প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জায়গা পেলে সরিয়ে নিতে চান চট্টগ্রামের কেমিক্যাল গোডাউন, বললেন ব্যবসায়ীরা

নুর নাহার : দেশের অন্যতম বৃহৎ পাইকারী বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ আসাদগঞ্জে বেশির ভাগ আবাসিক ভবনের নিচে কেমিক্যালের গুদাম। রাজধানীর চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর আতংকে আছেন এই এলাকার বাসিন্দারা। ঘনবসতিপূর্ণ এ জায়গা থেকে কেমিক্যালের গুদাম সরিয়ে নেয়ার দাবি তাদের। তবে, সরকার জায়গা দিলে সরে যেতে রাজি হয়েছেন ব্যবসায়ীরা। যমুনা টিভি।

আসাদগঞ্জে ৬তলা ভবনের নিচতলায় পুরোটাই কেমিক্যালের গোডাউন ও দোকান। নানা রকম দাহ্য পদার্থসহ সালফিউরিক এসিড, সাইটিক এসিড, স্পিরিট এর মতো কেমিক্যাল দিয়ে ভরপুর। মার্কেটের উপরের ৫তলা আবাসিক ভবন। এমন ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছে এসব পরিবার।

চট্টগ্রামে খাতুনগঞ্জ ও আসাদগঞ্জে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে বেশ কয়েকটি কেমিক্যাল মার্কেট। আগুন লাগলে যেকোনো সময় ঘটে যেতে পারে ভয়াবহ দুর্ঘটনা। চকবাজার ট্যাজেডির পর আতংক ছড়িয়ে পড়েছে এখানকার বাসিন্দাদের মধ্যেও।

ব্যবসায়ীরা বলেন, নিমতলী একটা ঘটনা ঘটছে, চকবাজারে ঘটছে, এখানে ঘটবে। কিন্তু এর কোনো সমাধান কিছু হবে না। এর একটি নীতিমালা করে কেমিক্যাল মার্কেটগওলো আলাদা একটা জায়গায় করা দরকার। আমাদের জন্য যদি কোনো মার্কেটের ব্যবস্থা করতো সরকার সেটা যে জায়গায় হোক আমরা যেতে বাধ্য। আবাসিক এলাকা আর কেমিক্যাল গুদাম একসাথে থাকতে পারে না।

ভবন মালিকের দাবি কয়েক দশক ধরে এভাবে চললেও সরকারি কোনো সংস্থা এখনো পর্যন্ত তাদের কোনো নির্দেশনা দেননি।

অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠা কেমিক্যালের গুদাম কিংবা দোকানপাঠ ঝুঁকিপূর্ন বলছেন এখানকার ব্যবসায়ীরাও। আলাদাকরে মার্কেটে জায়গা পেলে চলে যেতে চান তারা।

চট্টগ্রামের আসাদগঞ্জ খাতুনগঞ্জে প্রায় ৫ হাজার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ব্যাংক ও আবাসিক ভবন রয়েছে। দেশের অন্যতম বৃহৎ এ পাইকারি বাজারে প্রতিদিন লেনদেন হয় অন্তত ১২শ কোটি টাকা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত