প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চলতি মৌসুমে চায়ের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে

স্বপন দেব: চলতি মৌসুমে মৌলভীবাজারসহ সারাদেশে চায়ের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। বিগত মৌসুমের চেয়ে এবার ৩২ লাখ কেজি চা বেশি উৎপাদিত হয়েছে। প্রতিকূলতা কাটিয়ে এ অর্জন সম্ভব হয়েছে বলে জানিয়েছেন চা উৎপাদন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ চা বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে দেশের ১৬৬ টি বাগানে চা উৎপাদন হয়েছে ৮ কোটি ২১ লাখ কেজি। আগের বছর ২০১৭ সালে উৎপাদন হয়েছিল ৭ কোটি ৮৯ লাখ কেজি। ২০১৬ সালের মোট উৎপাদন ছিল ৮ কোটি ৫০ লাখ ৫০ হাজার কেজি। তখন বছরজুড়ে চা চাষের অনুকুল প্রাকৃতিক পরিবেশ বজায় ছিল। গত তিন বছর চায়ের গড় উৎপাদন ছিল ৮ কোটি ২০ লাখ কেজি।

মৌসুমের শুরুতে (ফেব্রুয়ারি-মার্চ ২০১৮) অনাবৃষ্টির কারণে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে বেশ শঙ্কিত ছিলেন বাগান মালিকরা। উৎপাদন মৌসুমের শুরুতে বৃষ্টি না হওয়ায় চা পাতা চয়ন সময়মতো শুরু করা যায়নি। ২০১৮ সালে দেশে চা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৭ কোটি ২৩ লাখ ৯০ হাজার কেজি। গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে সব মিলিয়ে ছয় কোটি ৬৭ লাখ ৩১ হাজার কেজি চা উৎপাদন হয়েছিল। তবে সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে চা চাষের উপযোগী সুষম বৃষ্টি হওয়ায় বছর শেষে চা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যায়।

লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৮৯ লাখ কেজি চা বেশি উৎপাদন হয়। শ্রীমঙ্গলে চা বোর্ডের প্রকল্প উন্নয়ন ইউনিট (পিডিইউ) সূত্র জানায়, ২০০৯ সালে চা শিল্পের উন্নয়নে নেয়া কৌশলগত পরিকল্পনার অংশ হিসেবে চা চাষের আওতা বাড়ানো হয়েছিল।

চা বোর্ডের প্রকল্প উন্নয়ন ইউনিটের (পিডিইউ) পরিচালক ড. এ কে এম রফিকুল হক এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘চা গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিটিআরআই) বিভিন্ন উপকেন্দ্রে ক্ষুদ্র পর্যায়ে চা চাষিদের জন্য ক্ষুদ্রায়তন চা আবাদ, প্লাকিং, রোগবালাই ও পোকামাকড় দমন বিষয়ে এবং দেশের টি প্লান্টারদের দক্ষতা উন্নয়নে নিয়মিত প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। প্রথাগত পন্থা থেকে বেরিয়ে এসে আধুনিক ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে বিভিন্ন চা বাগানে। ফলে প্রতিকুলতা কাটিয়ে উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হচ্ছে।

বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. মোহাম্মদ আলী বলেন, চায়ের আবাদ বাড়াতে বিটিআরআই থেকে সবরকম সহযোগীতা ও পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, চা শিল্পে অত্যাধুনিক ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার, অনুকুল আবহাওয়া এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনা ও শ্রমিকদের আন্তরিকতায় এখন চায়ের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াতে সক্ষম হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত