প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মঙ্গল শোভাযাত্রা হোক সব ধর্মের, সব মানুষের

প্রভাষ আমিন : বাংলাদেশে ইসলাম হেফাজতের দায়িত্বটা নিজ দায়িত্বে নিজ কাঁধে তুলে নিয়েছেন আল্লামা শাহ আহমেদ শফি। গড়েছেন হেফাজতে ইসলাম নামে একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। কাগজে-কলমে অরাজনৈতিক হলেও হেফাজতে ইসলাম প্রবলভাবে রাজনৈতিক সংগঠন। লাখ লাখ লোক এসে ঢাকাকে অচল করার ক্ষমতা যে তাদের আছে, সেটা ২০১৩ সালেই অন্তত দুইবার তাপ প্রমাণও করেছেন। সেই ক্ষমতাকে পুঁজি করে আনুষ্ঠানিক-অনানুষ্ঠানিকভাবে সরকারের কাছ থেকে ন্যায্য-অন্যায্য অনেক সুবিধা আদায় করে নিয়েছেন আল্লামা শফি। হেফাজতে ইসলামের আবদারে পাঠ্যপুস্তকে সাম্প্রদায়িকীকরণ করা হয়েছে। কিন্তু ইসলামের হেফাজতের আল্লামা শফি বারবার বাংলাদেশের প্রগতির ধারাকে আটকে রাখতে চান। তিনি চান মেয়েরা ক্লাস ফোর-ফাইভ পর্যন্ত পড়বে। তার কাছে নারী মানেই তেতুল। আল্লামা শফি বাংলাদেশে কওমী মাদ্রাসা শিক্ষার প্রাণপুরুষ। ফেনীতে যখন একজন মাদ্রাসাছাত্রীকে পুড়িয়ে মারা হলো, আমি ভেবেছি, আল্লামা শফি তার পুরো ক্ষমতা নিয়ে নুসরাত হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে মাঠে নামবেন। কিন্তু নুসরাত হত্যার বিচারের দাবিতে সারাদেশ যখন সোচ্চার, তখন আল্লামা শফি ব্যস্ত নিজেদের স্বার্থ আর বাঙালির ঐতিহ্যের বিরোধিতা নিয়ে। সম্প্রতি সরকার কয়েক ব্যক্তির অশ্লীল ও আপত্তিকর ওয়াজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে। এ উদ্যোগের বিরুদ্ধে সোচ্চার আল্লামা শফি। তিনি বলে দিয়েছেন, এ ধরনের উদ্যোগ হিতে বিপরীত হবে। সরকার কিন্তু সব ওয়াজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে না। যারা উস্কানিমূলক, অশ্লীল, আপত্তিকর ওয়াজ করে; কেবল তাদের ব্যাপারে খোঁজ নিচ্ছে। বরং আল্লামা শফি খুঁজে দেখতে পারেন, কারা এ ধরনের ওয়াজ করেন।

আল্লামা শফির সর্বশেষ আবদার মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে। ৩০ বছর ধরে বাঙালির বর্ষবরণের অনিবার্য আয়োজন মঙ্গল শোভাযাত্রা। এখন আল্লামা শফি বলছেন, কোনো মুসলমান মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশ নিতে পারে না। কিন্তু আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, তার এই ফতোয়া কেউ মানবে না। কারণ মঙ্গল শোভাযাত্রার সাথে ধর্মের কোনো সস্পর্কও নেই, কোনো বিরোধও নেই। তিন দশক ধরে ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ নির্বিশেষে কোটি মানুষ এই শোভাযাত্রায় অংশ নিয়ে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে। আজও নিশ্চয়ই তার ব্যতিক্রম হবে। মঙ্গল শোভাযাত্রা হোক সব ধর্মের, সব মানুষের।
লেখক : হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত