প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নেত্রকোনায় ব্যাপক সাড়া ফেলেছে ফল, ফুল ও পাতার নির্যাস থেকে তৈরি প্রাকৃতিক রং

নুর নাহার : ফল ফুল ও পাতার নির্যাস থেকে তৈরি হচ্ছে প্রাকৃতিক রং। সেই রং ব্যবহার করা হচ্ছে পোশাক তৈরির কাজে। এমন রং তৈরি করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে নেত্রকোনা শহরের এক দাম্পতি। শুধু তারাই নয় পাশাপাশি স্বাবলম্বী হয়েছেন ৫০ এর বেশি পরিবার। চ্যানেল ২৪।

অতনু পত্রনবীশ ছোটন ৪৮ বছর বয়েছে অসুস্থতার কারণে শারীরিকভাবে অক্ষম হয়ে পড়েন। এক সময় চাচা বাদল চক্রবর্তীর অনুপ্রেরণায় তার স্ত্রী শিউলিকে সাথে নিয়ে ফল, ফুল আর পাতার নির্যাস থেকে রং তৈরির কাজ শুরু করেন তিনি। মনোবল আর আত্মবিশ্বাসের কারনেই এই কঠিন পথ পাড়ি দেন তিনি।

অতনু পত্রনবীশ ছোটন বলেন, ডিজিম্যানরা যেনো সমাজের উচ্ছিষ্ট কেউ না। যারা এমন উচ্ছিষ্টভাবে, নিগৃহীত হয় না। তারা যেনো আমার কাছে এসে কাজ শেখে এবং করতে পারে। শুধু এই দম্পতিই নয়, এদের কাছে কাজ শিখে আরও ৬০ জন নারী স্বাবলম্বী হয়েছেন। তাদের তৈরি বিভিন্ন শাড়ি, থ্রিপিয, বেডসিট, পাঞ্জাবি ও নকশীকাঁথা দেশের নানা প্রান্তে বিক্রি করে নিজেদের স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে এনেছেন তারা।

অতনুর স্ত্রী শিউলি জানান, বিভিন্ন গ্রাম থেকে এসে এরা কাজ করে। এ কাজ করে আর্থিক সহায়তা পাচ্ছে বলেই তারা এ কাজটিতে আগ্রহ দেখাচ্ছে।

স্থানীয়রা বলেন, ফুল ফল ও পাতা থেকে যে নির্যাস বের করা হয় তা থেকেই তৈরি করা হয় প্রাকৃতিক রং। এই কাজ করে আমরা এখন আর্থিকভাবে স্বচ্ছল।

ক্রেতারা বলেন, বাজার থেকে আমরা যে সব কাপড় কিনি তা থেকে প্রচুর রং ওঠে। এবং এখান থেকে যে কাপড় কিনি কোনো রং ওঠে না। এটাই আমাদের বেশি গর্বের বিষয়।

নেত্রকোনার বিসিক, শিল্প সহায়ক কেন্দ্রে উপ-ব্যবস্থাপক আকরাম হোসেন বলেন, প্রাকৃতিক নির্যাস থেকে রং তৈরি করে যদি গার্মেন্টস সেক্টরে পোশাক তৈরি করে রং করে রপ্তানি করা যায় তাহলে এখান থেকে অনেক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা যাবে।

অতনু পত্রনবীশের এই প্রচেষ্ঠায় তার প্রতিবন্ধী হবার কষ্ট দূর হয়েছে। তার পাশাপাশি ৬০ জন নারীর কর্মসংস্থানের পথ তৈরি হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত