প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘তাওহীদ আল জামাতের একটি অংশ আইএস’র বায়াত নিয়েছিল’

ইসমাঈল ইমু : শ্রীলঙ্কার ঘটনার পর দায় স্বীকার করা জঙ্গি সংগঠন ন্যাশনাল তাওহীদ আল জামাতের একটি অংশ আইএসএর বায়াত নিয়েছিল। দীর্ঘদিন ধরে ওই দেশে গৃহযুদ্ধ চলেছে। যুদ্ধের সময়ের অনেক এক্সপ্লোসিভ ও অস্ত্র বিভিন্ন স্থানে রয়েছে। সেগুলো বিক্রিও হয়। টার্গেট নির্ণয়ের ধরণ বাইরের ইন্ধনে হতে পারে। মঙ্গলবার সিরডাপ মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ থেকে জঙ্গি সংগঠন আইএস এ যোগ দেয়া সদস্যরা দেশে ফিরতে চাইলে তাদের দেশে ফেরত নেয়া হবে কি না? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে মূলত ২০১৪ সালের শেষদিকে কতিপয় লোক আইএস’ এ যোগদান করেছে কথিত আছে। আমাদের ধারণা তাদের কেউ ধরা পড়েছে, কেউ নিহত অথবা কেউ চিহ্নিত হয়েছেন। তারা যদি এখন দেশে ফিরতে চায় তাহলে তাদেরকে অবশ্যই এয়ারক্রাফট দিয়ে দেশে ফিরতে হবে। এজন্য তাদের পাসপোর্ট লাগবে। এতদিনে তাদের পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। দেশে ফিরতে হলে তাদেরকে নতুন করে পাসপোর্ট আবেদন করতে হবে নতুবা ট্রাভেল ডকুমেন্ট গ্রহণ করতে। আমরা সিরিয়াসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে যখন পাসপোর্ট আবেদন পাচ্ছি সেগুলো অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে যাচাই-বাছাই করে তাদেরকে পাসপোর্ট দিচ্ছি।

কারাগারে জঙ্গিবাদ ছড়ানোর বিষয়ে মনিরুল ইসলাম বলেন, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের অনেক দেশে কারাগারে জঙ্গীরা রেডিক্যলাইজড হচ্ছে। বাংলাদেশে সন্ত্রাস বিরোধী আইনে যাদের নামে মামলা হয়, তাদের পৃথক কারাগারে রাখা হয়। শুধুমাত্র কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে করে যখন তাদের আদালতে নেয়া হয়, তখনই অন্যান্য আসামীদের সাথে দেখা হয়। এর বাইরে অন্য আসামীদের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ নেই। বাংলাদেশে আইএস’র খলিফা নিয়োগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা আইএস এর নিজস্ব দাবি। বাংলাদেশ তাদের কোন খলিফা নাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত