প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এবার দুর্ঘটনা কমবে, বলছেন বিবিসির ফোন ইনের অধিকাংশ শ্রোতা

নাঈম কামাল : রোববার বিবিসির ফোন ইন অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন স্থানের শ্রোতারা অংশ নেন। ফোনে বিবিসিকে তারা বিভিন্ন বিষয়ে নানা অভিযোগ তুলে ধরেন। এ দিন সড়ক দুর্ঘটনা নিয়েই সব প্রশ্ন করা হয়। রাজশাহীর জুঁই নামের এক শ্রোতা বলেন, এই সরকার যদি আন্তরিক হয় সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারবে। তারা যুদ্ধপরাধীদের বিচারের সম্মুখীন করেছে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী আলিয়া মুনতাহা বলেন, সরকারের পক্ষে এবার কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রনে সম্ভব। অতীতে দেখা গেছে অনেক আইন হয়েছে কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। চালকদের লাইসেন্স থাকে না, গাড়ির ফিটনেস থাকে না। এজন্য চেকিং ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে। তাদের প্রশিক্ষন দিতে হবে।

কুমিল্লার এমদাদুল হক বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রনে সরকার এবার সফল হবে বলে হয়। সরকারের অস্তিত্ত্বই এর সঙ্গে জড়িত। ফেল করার কোন সুযোগ নেই।

বরিশালের লোকমান হোসেন বলেন, সরকারের সদিচ্ছা থাকলেই হবে। সরকারের সেটা রয়েছে। তবে দুর্ণীতিপরায়ন কিছু লোকের কারণে সুষ্ঠু নিয়মনীতি চালু করা যায় না।হেলপার চালকের বেশিরভাগ নেশাগ্রস্ত।হেল্পারদেরও লাইসেন্স থাকতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী মায়মুনা বলেন চালকরা অশিক্ষিত, লাইসেন্স নেই। যাত্রীরা তেমন সচেতন নয়। গাড়ির স্বল্পতা মালিকের গাফেলতির কথাও উল্লেখ করতে হবে। তবে সরকার বড় বড় যেসব প্রকল্প হাতে নিয়েছে তাতে যানজট থাকবে না।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী গোলাপি খানম বলেন, সরকার পারবে এবং তাকে করতে হবে। সরকার জাবালে নূর ও সুপ্রভাত বন্ধ করে দিয়েছে। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী বন্দনা রায়ও সরকার ব্যবস্থা নিতে পারবে বলে আশাবাদী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত