প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পেন্সের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে কলোম্বিয়ায় গুয়াইদো, একশ’রও বেশি সেনাসদস্যের মাদুরোর পক্ষত্যাগ

সান্দ্রা নন্দিনী : মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে কলোম্বিয়ার বোগোতায় পৌঁছেছেন ভেনেজুয়েলার স্বঘোষিত প্রেসিডেন্ট জুয়ান গুয়াইদো। সোমবার একটি গঠনমূলক পদক্ষেপ ঘোষণা দিতে বোগোতায় আসবেন পেন্স। বিবিসি, আল জাজিরা, এএফপি, সিএনএন

শনিবার কলোম্বিয়ার সীমান্তে মার্কিন ত্রাণসামগ্রী সরবরাহের জন্য সমবেত হওয়ার পর ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো-সমর্থিত সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে গুয়াইদোর ৫ সমর্থক নিহত হয় বলে ন্যাশনাল অ্যাসেমব্লি রিপ্রেজেন্টেটিভ ও গুয়াইদো সমর্থক আদ্রিয়ানা পিচার্দো সিএনএন’কে নিশ্চিত করেছেন।

কলোম্বিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, শনিবারের সংঘর্ষে ২৮৫ জন আহত হয়েছে। এরমধ্যে ৩৭ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে, কলোম্বিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে মাদুরো সরকার। এছাড়া, সরকারের পক্ষ থেকে কেবল রাবার বুলেট ও টিয়ারগ্যাস ছোঁড়ার কথা জানানো হয়।

এদিকে, রোববার জাতিসংঘের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কলোম্বিয়া সীমান্তে অপ্রত্যাশিত সংঘর্ষ হয়েছে। গুয়াইদো সমর্থকদের লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়া হয়েছে। তাদেরকে হত্যা করা হয়েছে। গুরুতর আহত হওয়া ব্যক্তিরা কখনও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন না। কেউ কেউ তাদের চোখ হারিয়েছেন। বিষয়টি একটি দেশের সরকারের জন্য অত্যন্ত নিন্দনীয় অপরাধ। মাদুরো সরকারের উচিৎ তাদের বাহিনীকে অস্ত্রহীন সাধারণ মানুষের ওপর নিপীড়ন চালানো বন্ধ করা।

রোববার টুইটারে মাদুরো জানান, ‘ভেনেজুয়েলার জনগণ আজ রাস্তায় নেমে এসেছে। তারা দেশের প্রতিটি কোণায় ছড়িয়ে পড়েছে। আমি সকল ভেনেজুয়েলাবাসীকে স্বাগত জানাই তারা যেন তাদের সতর্কতা না কমিয়ে দেন এবং ভেনেজুয়েলার শান্তি বজায় রাখেন। বিদ্রোহী রাষ্ট্র চিরজীবী হোক!’

আবার, ব্রাজিল সীমান্তেও শনিবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রোববার ব্রাজিলের সাথে ভেনেজুলোর সীমান্তরাজ্য রোরাইমার গভর্নর সেখানে মেডিকেল ইমার্জেন্সি জারি করেছেন। সংঘর্ষে গুরুতর আহতদের জন্য এ জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। রোরাইমার হাসপাতালগুলোতে অন্তত ২০ জন ভেনেজুয়েলার নাগরিকের চিকিৎসা চলছে বলে নিশ্চিত করেছে রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এদিকে, শনিবারের সংঘর্ষের সময়ই একশ’রও বেশি সেনাসদস্য মাদুরোর পক্ষত্যাগ করেছেন বলে জানা গেছে। বিবিসি’র ওরলা গ্যুরিনের সঙ্গে একটি বিশেষ সাক্ষাৎকারে ২৩বছর বয়সী এক পক্ষত্যাগী সেনাসদস্য জানান, পক্ষত্যাগ করায় মাদুরো সরকার তার পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে পারে। তবে তারমতে, জীবনের শ্রেষ্ঠতম সিদ্ধান্তটি শনিবারই নিয়েছেন তিনি। এদিকে, রোববার এএফপি’কে ব্রাজিল কর্তৃপক্ষ জানায়, ভেনেজুয়েলার দুই পক্ষত্যাগী সেনাসদস্য তাদের কাছে আশ্রয়প্রার্থনা করেছেন।

অন্যদিকে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও সিএনএন’কে জানান, ‘শনিবারের হামলার পর থেকেই মাদুরোর পতনের দিন ঘনিয়ে এসেছে। যদিও ঠিক কবে এটি ঘটবে তা নিশ্চিত করে বলা কঠিন। তবে আমি নিশ্চিত যে ভেনেজুয়েলার জনগণ মাদুরোর পতন নিশ্চিত করবেই।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত