প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

র‌্যাবের ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত, পুরস্কৃত হলেন ৫৯জন সদস্য

সুজন কৈরী : র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী মঙ্গলবার পালিত হয়েছে। ভোরে জাতীয় পতাকা ও বাহিনীর পতাকা উত্তোলন এবং গার্ড অব অনারের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কার্যক্রম শুরু হয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় জীবন উৎসর্গকারী র‌্যাব সদস্যদের স্মরণে সদর দফতরে নির্মিত ‘প্রেরণা ধারায়’ সকাল ৮টায় পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বাহিনীর মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ।

এছাড়া গত বছর নিজ নিজ ক্ষেত্রে সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজ করা র‌্যাব কর্মকর্তাদের পুরস্কৃত করা হয়েছে।

২০০৪ সালের ২৬মার্চ জাতীয় স্বাধীনতা দিবস প্যারেডে অংশগ্রহণের মাধ্যমে র‌্যাব আত্মপ্রকাশ করে। একই বছরের ১৪ এপ্রিল পহেলা বৈশাখে রমনার বটমূলে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে মাঠে নামে র‌্যাব। ওই বছর ২১ জুন রাজধানীর উত্তরায় শীর্ষ সন্ত্রাসী পিচ্চি হান্নানকে ধরার অভিযানের মধ্য দিয়ে এর পূর্ণাঙ্গ অপারেশন কার্যক্রম শুরু হয়।

প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে উত্তরায় র‌্যাব সদর দফতরে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াতের মাধ্যমে র‌্যাব মহাপরিচালকের বিশেষ দরবার শুরু হয়। শুরুতেই তিনি গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নৃশংসভাবে নিহত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যবৃন্দকে। সেইসঙ্গে স্মরণ করেন মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত ৩০ লাখ শহীদদের ও সম্ভ্রম হারানো ২ লাখ মা-বোনকে। দরবারে সারা দেশের র‌্যাবের ১৪টি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ও অন্যান্য ইউনিটের প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর দরবারে দেয়া বক্তব্যে র‌্যাব মহাপরিচালক আইনশৃঙ্খলা রক্ষার মাধ্যমে একটি স্থিতিশীল সমাজ প্রতিষ্ঠায় র‌্যাবকে একটি আধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। দেশের আইনশৃঙ্খলা, জঙ্গী, সন্ত্রাসী, সংঘবদ্ধ অপরাধী, অস্ত্রধারী ও মাদকের বিরুদ্ধে অত্যন্ত সফলভাবে অভিযান পরিচালনাসহ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করায় সকল র‌্যাব সদস্যদের অভিনন্দন জ্ঞাপনসহ পরবর্তীতে এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশ প্রদান করেন। জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এদিকে র‌্যাবের বিভিন্ন আভিযানিক কার্মকান্ডে অংশগ্রহণে ভূমিকা রাখায় ‘সাহসিকতা’ ও ‘সেবা’ এই দুই ক্যাটাগরিতে র‌্যাব মহাপরিচালক ৫৯ জন র‌্যাব সদস্যকে বিশেষ সম্মাননায় পুরস্কৃত করেন। এর মধ্যে ৩৪ জন সাহসিকতা এবং ২৫ জন সেবা সম্মাননা পেয়েছেন। এছাড়া র‌্যাবের আভিযানিক সাফল্যের উপর (জঙ্গি, মাদক, অস্ত্র ও সার্বিকভাবে) ভিত্তি করে ৪টি ক্যাটাগরিতে র‌্যাবের বিভিন্ন ব্যাটালিয়নকে পুরস্কৃত করা হয়। জঙ্গি সংক্রান্ত অভিযানিক সাফল্যের উপর ভিত্তি করে র‌্যাব-১৩ প্রথম র‌্যাব-৫ দ্বিতীয় এবং র‌্যাব-১১ তৃতীয় স্থান অধিকার করে। মাদক বিরোধী অভিযানে র‌্যাব-৭ ১ম, র‌্যাব-৫ দ্বিতীয় এবং র‌্যাব-১ ৩য় স্থান অধিকার করে। অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে র‌্যাব-৭ ১ম, র‌্যাব-৮ ২য় এবং র‌্যাব-৫ তৃতীয় স্থান অধিকার করে। সার্বিক ভাবে র‌্যাব-৭ প্রথম, র‌্যাব-৫ দ্বিতীয় এবং র‌্যাব-১৩ তৃতীয় স্থান অধিকার করে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত