প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ব্যাটিং ব্যর্থতায় ইংলিশদের কাছে টি-টোয়েন্টিতে হোয়াইটওয়াশ ক্যারিবীয়রা

স্পোর্টস ডেস্ক: টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে রান থাকবে, এটাই স্বাভাবিক। তবে ঠিক উল্টো চিত্র প্রদর্শন করছে উইন্ডিজের ব্যাটিং লাইনআপ। প্রথম ম্যাচে ১৬০ রানে ও করেও জিততে পারেনি ৮ উইকেটে হেরে যায় সফরকারী ইংল্যান্ডের কাছে। দ্বিতীয় ম্যাচে নিজের টি-টোয়েন্টির সর্বনিম্ন স্কোর করে দলটি। মাত্র ৪৫ রানে গুটিয়ে গিয়ে ১৩৭ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরে সিরিজ হাত ছাড়া করে। রবিবার শেষ ম্যাচে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা এড়ানোর ম্যাচে ৭১ রানে অলআউট হয়ে যায় ক্যারিবীয়রা। দুর্দান্ত বোলিং নৈপুণ্য প্রদর্শনের ম্যাচে ইংল্যান্ড ৮ উইকেটের বড় জয় তুলে নেয়। একইসাথে তিন ম্যাচের সিরিজ শেষ করেছে স্বাগতিক দলকে হোয়াইটওয়াশ করে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে এদিন ইনিংসের প্রথম বলেই ওপেনার শাই হোপকে হারায় উইন্ডিজ। এর ১৫ বল পর সাজঘরে ফেরেন শিমরন হেটমেয়ার। দেখে-শুনে খেলার চেষ্টা করেও ওপেনার জন ক্যাম্পবেল সাজঘরে ফেরেন ১১ রান করে। এর কিছুক্ষণ পর ড্যারেন ব্রাভোও ধরেন প্যাভিলিয়নের পথ।

এরপর অধিনায়ক জেসন হোল্ডার ও নিকোলাস পুরান ধীরে খেলে প্রতিরোধের ইঙ্গিত দিলেও সফল হননি। দুজন ১১ রান করে আউট হয়ে গেলে ধ্বস নামে ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং লাইনআপে। শেষ পর্যন্ত ১৩ ওভার ব্যাট করা দলটির ইনিংস গুটিয়ে যায় ৭১ রানে।

ইংল্যান্ডের পক্ষে বাঁহাতি পেসার ডেভিড উইলি একাই শিকার করেন চারটি উইকেট। ৩ ওভার বল করে মাত্র ৭ রান বিলি করেন তিনি। এছাড়া ডানহাতি পেসার মার্ক উড তিনটি এবং স্পিনার আদিল রশিদ দুটি উইকেট শিকার করেন। একটি উইকেট শিকার করেন পার্ট টাইম স্পিনার জো ডেনলি।

৩টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ১৩ বলে ২০ রান করে সাজঘরে ফেরেন হেলস। এরপর জনি বেয়ারস্টো মারকুটে ব্যাটিং চালালেও জয় নিশ্চিতের আগে সাজঘরে ফেরেন তিনিও। ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩১ বলে ৩৭ রানের ইনিংস সাজান তিনি। এরপর অধিনায়ক এউইন মরগ্যানকে নিয়ে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন জো রুট। ইংলিশরা জয় পায় ৮ উইকেট ও ৫৭ বল হাতে রেখেই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত