প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চার সপ্তাহ পর সোনাহাট স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি শুরু

জিয়ারুল হক : ভারতের রপ্তানিকারকদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে প্রায় ৪ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় অবস্থিত সোনাহাট স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি কার্যক্রম পুনরায় শুরু হয়েছে। রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুর দেড়টার দিকে ভারত থেকে ৫টি পাথরবাহী ট্রাক আসার মাধ্যমে এ কার্যক্রম শুরু হয়। সময় টিভি

সোনাহাট স্থলবন্দরের উল্টো দিকে ভারতীয় অংশকে বলা হয় গোলকগঞ্জ স্থলবন্দর। এটি আসাম রাজ্যের বুড়ি জেলার গোলকগঞ্জ থানায় অবস্থিত। এই বন্দরের রপ্তানিকারক সমিতির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে গত ২৮ জানুয়ারি হতে ভারত থেকে কয়লা ও পাথর আসা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে বন্ধ হয়ে যায় সোনাহাটস্থল বন্দরের কার্যক্রম।

চালুর পর থেকে এই বন্দর দিয়ে ভারত থেকে শুধু কয়লা ও পাথর আমদানি করা হচ্ছে। অন্য কোনো পণ্য আসছে না। এছাড়া কোনো পণ্য এখন পর্যন্ত এই বন্দর দিয়ে ভারতে রপ্তানি করা হয়নি।

এ অবস্থায় এলসি (লেটার অফ ক্রেডিট) করার পরও ভারত থেকে পাথর ও কয়লা না আসায় ক্ষতির মুখে পড়েন স্থানীয় আমদানিকারকরা। কার্যক্রম বন্ধ থাকায় বেকার হয়ে পড়েন বন্দরের প্রায় ২ হাজার শ্রমিক।

সোনাহাট স্থলবন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি সরকার রকীব আহমেদ জুয়েল জানান, গোলকগঞ্জ স্থলবন্দর রপ্তানিকারক সমিতির স্থানীয় ও বহিরাগত সদস্যদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্ব›দ্ব শুরু হলে এই অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়।

তিনি আরো জানান, এই পরিস্থিতিতে গত ১৩ফেব্রুয়ারির ভারতের গোলকগঞ্জ স্থল বন্দরে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সোনাহাট স্থলবন্দরের পক্ষ থেকে তিনি নিজে, গোলকগঞ্জ স্থলবন্দর রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিত রায় এবং বহিরাগত গ্রুপের পক্ষে গৌহাটি ও ধুবড়ি এলাকার রপ্তানিকারক আতাউর রহমান ও জাকির হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। এই বৈঠকে সমস্যার সমাধান হওয়ায় রপ্তানি পুনরায় শুরুর সিদ্ধান্ত হয়েছিলো। সে অনুযায়ী কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে সোনাহাট স্থলবন্দরের কাস্টমস বিভাগের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান শিকদার জানান, ২৭ দিন বন্ধ থাকার পর ভারত থেকে ৫টি ট্রাক পাথর নিয়ে আসার মাধ্যমে পুনরায় বন্দরের আমদানি কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

উল্লেখ্য, সোনাহাট স্থলবন্দর হচ্ছে দেশের ১৮তম এবং উত্তরাঞ্চলের ৬ষ্ঠতম। বিগত ২০১২ সালের ১৫ অক্টোবর থেকে সোনাহাট শুল্ক ষ্টেশনকে স্থলবন্দর করা হলেও ২০১৮ সালের ৯ জুন থেকে স্থলবন্দরের কার্যক্রম পূর্ণাঙ্গভাবে চালু হয়েছিলো।
সম্পাদনায় : রেজাউল আহ্সান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত