প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গড়ে প্রতি মাসে একটি করে প্লাস্টিকের কারখানায় আগুন লাগছে পুরান ঢাকায়

ফাহিম বিজয় : এক বছরে পুরান ঢাকায় আগুনের ঘটনা ঘটেছে ৮৯টি। ফায়ার সার্ভিস বলছে, এর মধ্যে মাসে গড়ে একটি করে আগুন লেগেছে প্লাস্টিক কারখানায়। এলাকাবাসী বলছেন, বাড়ি মালিকদের অতি লোভই পুরান ঢাকাকে বোমার গুদামে পরিণত করে তুলেছে। এ অবস্থায়, রাসায়নিক না সরানো পর্যন্ত অভিযান চালানোর ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন। ডিবিসি নিউজ

২০ ফেব্রুয়ারি, চকবাজারের চুড়িহাট্টা মোড়ে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। মুহূর্তেই পুড়ে ছাই হয়ে যায় কর্মচঞ্চল কতগুলো প্রাণ। ভয়াবহতার সাক্ষী, পুড়ে কয়লা হয়ে যাওয়া যানবাহন, বিধ্বস্ত ভবন, আর স্বজন হারানো পরিবারে আহাজারি। চারদিন পার করে আবার স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে, চুড়িহাট্টার কর্মব্যস্ততা। তবে দুর্ঘটনার ভয়াবহতা দেখতে এখনও ঘটনাস্থলে ভিড় করছেন উৎসুক মানুষ। রাসায়নিক বা প্লাস্টিক কারখানার দুর্ঘটনায় আর কোন প্রাণ নয়-এমন প্রতিজ্ঞা পুরান ঢাকাবাসীর।

ফায়ার সার্ভিসের তথ্যমতে, গড়ে প্রতি মাসে একটি করে প্লাস্টিকের কারখানায় আগুন লাগছে পুরান ঢাকায়। এসব এলাকায় রাসায়নিক ও প্লাস্টিকের গুদাম থাকায় কারখানা বন্ধ থাকলেও, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করছে।

লালবাগ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন অফিসার রতন কুমার দেবনাথ জানান, জানুয়ারি ২০১৮ থেকে জানুয়ারি ২০১৯ সাল পর্যন্ত আমাদের একটা হিসাব আছে। বার্ষিক এই হিসাবে দেখা যাচ্ছে যে, মোট ৮৯টা আগুন লেগেছে। এর মধ্যে প্লাস্টিক কারখানাতেই আগুন লেগেছে ১৩টি। আর সবগুলোই পুরান ঢাকাতেই। চকবাজার, ইসলামবাগ এই এলাকার মধ্যেই।

আগুন লাগার কারণ হিসেবে স্থানীয়রা জানান, আমাদেরও সচেতনতার অভাব আছে। দেখা যায়, চোখের আড়ালে যে কোনো জায়গাতেই গ্যাস সিলিন্ডার রেখে দেয়া হয়। আবাসিক ভবন কেমিক্যালের গুদাম হিসেবে ব্যবহার করা প্রসঙ্গে তারা বলেন, ভবনের মালিকরা চিন্তা করে, সরকার যদি দেখে বিভিন্ন গোডাউন হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে তাহলে এগুলোর ওপর ভ্যাট বসবে। অথচ সরকার আগেই বলেছে, কেমিক্যাল সরানোর জন্য জায়গা দেয়া হয়েছে তোমরা এগুলো সরিয়ে ফেলো। অথচ তারা সরায়নি।

অন্যদিকে, মোটা অংকের অগ্রিম পাওয়ায় আবাসিক ভবনে কারখানা ভাড়া দিচ্ছেন স্বীকার করে বাড়ির মালিকরা বলছেন, কেমিক্যাল, কসমেটিক্স অথবা জুতা ব্যবসায়ীদের কাছে আমরা ভাড়া দেই। কারণ আমরা লোক পাই না। এরা আমাদের ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকা অগ্রিম ভাড়া দেয়। এই টাকা দিয়ে ভবনের উন্নয়ন কাজও করা হয়।

আবাসিক ভবনে কারখানা থাকায় সেখানে কোন একটি ফ্লোরে আগুন লাগলে ভবনের বাসিন্দাদের উদ্ধারে বেগ পেতে হয় ফায়ার সার্ভিসকে। আর তাই নিমতলী ও চকবাজার ট্রাজেডির পুরনাবৃত্তি ঠেকাতে, পুরান ঢাকাকে রাসায়নিক কারখানামুক্ত দেখতে চাইছেন, এলাকাবাসী। সম্পাদনা : রেজাউল আহসান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত