প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শত্রুর বহু পরিকল্পনা ব্যর্থ করে দিয়েছে ইরান, দাবি গোয়েন্দা মন্ত্রীর

রাশিদ রিয়াজ : ইরানের গোয়েন্দামন্ত্রী এক বছর আগে বেশ কয়েকটি বিদেশি গুপ্তচর গোষ্ঠীর সন্ধান ও তাদের নানা ষড়যন্ত্র নস্যাত করে দেয়ার খবর দিয়েছিলেন। বিভিন্ন প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ইরানের নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এ পর্যন্ত নিরাপত্তাহীনতা সৃষ্টির বহু চেষ্টা ব্যর্থ করে দিতে সক্ষম হয়েছে।

ইরানের গোয়েন্দামন্ত্রী সাইয়্যেদ মাহমুদ আলাভি শুক্রবার তেহরানে জুম্মার নামাজের খুতবার আগে দেয়া বক্তব্যে এ সংক্রান্ত এক পরিসংখ্যান তুলে ধরে বলেছেন, তার দেশের গোয়েন্দা বাহিনী গত এক বছরে উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর ১১৪টি টিম, সন্ত্রাসী মোনাফেকিন গোষ্ঠীর ১১৬টি টিম, বিপ্লব বিরোধী চারটি টিম এবং ৩৮০টি মাদক চোরাকারবারি দলকে মোকাবেলা করেছে।

তিনি বলেন, ইরানিসহ শত শত বিদেশি গুপ্তচরকে শনাক্ত করে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের সবাই মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র সদস্য। বিভিন্ন বন্ধুপ্রতীম দেশে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র এজেন্টদের শনাক্ত করার পর ওই সব দেশের সরকারকে এ বিষয়ে তথ্য দিয়েছে ইরান। গোয়েন্দামন্ত্রী জানান, দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতায় সিআইএ’র সঙ্গে ওই সব ব্যক্তির যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা সম্ভব হয়।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইরান নানা প্রতিকূল পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছে। ইরানের গোয়েন্দামন্ত্রী এ ব্যাপারে বলেন, তার দেশের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য এসব গুপ্তচর টিম গড়ে তোলার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র ও দখলদার ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সরাসরি ভূমিকা রয়েছে। টিমের সদস্যদেরকে তারা সন্ত্রাসী কর্মকা-ের প্রশিক্ষণ দেয়া ছাড়াও নিজেদের মধ্যে আসা যাওয়া ও বিশেষ কৌশলে যোগাযোগ রক্ষা করা এবং বিভিন্ন রকমের গুপ্তচরবৃত্তির প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।

বিদেশি মদদপুষ্ট এসব সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর তৎপরতা ও হুমকির কারণে ইরানের গোয়েন্দা বাহিনী তাদের ওপর কঠোর নজরদারি রেখে চলেছে। ইরানের গোয়েন্দামন্ত্রী সন্ত্রাসীদের যেকোনো তৎপরতা মোকাবেলায় তার দেশের নিরাপত্তা বাহিনীর সর্বোচ্চ সতর্কতা ও প্রস্তুতির কথা উল্লেখ করেন।

বর্তমানে ইরানের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো সেনাবাহিনী ও ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র সহযোগিতায় বিদেশী মদদপুষ্ট সন্ত্রাসী গোষ্ঠী, গুপ্তচর সংস্থা ও আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে এবং এ পর্যন্ত তাদের বহু তৎপরতা ও ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে কুখ্যাত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর নেতা আব্দুল মালেক রিগিকে আটকের কথা উল্লেখ করা যায়। তার গ্রেফতারের ঘটনা থেকে আঞ্চলিক নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় ইরানের প্রভাবশালী ভূমিকার বিষয়টি ফুটে ওঠে। বিশ্বের শক্তিশালী গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এ ক্ষেত্রে ইরানের শক্তিশালী অবস্থানের বিষয়টি স্বীকার করেছে। কানাডার গ্লোবাল নিউজ সাইটে সন্ত্রাসী পরিকল্পনা নস্যাতে ইরানের সফলতা ও দেশটির শক্তিশালী গোয়েন্দা ইউনিটির সক্ষমতার কথা উল্লেখ করে লেখা হয়েছে, ইরানের কাছ থেকে কোনো কিছুই গোপন করা সম্ভব নয়।

বর্তমানে যুদ্ধ ও যুদ্ধ কৌশল অত্যন্ত জটিল রূপ নিয়েছে। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক থাকা সবচেয়ে জরুরি। সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে শত্রুরা এ অঞ্চলের জাতিগুলোর মধ্যে যুদ্ধ বাধানোর চেষ্টা করছে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে ইরানও সতর্ক অবস্থান নিয়েছে। পারসটুডে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত