প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সীমান্তে টানটান উত্তেজনা

ডেস্ক রিপোর্ট : আকাশ হামলা বন্ধ হলেও থেমে নেই স্থল হামলা। নিয়ন্ত্রণ রেখায় (এলওসি) গত কয়েকদিন ধরেই ভারত ও পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী ভারি অস্ত্র নিয়ে গোলাগুলি করছে।

বৃহস্পতিবার ভোরেও ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুঞ্চ জেলায় উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় হয়েছে। এতে চার বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে পাকিস্তান। উত্তেজনাকর এমন পরিস্থিতিতে নিয়ন্ত্রণ রেখার দু’পাশেই থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যেকোনো মুহূর্তেই পাল্টাপাল্টি হামলা শুরু হতে পারে- এমন টানটান উত্তেজনা সীমান্তজুড়েই।

স্থল, নৌ ও আকাশ সীমান্তে কড়া নজরদারি জারি রেখেছে পরমাণু শক্তিধর দুই দেশ। নিয়ন্ত্রণ রেখায় বাড়ানো হয়েছে সেনা টহল। হামলা থেকে বাঁচতে পাক সীমান্তে ১৪ হাজার বাঙ্কার নির্মাণ করছে ভারত। আকাশসীমা শঙ্কামুক্ত রাখতে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সব বিমান চলাচল বন্ধ রেখেছে পাকিস্তান। দিল্লিগামী সমঝোতা এক্সপ্রেস ট্রেন বন্ধ করে দিয়েছে ইসলামাবাদ। আটক ভারতীয় পাইলটের মুক্তির বিষয়টি এই উত্তেজনার সঙ্গে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। সামরিক প্রস্তুতির পাশাপাশি আটক পাইলটকে ফেরত পেতে কূটনৈতিক বার্তা চালাচালি করছে ভারত।

তারা বিমানবাহিনীর পাইলট অভিনন্দনের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছে। অপরদিকে শান্তির বার্তা হিসেবে ভারতীয় পাইলটকে আজ মুক্তি দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে পাকিস্তান। উত্তেজনা নিরসনের ইঙ্গিত দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্প। সীমান্তে যুদ্ধাবস্থা থামাতে ভারত পাকিস্তানের মধ্যে সংলাপ চান জাপান। এছাড়া শান্তির জন্য আরও অনেকেই ভারত ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে ভারতকে কোনোভাবেই দমানো যাবে না বলে বৃহস্পতিবার শত্রু রাষ্ট্রগুলোকে সাবধান করে দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, গোটা জাতি জওয়ানদের পাশে আছে এবং ভারতবাসী তাদের সঙ্গে এক হয়ে লড়াই চালাবে ও বিজয়ী হবে। শত্রুদের বিরুদ্ধে মজবুত প্রাচীর তুলে দাঁড়াবে ভারত।

অপরদিকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতকে আর উত্তেজনা না বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, এটাকে আর সামনে এগিয়ে নেবেন না, তাহলে পাকিস্তান প্রতিশোধ নিতে বাধ্য হবে।

ইমরান খান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে আবারও শান্তি আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির পার্লামেন্টে যৌথ অধিবেশনে এ ঘোষণা দেন তিনি। খবর বিবিসি, এএফপি, এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া ও ডনের।
গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভয়াবহ আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় ভারতের কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনীর (সিআরপিএফ) অন্তত ৪০ সদস্য নিহত হয়। এরপর থেকেই ভারত পাকিস্তানের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

পুলওয়ামায় হামলার জবাবে মঙ্গলবার ভোর সাড়ে তিনটার দিকে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে হামলা চালায় ভারতের বিমানবাহিনী। এ নিয়ে সীমান্তে উভয় পক্ষের মধ্যে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ও রাতে গোলাগুলি হয়েছে। উভয় পক্ষের ৬ জন নিহত হয়।

বুধবার সকালে পাকিস্তান বিমান বাহিনী নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করে ভারতে হামলা চালায়। দুদিন ধরে চলে দুই দেশের বিমান বাহিনীর হামলা ও পাল্টা হামলা। এরপর আকাশ পথে উত্তেজনা কিছুটা কমলেও স্থল সীমান্তে এখন উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বিবিসি জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ভোরেও কাশ্মীরের পুঞ্জ জেলার কৃষ্ণাঘাঁটি অঞ্চলে গুলিবিনিময় করেছে ভারত ও পাকিস্তানি সেনারা। ভোর ছয়টার দিকে দুইপক্ষই গোলাগুলি শুরু করে। এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে পরস্পরের দিকে গুলি ছুড়তে থাকে দু’পক্ষ।

এরপর তা থেমে যায়। ভারতীয় সেনা কর্মকর্তারা বলেছেন, কৃষ্ণাঘাঁটির ওই গুলিবিনিময়ে কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। পাকিস্তানের দাবি, গোলাগুলিতে ৪ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এর আগের সন্ধ্যা ও রাতে দফায় দফায় সীমান্তে পাল্টাপাল্টি গোলাবর্ষণ চলেছে। ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের অন্তত ৫০ স্থানে মর্টার হামলা চালায় পাক সেনারা।

রয়টার্স জানায়, উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে যে কোনো মুহূর্তে হামলার শঙ্কায় পাক সীমান্তে ১৪ হাজার বাঙ্কার নির্মাণ করছে ভারত। জম্মু-কাশ্মীরের সীমান্তবর্তী এলাকায় এসব বাঙ্কার নির্মাণ করা হচ্ছে। যুদ্ধাবস্থায় স্থানীয় বাসিন্দাদের স্থানান্তর না করে এখানে নিরাপদে রাখতেই এ ব্যবস্থা।

গত সপ্তাহেই বাঙ্কার নির্মাণের সিদ্ধান্তের কথা জানায় নরেন্দ্র মোদির সরকার। একই আশঙ্কা থেকে সীমান্তে বাঙ্কার বানাচ্ছে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরও। সরিয়ে নেয়া হচ্ছে বাসিন্দাদের।

একেবারেই সীমান্তে কাছে যাদের বসবাস, তাদের অনেকেই যুদ্ধের আশঙ্কায় ভিটেবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছেন। যারা সাহস করে আছেন, তাদের বেশিরভাগই বাঙ্কার খুঁড়ছে নিজ উদ্যোগেই। কেউ আবার পুরনো বাঙ্কার সংস্কার করছেন।
এএফপি জানায়, পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরের কোটলি ও ঝিলাম ভেলি জেলা থেকে বুধবার সকাল থেকে এ পর্যন্ত ২ হাজারের বেশি মানুষ পালিয়ে নিরাপদে আশ্রয় নিয়েছে। অন্যান্য জেলা থেকেও দলে দলে পালাচ্ছে লোকজন। স্কুল-কলেজ বন্ধ রেখেছে কর্তৃপক্ষ।

কোটলির সরকারি কর্মকর্তা উমর আজম বলেন, ‘ঘর-বাড়ি ছেড়ে বহু মানুষ নিরাপদ আশ্রয় চলে যাচ্ছে। সীমান্তে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলে ইন্টারনেট সংযোগও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।’

চাকোঠির সীমান্তবর্তী গ্রাম থেকে মুজাফফারাবাদ পালিয়েছেন ৪৬ বছর বয়সী মুদি দোকানি হাবিবুল্লাহ আওয়াহ। বুধবার সকালে মুহুর্মুহু মর্টার হামলা শুরু হওয়ার পরই ৮ সদস্যের পরিবার নিয়ে বাড়ি ছাড়েন তিনি।

বলেন, ‘মর্টার শেলের কারণে বাড়িতে নিরাপদে থাকা কঠিন। একটা শেল পড়লেই বাড়ির সব শেষ হয়ে যাবে।’ আজাদ কাশ্মীর থেকে পালিয়ে বেশিরভাগই মুজাফফারাবাদে আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। যাদের থাকার তেমন কোনো জায়গা নেই স্থানীয় প্রশাসনের তৈরি হাতিয়ান বালা ক্যাম্পে আশ্রয় নিচ্ছেন।
ভারতের পাঞ্জাব সরকার জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় এক বৈঠক করেছে। বৈঠক শেষে এক নির্দেশিকায় পাকিস্তান সীমান্ত সংলগ্ন অমৃতসর, তরণতারণ, ফিরোজপুর, পাঠানকোটের জেলাশাসকদের সেনাবাহিনীর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলতে বলা হয়েছে। রাজ্য বিদ্যুৎ বিভাগকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে যে, রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত টেলিযোগাযোগ কোম্পানি, মোবাইল সংস্থা, থানা, হাসপাতালগুলোতে ২৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। ভারত-শাসিত কাশ্মীরেও উত্তপ্ত পরিস্থিতির নিরিখে হাসপাতালগুলোর ছাদে লাল রঙের ক্রস চিহ্ন আঁকা হচ্ছে, যাতে বিমান থেকে বোঝা যায় যে, সেগুলো চিকিৎসা কেন্দ্র।

পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী, স্থ’লবাহিনী, বিমান বাহিনী ও নৌবাহিনী সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। তবে পাকিস্তানের নিজেদের আকাশসীমা বন্ধ করে দেয়ায় বিপাকে পড়েছে বিমান যাত্রীরা। ফ্লাইট বাতিল করা এয়ারলাইন্সগুলোর মধ্যে থাই এয়ারওয়েজ, আমিরাটস ও কাতার এয়ারওয়েজ অন্যতম। পাশাপাশি ইত্তিহাদ, ফ্লাইদুবাই, গাল্ফ এয়ার, শ্রীলঙ্কান এয়ারলাইন্স ও এয়ার কানাডাও ফ্লাইট বাতিল করতে বাধ্য হয়েছে। পাকিস্তানের আকাশসীমা বন্ধে তাদের প্রায় ৩০টি ফ্লাইটের সূচি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে থাই এয়ারওয়েজ।

এতে বৃহস্পতিবার ব্যাংককে এয়ারওয়েজটির প্রায় পাঁচ হাজার যাত্রী আটকা পড়ে। ইউরোপের ফ্লাইটগুলোর চার হাজার যাত্রী ও পাকিস্তানগামী ৭০০ থেকে ৮০০ যাত্রী আটকা পড়েছেন বলে জানিয়েছেন থাই এয়ারওয়েজের এক মুখপাত্র। বৃহস্পতিবার দিন শেষে মধ্যরাত থেকে পাকিস্তানের আকাশসীমা খুলে দেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন দেশটির অ্যাভিয়েশন কর্মকর্তারা।

অপরদিকে, ভারতকে কোনোভাবেই দমানো যাবে না বলে শত্রু রাষ্ট্রগুলোকে হুশিয়ার করেছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, গোটা জাতি জওয়ানদের পাশে আছে এবং ভারতবাসী তাদের সঙ্গে এক হয়ে লড়াই চালাবে ও বিজয়ী হবে।

শত্রুদের বিরুদ্ধে মজবুত প্রাচীর তুলে দাঁড়াবে ভারত।’ বৃহস্পতিবার ‘মেরা বুথ, সবসে মজবুত’ (আমাদের ঘাঁটি সবচেয়ে মজবুত) নামক নির্বাচনী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ভিডিও কনফারেন্সে ভাষণ দেন মোদি।

দলটির দাবিকৃত ‘বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিডিও কনফারেন্সে’ মোদি বলেন, ‘নিজেদের বাহিনীর সক্ষমতা নিয়ে আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে। আমাদের কোনো কর্মকাণ্ডই যেন বাহিনীর নৈতিকতাকে ক্ষতিগ্রস্ত না করতে পারে তা অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে।

আমাদের দিকে শত্রুদের আঙুল তোলার সুযোগ দেয়া যাবে না।’ এদিকে, নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে শান্তি আলোচনার ইঙ্গিত দিয়ে আটক ভারতীয় পাইলট অভি নন্দনকে শুক্রবার ফেরত দেয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন ইমরান খান।

বৃহস্পতিবার দেশটির পার্লামেন্টে যৌথ অধিবেশনে এ ঘোষণা দেন তিনি। ভারতকে আর উত্তেজনা না বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে ইমরান বলেন, এটাকে আর সামনে এগিয়ে নেবেন না, তাহলে পাকিস্তান প্রতিশোধ নিতে বাধ্য হবে।
তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতি যেন এর বাইরে যেতে না পারে সেজন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ভূমিকা রাখবে বলে আমি আশা করছি।’ পাক প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের শান্তির বার্তা অনুযায়ী, আমি ঘোষণা করছি যে- উন্মুক্ত আলোচনার প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে শুক্রবার ভারতীয় বিমানবাহিনীর কর্মকর্তাকে মুক্তি দেবে পাকিস্তান। ইমরানের এ ঘোষণাকে পার্লামেন্টে স্বাগত জানান দেশটির সরকারি ও বিরোধীদলীয় সংসদ সদস্যরা।

এর আগে টেলিভিশন চ্যানেল জিও নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন, ‘আমরা ভারতীয় পাইলটকে ফেরত দিতে প্রস্তুত, যদি তা উত্তেজনা প্রশমনের দিকে নিয়ে যায়।’

এদিকে অভি নন্দনকে ফেরত পেতে ভারত কোনো ধরনের সমঝোতায় রাজি নয় বলে বেশ কয়েকটি সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে এনডিটিভি। এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘ভারত কোনো ধরনের কূটনীতিক সুবিধা চাইবে না।

আমরা তাকে শিগগিরই ফেরত চাই। পাকিস্তান হয়তো ভাবছে তারা আলোচনার জন্য একটি কার্ড পেল, আসলে তারা তা পায়নি।’ পাইলটকে ফিরিয়ে আনতে ভারত সম্ভাব্য সবকিছু করবে বলেও ভারতীয় সূত্রগুলো আশ্বস্ত করেছে।
দিল্লিগামী সমঝোতা এক্সপ্রেস বন্ধ করে দিল পাকিস্তান : এদিকে, দু’দেশের মধ্যে চলাচলকারী সমঝোতা এক্সপ্রেসের পরিসেবা বন্ধ করে দিয়েছে পাকিস্তান। সাধারণভাবে লাহোর থেকে ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যে আটারি এলাকা পর্যন্ত চলাচল করে এ দূরপাল্লার ট্রেন।

নিয়ম অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা নাগাদ ট্রেনটি পাকিস্তান থেকে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। পাকিস্তান রেলওয়ের অ্যাডিশনাল জেনারেল ম্যানেজার জানিয়েছেন, উদ্ভূত নিরাপত্তা পরিস্থিতিতে যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সেজন্য ট্রেনের পরিসেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আটক পাইলটের মুক্তি চান ফাতিমা ভুট্টো : পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টোর নাতনি লেখিকা ফাতিমা ভুট্টো আটক ভারতীয় পাইলটের মুক্তি চেয়েছেন। ভারতীয় পাইলটকে মুক্তি দিতে বুধবার পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

পিটিআই জানায়, নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত এক কলামে ৩৬ বছর বয়সী ফাতিমা লিখেছেন, ‘শান্তি, মানবতা ও সম্মানের নিদর্শন হিসেবে আটক ভারতীয় পাইলটকে মুক্তি দিতে আমাদের দেশের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি আমি ও আরও অনেক তরুণ পাকিস্তানি।’

জুলফিকার আলী ভুট্টোর ছেলে মুর্তাজা ভুট্টোর কন্যা ফাতিমা। পাকিস্তানের আরেক সাবেক প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত বেনজির ভুট্টো তার ফুপু। ফাতিমা বলেন, ‘যুদ্ধে যুদ্ধেই একটি জীবনকাল পার করেছি আমরা। পাকিস্তানি সৈন্যদের মৃত্যু দেখতে চাই না। ভারতীয় সৈন্যদেরও মৃত্যু দেখতে চাই না।

এতিমদের একটি উপমহাদেশ চাই না আমরা। ফাতিমা ভুট্টো আরও লেখেন, “আমাদের প্রজন্মের পাকিস্তানিরা কথা বলার অধিকারের জন্য লড়াই করেছে। তাই সবচেয়ে ন্যায়নিষ্ঠ বিষয় ‘শান্তির’ জন্য আওয়াজ তুলতে আমরা ভীত নই।”

উত্তেজনা নিরসনের ইঙ্গিত ট্রাম্পের : পাকিস্তান-ভারতের মধ্যে নতুন করে শুরু হওয়া উত্তেজনা নিরসনের ইঙ্গিত দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে এমন ইঙ্গিত দেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, ‘যুক্তিসঙ্গত কারণেই ভারত ও পাকিস্তানের কাছ থেকে আমাদের কাছে ইতিবাচক খবর আসছে। তাদের নিবৃত্ত করার প্রচেষ্টায় আমরা যুক্ত ছিলাম। আমাদের কাছে ভালো খবর আছে। আশা করছি বিদ্যমান পরিস্থিতির অবসান ঘটবে।’

ভারত-পাকিস্তান সংলাপ চায় জাপান : কাশ্মীর সীমান্তে দুই প্রতিবেশী দেশের যুদ্ধাবস্থা থামাতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছে জাপান। বৃহস্পতিবার দুপুরে এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানান জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনো। তিনি বলেন, ভারত ও পাকিস্তান বিমানবাহিনীর পাল্টাপাল্টি আক্রমণে কাশ্মীরে যে উত্তেজনা চলছে, তা প্রশমনে আমরা চাই ভারত ও পাকিস্তান আলোচনায় বসুক।

মোদি-ইমরানকে আলোচনায় বসার আহ্বান মালালার : ভারত ও পাকিস্তানের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার শঙ্কার মধ্যে এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে দেশ দুটির নেতাদের সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়েছেন মালালা ইউসুফজাই। শান্তিতে নোবেলজয়ী এ পাকিস্তানি বুধবার টুইটারে ‘সে নো টু ওয়ার’ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে এক পোস্টে এ আহ্বান জানান।

লন্ডন প্রবাসী মালালা লিখেছেন- একজন নোবেল লরিয়েট, জাতিসংঘের শান্তি দূত, পাকিস্তানের নাগরিক এবং একজন শিক্ষার্থী হিসেবে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধিতে তিনি শঙ্কিত।

সীমান্তের উভয় পারের বাসিন্দাদের নিয়েই উদ্বেগ রয়েছে তার। মালালা বলেন, ‘কঠিন এ পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রতি সত্যিকার নেতৃত্ব প্রদর্শনের আহ্বান জানাচ্ছি। আপনারা বসুন, হাত মেলান এবং সংলাপের মাধ্যমে বর্তমান সংঘাত ও দীর্ঘদিনের কাশ্মীর সংকটের সমাধান করুন।সূত্র: যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত