প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আগামী আসরে ডিপিএল টি-টোয়েন্টি ম্যাচ আরো বাড়বে

নিজস্ব প্রতিবেদক: ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রথমবারের মতো শুরু হয়েছে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের নতুন ফরমেট টি-টোয়েন্টির আসর। শুধু দেশি ক্রিকেটারদের নিয়ে আয়োজিত এই টুর্নামেন্টও উত্তেজনা ছড়িয়েছে প্রথম দিন থেকেই। আগামী আসরে ম্যাচের সংখ্যা আরো বাড়িয়ে আয়োজন করতে চায় আয়োজক কমিটি।

এরই মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে ডিপিএল টি-টোয়েন্টির প্রথম আসর। এখানে স্থানীয় ক্রিকেটাররা সুযোগ পাচ্ছেন নিজেদের প্রতিভা দেখানোর। সুপার ওভার, অভিষিক্ত মানিক খানের হ্যাটট্রিক, জাতীয় দলের বাইরে থাকা শুভাগত-নাফীসদের ঝড়ো ব্যাটিং উত্তেজনা বাড়িয়েছে টুর্নামেন্টের। তবে এবার গ্রুপ পর্বে প্রতিটি দল মাত্র দুইটি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে। টুর্নামেন্টে আরো প্রতিদ্ধনদ্বিতা বাড়াতে পরের আসরে প্রতিটি দলকে অন্তত ৫ থেকে ৬টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ করে দিতে চায় বলে জানিয়েছেন সিসিডিএম চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ। তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে যে সাড়াটা আমরা দেখছি, যেভাবে প্লেয়াররা খুব এনথুজিয়াস্টিক ফিল করেছে, নেক্সটে আমরা দুইগ্রুপে কীভাবে করা যায় তা দেখতে হবে। তাহলে টি২০ নিয়ে প্লেয়ারদের অভিজ্ঞতা আরো বাড়বে।’

ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক পরিশোধ নিয়ে প্রতিবারই অভিযোগ ওঠে ক্লাবগুলোর বিরুদ্ধে। এই ব্যাপারেও কথা বলেন সিসিডিএম চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ, ‘প্রিমিয়ার লিগে ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক নিয়ে ক্লাবগুলোর টাল-বাহানা একটা রীতিই হয়ে গেছে। অনেক ক্লাবই প্লেয়ার ড্রাফট থেকে কম ক্রিকেটার দলে নিয়েছে। পরে তালিকা থেকে ক্রিকেটারদের নিলেও, তাদের দেয়া হচ্ছে না বিসিবি নির্ধারিত পারিশ্রমিক। উঠেছে এমন অভিযোগ। তবে সিসিডিএম প্রধান জানালেন, ক্লাবগুলোকে দিতে হবে বিসিবি নির্ধারিত পারিশ্রমিক।’

ড্রাফটের পরে ক্লাবগুলো যে ক্রিকেটারকে দলে নিয়েছে, তাদের আংশিক নয় পূর্ণ পারিশ্রমিক পরিশোধ করতে হবে বলেও জানান সিসিডিএম প্রধান। তিনি বলেন, ‘ড্রাফটের বাইরে নিতে চাইলে সেই প্লেয়ার যে ক্যাটাগরিতে আছে সে ক্যাটাগরিতেই নিতে হবে। এছাড়া আগামী আসরে ম্যাচের সংখ্যা বাড়লে, ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি বাড়ানোর কথাও ভাবছে সিসিডিএম।’ -বিডিক্রিকটাইম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত