প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আগারগাঁওয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র পেতে ভোগান্তি, বললেন সাধারণ মানুষ

রুহুল আমিন : জাতীয় পরিচয়পত্র মানুষের অনেক কাজে লাগে। চাকরি, শিক্ষা, ব্যবসা, বিবাহ, বিদেশ যাওয়া এমনকি এটা ছাড়া মানুষ কোনো কাজ করতে পারে না। অনেকেই এটা বিভিন্ন সময় হারিয়ে ফেলে। যার কারণে মানুষ জাতীয় পরিচয়পত্র তোলতে আগারগাঁওয়ে যেতে হয়। কারণ এটা ছাড়া মানুষ কোনো কিছু করতে পারে না। এনটিভি।

ভোগান্তির স্বীকার একজন বলেন, আমার এলাকায় যখন স্মার্ট কার্ড দিয়েছে তখন আমি পায়নি। থানার নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে গেলে বলে পরে আসো। কিন্তু নির্দিষ্ট করে কোনো তারিখ বলে না। আর তারিখ দিলেও সে তারিখে গেলে আর দেয় না। তখন আরো বেশি ভোগান্তি হয়। এজন্য আমি আগারগাঁওয়ে আসছি কিন্তু এখানেও কোনো সমাধান হয়নি। দিনের পর দিন লাইনে দাড়িয়ে থাকতে হয় আইডি কার্ড আর সংশোধন করা যায় না।

ভোগান্তির স্বীকার আরেকজন বলেন, আমরা আগারগাঁওয়ে আইডি কার্ড সংশোধন ও পুনরায় তোলার জন্য আসলে লাইন দেখি অনেক বড়। এক লাইন শেষ করতে তারা সারাদিন সময় নেয়। আবার কোনো লাইন শেষ করতে দুইদিন সময় নেয়। তারা বলে তাদের নাকি জনবল কম। তাদের লোক কম থাকলে তারা লোক নেয় না কোনো। তারা অযথা মানুষকে হয়রানি করে।

এন আইডির মহাপরিচালক ব্রি. জেনারেল সাইফুল ইসলাম বলেন, অনেকে শুধু শুধু আইডি কার্ড সংশোধন করতে আসে। অনেকের মুক্তিযুদ্ধের সময় বয়স ছিলো ৩ বছর। কিন্তু তারা নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা বানাতে তাদের বয়স বাড়াতে আসে আমরা তো এটা করতে পারি না। একজন মাডার কেইছের আসামি নিজের নাম পরিচয় পরিবর্তন করতে চান। এটা কোনোভাবে আমরা করতে পারি না।

ইসি সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদ বলেন, ভোগান্তি কমাতে ঢাকা থেকে প্রতি জেলায় প্রত্যেক নাগরিকের আইডি কার্ড দেয়া হবে। এমনকি সংশোধন ও ডুপ্লিকেট কপি প্রতি জেলায় দেয়া হবে। অসম্পূর্ণ থাকায় যারা কার্ড পায়নি তাদের খুব শিগরিই কার্ড দেয়া হবে। যারা ভুল তথ্য দিয়েছে তাদের কার্ড ভুল তথ্য অনুযায়ী দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, ২০২০ সালের মধ্যে প্রত্যেক নাগরিক আইডি কার্ড পেয়ে যাবে। তখন আর কেউ বাদ থাকবে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত