প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তদন্তের আগে কোন সম্প্রদায়কে দায়ি করতে চাই না, বললেন ঢাকায় বসবাসরত শ্রীলঙ্কানরা

জিয়ারুল হক : শ্রীলঙ্কার ব্যাপক বোমাবাজির খবর তারা পান হোয়াটস আপের মাধ্যমে। সেটা ছিলো রোববার। ঢাকায় অনেক শ্রীলঙ্কান থাকেন। তাদের কাছে এ সংবাদ বজ্রপাতের মতো মনে হয়। খবর শুনে ঢাকায় অবস্থানরত শ্রীলঙ্কানরা নগরীর এক জায়গায় মিলিত হন। সিলভা নামের এক মহিলা বলেন, দু:সংবাদ শুনে মাথাটা একেবারে খালি হয়ে গিয়েছিলো। বুকটা আতঙ্কে কাপছিলো। সবাই মিলে আমরা প্রার্থনায় বসি। বিবিসি বাংলা

মে মাসে শ্রীলঙ্কার গৃহযুদ্ধ সমাপ্তির দশ বছর পূর্তি। এর মধ্যেই সেখানে বেশ বড় হামলার মতো বিপদজনক ঘটনাটি ঘটলো। ২০০৯ সালে গৃহযুদ্ধের সমাপ্তির পর এতো বড় দুর্ঘটনার ঘটনা আর ঘটেনি।

শ্রীলঙ্কান জাতিগোষ্ঠীর যারা ঢাকায় অবস্থান করছেন, তাদের প্রশ্ন, খ্রীষ্টানদের ওপর কেন এই হামলা? ইস্টারের মতো পবিত্র এমন দিনে কেন এতগুলো মানুষকে মারা হলো?

বাংলাদেশে দীর্ঘদিন ধরে বসবাসরত এক শ্রীলঙ্কান বলেন, খ্রীষ্টানদের ওপর বিশেষ করে শ্রীলঙ্কায় এরকম হামলার উদ্দেশ্য আমরা বুঝতে অক্ষম।

এই হামলার সঙ্গে শ্রীলঙ্কার একটি ইসলামপন্থি গোষ্ঠীর নাম জোরে সোরে বলা হচ্ছে। ঢাকায় শ্রীলঙ্কার এক নাগরিক বলেন, আমরা কোন সম্প্রদায়ের প্রতি অঙ্গুলি নির্দেশ করতে চাই না। তারা দেখুক কোন ধর্মের মানুষ বা কারা এর সঙ্গে জড়িত। তারপর তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে।

বাংলাদেশে বসবাসরত শ্রীলঙ্কার নাগরিকরা তাদের সরকারকে দায়ী করেন। দায়ীর কারণ, শ্রীলঙ্কার সরকার এই হামলার ব্যাপারে আগাম খবর পেয়েছিলো। কিন্তু সরকার কোন ব্যবস্থা নেয়নি। এ ব্যাপারে তারা সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত