প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

থাকি সদাই বিজ্ঞানের উপকরণে, ভেতরটা ভাবের কাছে ষোলোআনা বন্ধক

ইকবাল আনোয়ার

 

এই হলো মানুষ! আধ্যাতিক প্রাণী। বস্তুর হিসাব মেলাতো যদি, তবে কেন, নিজের লোলা অর্থব লোল পড়া নির্বোধ সন্তানকে রাজার ছেলের সাথে আরো কয়েকশো কোটি দিলেও বদল করে না সে। মারলো শরীরে, আঘাতে জর্জর, রক্ত ঝড়েছে প্রচুর, তার পর বিবাদী মুখে ক্ষমা চাইলেই মন ভালো, মন ভালো বলে ব্যাথা-বেদনা রক্ত ঝড়ানোর বদলা হয়ে হিসাব মিলে গেলো! মৃত্যুর পর কোথায় তারে কবর দেবে, আম গাছের নীচে শীতল ছায়ায়, অসিয়ত করে সে। এ কোন বিজ্ঞান? কোন বাস্তব? আমার সোনার ছেলেটা পুড়ে মরে গেছে। আহা! বাছা আমার। তোমাদের কাছে আমার এক শেষ দাবি, একান্ত অনুরোধ, আমার মরা ছেলের এক টুকরা মাংস এনে দাও, এক ফোটা হলেও, এক মুঠ ছাই, না হলে একটু কালি এনে দাও তার, আমি চুমু দেমু, শেষ বিদায়ের চুমু, আমি ধরুম, আমি গায়ে মাখুম, এতেই কলিজা ঠা-া হবে আমার। আর আমার কোনো কিছু চাইবার নেই। কোনোদিন চাইবোও না কিছু আর। এ হলো মানুষের বস্তুবাদেরে তুচ্ছ করে ভাবাগতো চাহিদা।

সুক্ষ্ম মস্তিষ্ক যতো, ভাবাবেগ ও আধ্যাতিক চাহিদা অন্নেষণ আকাক্সক্ষা চিন্তা হিসাব ততো। প্রভু হে, আমাদের আবেগের উচ্চ শিখরে তুমি সমাসীন, তার ওপরে আর উচ্চ নেই। আমাদের মেহেরবানী করে দয়া করো। তুমিই একমাত্র অভাবমুক্ত দাতা। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত