প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চাহিদার তিনগুণ মজুদ তবু বাড়ছে চিনির দাম

ডেস্ক রিপোর্ট : পর্যাপ্ত মজুদ ও সরকারের বিভিন্ন সংস্থা বাজার তদারকি করায় ভোজ্যতেল, ডাল, ছোলা, পেঁয়াজ ও খেজুরের দাম এখনও স্বাভাবিক আছে। কিন্তু রমজান সামনে রেখে সক্রিয় হয়ে উঠেছে চিনি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট। প্রধানমন্ত্রীর নিত্যপণ্যের দাম না বাড়ানোর আহ্বান জানানোর পরও ওই সিন্ডিকেট শবেবরাতের আগেই চিনির দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।যুগান্তর।

যদিও চাহিদার তিন গুণ মজুদ রয়েছে এ পণ্যটি। বৃহস্পতিবার পাইকারি পর্যায়ে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) চিনি ৭০-৮০ টাকা বেড়ে বিক্রি হয় ২৪৮০-২৪৯০ টাকা। আর খুচরা পর্যায়ে বস্তা ১০০ টাকা বেশিতে বিক্রি হয়।

এদিন সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আসন্ন রমজান নিয়ে প্রস্তুতির বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি সাংবাদিকদের বলেন, বাজারদর নিয়ন্ত্রণে রাখতে টিসিবির মাধ্যমে শিগগির ভোজ্যতেল, চিনি, ডাল, ছোলা, পেঁয়াজ ও খেজুর বিক্রি করা শুরু হবে। আমাদের ধারণা রমজানে পণ্যের দাম তেমন বাড়বে না। কারণ মজুদসহ সব ধরনের প্রস্তুতি আমাদের আছে। আমাদের কাছে যা রিপোর্ট আছে তাতে প্রয়োজনের তুলনায় নিত্যপণ্যের মজুদ অনেক বেশি। তবে চিনিতে হয়তো এক-দু টাকা বাড়তে পারে। কারণ চিনির উৎপাদন খরচ বেড়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, চিনির দাম বাড়ার কারণ জানতে শুক্রবার (আজ) থেকে মনিটরিংয়ে নামবে তদারকি সেল। দেশের চিনির মোকাম থেকে শুরু করে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে তদারকি করবে। দাম বাড়ানোর পেছনে কোনো ধরনের অনৈতিক কারণ থাকলে দোষীদের চিহ্নিত করে ভোক্তা আইনে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘এবার রমজানে পণ্যের দাম বাড়াতে দেয়া যাবে না। অসাধুরাও যাতে কোনো পন্থা অবলম্বন করে দাম বাড়াতে না পারে সেদিকে নজর রাখা হবে।’ রাজধানীর সর্ববৃহৎ পাইকারি বাজার কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরা ও কারওয়ান বাজারের চিনি ব্যসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে যানা যায়, বৃহস্পতিবার প্রতি বস্তা চিনি বিক্রি হয়েছে ২৪৮০-২৪৯০ টাকা। যা দু’দিন আগেও বিক্রি হয় ২৪১০-২৪২০ টাকা।

অন্যদিকে রাজধানীর বেশ কয়েকটি খুচরা বাজার ও এলাকার মুদি দোকানির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এদিন খুচরা প্রতি বস্তা চিনি বিক্রি হয় ২৬০০ টাকা। যা দু’দিন আগেও বিক্রি হয়েছে ২৫০০ টাকা। আর কেজিপ্রতি চিনি বিক্রি হয়েছে ৫২-৫৩ টাকা। যা দু’দিন আগেও বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকা কেজি। বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন সূত্রে জানা যায়, দেশে বছরে ১৮ লাখ টন চিনির চাহিদা আছে। শুধু রমজান মাসেই চাহিদা ৩ লাখ টন। বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশন সূত্র বলছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দেশে চিনির মোট উৎপাদন ছিল ৬৮ হাজার ৫৬২ টন। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশে ৬২ হাজার ৮৮৯ টন চিনি উৎপাদন করা হয়েছে।

এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে চিনির মোট আমদানি করা হয় ২২ লাখ ২১ হাজার টন। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ৯ মার্চ পর্যন্ত দেশে চিনি আমদানি করা হয় ১০ লাখ ৭৩ হাজার টন। একই সময় এলসি খোলা হয়েছে ১২ লাখ ৪৭ হাজার টন। ফলে এ মুহূর্তে চাহিদার তিন গুণ বেশি চিনি মজুদ রয়েছে।

কারওয়ান বাজারের নিত্যপণ্য কিনতে আসা মো. আজিজুল ইসলাম বলেন, এখন ব্যবসায়ীরা রমজানের আগেই পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেন, যাতে রমজানে দাম না বাড়ালেও চলে। কারণ তারা জানেন, রমজানে দাম না বাড়ানোর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে চাপ থাকবে।

এ বিষয়ে ক্যাব সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, রমজানে মূলত কয়েকটা কারণে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ে। এর একটি হল চাহিদার তুলনায় পণ্য সরবরাহ কম। তবে কৃত্রিমভাবে ঘাটতি দেখিয়ে অনেক সময় দাম বাড়ানো হয়। তাই সরকারের কঠোর নজরদারি প্রয়োজন, যাতে অসাধু ব্যবসায়ীরা সংকট তৈরি করতে না পারেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি সচিবালয়ে রমজান নিয়ে প্রস্তুতি বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘চাহিদার তুলনায় নিত্যপণ্যের অনেক বেশি মজুদ রয়েছে। তাই এবারের রমজানে পণ্যের দাম বাড়বে না। পণ্য আনা-নেয়ার রাস্তায় যেন কোনো ধরনের চাঁদাবাজি না হয় সে জন্য সংশ্লিষ্টদের শিগগির চিঠি দেয়া হবে।’ বাজার মনিটরিংয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মনিটরিংয়ের সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ও বাজার মনিটর করবে। কোনো ব্যবসায়ী রমজানকে কেন্দ্র করে সুযোগ নিচ্ছে কি না, সে বিষয়টি আমরা নজরে রাখছি। সার্বিকভাবে আমরা পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছি।’

তিনি বলেন, পণ্য আনা-নেয়ার পথে যেন চাঁদাবাজি না হয় সে বিষয়টি আমরা শক্তহাতে দমন করব। দু-এক দিনের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিভাগে চিঠি দেব; যাতে পথে চাঁদাবাজি না হয়। চাঁদাবাজিটা হয়তো শতভাগ বন্ধ করা যাবে না। তবে এ বিষয়টি আমরা শক্তভাবে নিয়ন্ত্রণ করব। পুলিশের চাঁদাবাজির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘চাঁদাবাজি তো চাঁদাবাজিই। বন্ধ করতে চাচ্ছি তখন সবই বন্ধ করব।’ এ বিষয়ে জনগণকে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে জনগণকে রুখে দাঁড়াতে হবে। তাহলে এমনিতেই চাঁদাবাজি কমে যাবে।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত