প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ তাদের নিরাপত্তাবলয় ভেঙে ফেলেছে বললেন বিমানের সাবেক এমডি নাসির

সালিম সামাদ : বাংলাদেশ বিমানের সাবেক এমডি ক্যাপ্টেন শেখ নাসির আহেমদ বলেছেন, বিমান হাইজ্যাক করার এই ঘটনা যেদিন ঘটে সেদিন প্রধান্ত্রীর চট্টগ্রাম গিয়েছেন। ঢাকা এয়ারপোর্ট হাইএলার্ট থাকা সত্তেও কীভাবে খেলনা পিস্তল নিয়ে ঢুকলো। সুতরাং ঢাকা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ তাদের নিরাপত্তা বলয় ভেঙ্গে ফেলেছে। এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, বিমানবন্দরে মাঝে মাঝে স্বর্ণ এবং মাদক ধরা পড়ে। যেহেতু বিমানবন্দর দিয়ে স্বর্ণ বেরিয়ে যাচ্ছে তার মানে আগে থেকেই নিরাপত্তার ঘাটতি ছিলো। কেবিনক্রু এবং পাইলটদের বিমানবন্দরে প্রবেশের সময় ব্যাগ, মোবাইলফোন, মাথার ক্যাপ পর্যন্ত ইলেকট্রিক ম্যাটেল ডিটেক্টর দ্বারা স্ক্যান করা হয়। আবার বিমানে ঢোকার সময় একইভাবে পাইলট এবং যাত্রীদেরও চেক করে ঢোকানো হয়। ভেতরের লাউঞ্জের খাবার কখনও পরীক্ষা করা হয় না। কিন্তু খাবার স্ক্যান করলে খাবারের মানের কোনো সমস্যা হয় না। তিনি জানান, দর্শনার্থীদের জন্য পর্যটন লাউঞ্জ আছে সেখানে তারা যেসব পানীয় বতোল আনে সেগুলোর কোনো পরীক্ষা করা হয় না, কিন্তু এটা একটা বড় ধরনের নিরাপত্তা ঝুঁকি। প্রশাসনের বড় কর্মকর্তা বিশেষ করে র‌্যাব, আর্মড পুলিশ ব্যাটেলিয়ান এবং ঢাকা মেট্রোপলিটর পুলিশের সিনিয়র অফিসাররা তাদের ব্যক্তিগত কাজে বিমানবন্দরের ভেতরে ঢোকার সময় কোনো ধরনের তল্লাশি করা হয় না। হরহামেশা বিমানবাহিনী, আর্মি এবং নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা প্রায়ই বিমানবন্দরে যায় এবং তাদের গাড়িচালক ভেতরে ঢোকে মালামাল নেয়ার জন্য যা নিরাপত্তার অনেক বড় ঝুঁকি। কিন্তু এই অফিসাররা যখন বিদেশে শান্তি মিশনে থাকেন তখন তারা গাড়ি চালককে ভেতরে নিতে পারেন না, তারা বিদেশে দেখেও দেশে এসে নিয়ম মানেন না। – সম্পাদনা : জুয়েল খান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ