঠে। জালিয়াতির সাথে জড়িত বেশ কয়েকজনকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও এ সব বিষয়ে তদন্ত করে আসছিলো। তদন্তে ২০১২-১৩ শিক্ষবর্ষ থেকে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত ৬ বছরে জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি হওয়া এসব শিক্ষার্থী চিহ্নিত করা হয়েছে। যার মধ্যে বেশির ভাগই ঘ ইউনিটের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে আসা।

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী বলেন, তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকার বা ছাত্রত্ব পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। যদি এমন প্রমাণ হয় যে ইতিমধ্যে ডিগ্রি অর্জন করেছে কোনো একটি অসৎ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে। সে ডিগ্রি বাতিল করা হবে। এদিকে অভিযুক্ত বেশ কয়েকটি ছাত্রের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তারা কথা বলেননি। বিভাগগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায় এদের অনেকই নিয়মিত ক্লাসেও আসেন না।

গৌরব ঐতিহ্যের প্রতীক ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়। এরা এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কলঙ্ক। দ্রুত কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি সংশ্লিষ্টদের। এদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা না নেয়া হলে আন্দোলনের হুশিয়ারী ডাকসুসহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের।  শিক্ষার্থীরা বলেন, এদেরকে যারা পৃষ্টপোষকতা দিয়েছে রাজনৈতিক আশ্রয় দিয়েছেন সবার বিরুদ্ধেই দৃষ্ঠান্তমূলক ব্যবস্থা করতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন জালিয়াতি শিক্ষার্থী থাকা পর্যন্ত এ আন্দোলন চালিয়ে যাবো।

প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ বি এম মইনুল হোসেন বলেন, ডিজিটাল মিডিয়াতে যাদের উপস্থিতি আছে তাদের সমন্নয়ে একটি টিম গঠন করা যেতে পারে। জালিয়াতি ঠেকাতে আগামী শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় পরিবর্তন আনছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এমসিকিউর পাশাপাশি লিখিত পরিক্ষাও দিতে হবে পরিক্ষার্থীদের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত