প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শ্রীলঙ্কায় নিহত জায়ানের লাশ দেশে আসতে পারে মঙ্গলবার

সমীরণ রায়: আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীর (৮) মরদেহ দেশে আসতে পারে মঙ্গলবার। শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলার ঘটনায় জায়ান চৌধুরী নিহত হন আর জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স আহত হন। শেখ সেলিমের ব্যক্তিগত সহকারী ইমরুল হক জানান, জায়ানের মরদেহ বিমানবন্দর থেকে সরাসরি শেখ ফজলুল করিম সেলিমের বনানীর বাসায় নেওয়া হবে। বাদ আছর জায়ানের জানাজা শেষে তার মরদেহ রাজধানীর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

এদিকে বেসরকারি চ্যানেলকে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ জানিয়েছেন, সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে জায়ানের মৃতদেহ বহনকারী একটি ফ্লাইট শ্রীলঙ্কা থেকে রওনা হয়ে সকাল ১১টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবে।

শেখ সেলিমের কৌশিক জানান, আজই জায়ানের লাশ আসার কথা রয়েছে। যেহেতু আন্তর্জাতিক চাঞ্চল্যকর ঘটনা, সেজন্য আমরা আশাবাদী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি এভাবেই আশ্বস্ত করেছেন।

সোমবার সকালে শেখ সেলিমের বনানী বাসা থেকে বের হয়ে এসে সাংবাদিকদের সাবেক স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন জানিয়েছেন, শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান মারা যাওয়ার পাশাপাশি মেয়ে শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়ার স্বামী মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্সের দুইটি পা ড্যামেজ (অকেজো) হয়ে গেছে। মশিউল হক চৌধুরী সপরিবারে কলম্বোতে ঘুরতে গিয়েছিলেন। তারা কলম্বোর পাঁচ তারকা হোটেল সাংগ্রিলায় উঠেছিলেন। সকালে বড় ছেলে জায়ান চৌধুরীকে নিয়ে হোটেলে নাস্তা করতে গিয়েছিলেন প্রিন্স। এ সময় সেখানে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। একই সময়ে ছোট ছেলে জোহানকে নিয়ে হোটেল কক্ষে অবস্থান করছিলেন আমেনা সুলতানা সোনিয়া। এসময় উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, সাবেক সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর, সাবেক নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।

শেখ সেলিমের এপিএস ইমরুল হক জানান, জায়ানের মরদেহ দেশে আনতে শেখ সেলিমের ছেলে শেখ ফাহিম প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হয়ে ব্রুনাই গিয়েছিলেন। সেখান থেকে শ্রীলংকা গেছেন। অপর ছেলে শেখ নাইম তার মাকে সঙ্গে নিয়ে শ্রীলংকা পৌঁছেছেন। জায়ান চৌধুরী রাজধানীর উত্তরার সানবিমস স্কুলের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার দাদার বাড়ি সিলেটের সুনামগঞ্জের ভাটিপাড়ায়। জায়ানের বাবা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স এম এইচ চৌধুরী পারুলের ছেলে।

এদিকে, শেখ ফজলুল করিম সেলিমের বনানীর (২/এ রোডের ৯ নং) বাসায় কোরআন তেলায়াত করা হয়েছে। ১০ থেকে ১২ জন হাফেজ বাসার নিচ তলায় বসে কোরআন খতম করেন। নাতি জায়ান চৌধুরী শেখ সেলিমের এ বাসাতেই থাকত। সে কারণে তার বাসায় মিলাদ মাহফিলের ব্যবস্থা করা হয়। বাসার সামনে ও রাস্তার দুই পাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। নিকটাত্মীয় ছাড়া অন্য কাউকে বাসায় ঢুকতে দেওয়া হয়নি।

রোববার রাত থেকেই শেখ সেলিমকে সান্ত্বনা দিতে তার বনানীর বাসায় যান আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উলআলম হানিফসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা। সোমবার সকালে তার বাসায় যান আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনসহ নেতাকর্মীরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত