প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিলেটে হাকালুকি পাড়ের এবারে মিষ্টি কুমড়ার বাম্পার ফলন

আশরাফ চৌধুরী রাজু: সিলেটের হাকালুকি পাড়ে এবার মিষ্টি কুমড়ার বাম্পার ফলনের আশা করছে স্থানীয় কৃষকরা। হাকালুকি পাড়ের তিন উপজেলার কৃষি জমিতে এবারও মিষ্টি কুমড়া চাষাবাদ করা হয়েছে। প্রতিবছর ওই এলাকা থেকে প্রায় কোটি টাকার মিষ্টি কুমড়া উৎপাদন করা হয়।

একসময় সিলেটের হাকালুকি পাড়ের ওইসব জমি অনাবাদি পড়ে থাকত। অনেক বছর ধরে সেই অনাবাদি জমিতে চাষ শুরু হয় মিষ্টি কুমড়ার। কম খরচ ও কম পরিচর্যাতে লাভজনক হওয়াই, দেখাদেখি বাড়েছে হাওরপাড়ে মিষ্টি কুমড়ার চাষ। এবারও হাকালুকি হাওর পাড়ের তিন উপজেলার প্রায় সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ করা হয়েছে। ফলন ও ভালো হওয়াতে কৃষকরা খুশি। ফলন ঘরে তোলা ও বিক্রি শুরু হবে চৈত্র-বৈশাখ মাসে।

চাষে খরচ কম হয় ও বাজারদর ভালো পাওয়া যায় বলে মিষ্টি কুমড়া উৎপাদনে আগ্রহী হয়েছেন কৃষক। কৃষকরা বলছেন বাজার মূল্য বেশি থাকায় কম খরচে মিষ্টি কুমড়া চাষ করে লাভবান হওয়া যায়। এক বিঘা জমিতে মাত্র দু’হাজার টাকা খরচ করলে ত্রিশ থেকে চল্লিশ হাজার টাকা আয় হয়।

সিলেটে মিষ্টি কুমড়াকে মাটিকদু, উষ্টাকদু ও মিষ্টিলাউ বলা হয়। এক সময় সিলেটে দরিদ্র মানুষের সবজি ছিল মিষ্টি কুমড়া। অনেকটা অবজ্ঞা করে উঁচু শ্রেণীর মানুষ মিষ্টি কুমড়া খেতেন না। মিষ্টি কুমড়ার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানাজানি হলে কদর বাড়ল মিষ্টি কুমড়ার। বর্তমানে এই কুমড়া জনপ্রিয় খাবার।

সিলেটের হাকালুকি পাড়ে কুলাউড়া, গোলাপগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার জমিতে বেশি মিষ্টি কুমড়া চাষ হয়। সেখানে উৎপাদিত কুমড়া জুস প্রস্তুতকারক বিভিন্ন কোম্পানি কিনে নিয়ে যায়। বাজারেও চড়া দামে বিক্রি হয় উৎপাদিত মিষ্টি কুমড়া। উৎপাদনও হয় আশানুরূপ।

সিলেট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. ইলিয়াস জানান, সিলেটে পতিত জমিতে কুমড়া চাষ করে কৃষকরা দিন দিন লাভবান হচ্ছেন। মিষ্টি কুমড়ার বীজ শুধু ঠিক মতো রোপণ করে দিলেই হয়, ফলন পেতে বেশি পরিচর্যার প্রয়োজন পড়েনা। কৃষকদের মিষ্টি কুমড়া চাষে সব ধরণের সহায়তা করে কৃষি বিভাগ। সিলেটের অন্যান্য এলাকার পতিত জমিতে মিষ্টি কুমড়ার চাষ সম্প্রসারণ করা গেলে কৃষি উৎপাদনে এখানে নতুন সাফল্য আসবে বলে আশা করছে কৃষি বিভাগ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত