প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অনেক আশা নিয়ে মাঠে প্রথমবারের মতো মাঠে গড়াচ্ছে নারীদের জাতীয় লিগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি প্রথমবারের মতো মাঠে গড়াচ্ছে মেয়েদের জাতীয় ক্রিকেট লীগে (এনসিএল)। এ আসর থেকে ভবিষ্যতের প্রতিভাবান ক্রিকেটার খুঁজে বের করার স্বপ্ন দেখছেন নারী দলের ম্যানেজার এবং দেশের অভিজ্ঞ কোচ নাজমুল আবেদিন ফাহিম।

অভিজ্ঞ এ কোচ মনে করছেন মেয়েদের এনসিএল যথেষ্ট প্রতিযোগিতামূলক হবে। জাতীয় দল এবং ‘এ’ দল গঠনে এই টুর্নামেন্টটি যথেষ্ট সহায়ক ভূমিকা পালন করবে উল্লেখ করে ফাহিম বলেছেন,

‘২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে মেয়েদের জাতীয় ক্রিকেট লীগ। আশা করছি যে প্রতিযোগিতামূলক একটি টুর্নামেন্ট হবে। আমাদের বর্তমানে যারা খেলোয়াড় আছে তারা ভালো খেলবে। এর মধ্য থেকে কিছু কিছু নতুন খেলোয়াড় হয়তো উঠে আসবে। যাদেরকে নিয়ে আমরা ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতে পারি। আমরা যেহেতু জাতীয় দলের পাশাপাশি একটা ‘এ’ টিমের চিন্তা ভাবনা করছি। সেটার জন্য অলরেডি কিছু কাজ হয়েছে। আশা করছি ‘এ’ টিমে যোগ দেয়ার মতন কিছু কিছু খেলোয়াড়কে আমরা এখান থেকে খুঁজে পাব।’

এনসিএলের আগে ক্রিকেটারদের প্রস্তুতি প্রসঙ্গেও কথা বলেছেন বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার ফাহিম। তার মতামত এই ধরণের টুর্নামেন্টে ভালো খেলতে হলে এবং ক্রিকেটারদের কাছে প্রত্যাশিত পারফর্মেন্স পেতে হলে প্রস্তুতির বিকল্প নেই। ভালো ক্রিকেটার পেতে হলে প্রস্তুতিটিও হতে হবে যথেষ্ট উল্লেখ করে ফাহিম বলেছেন,

‘সাধারণত সবসময় যেটা হয়, বোর্ড যখন কোনো টুর্নামেন্টের আয়োজন করে, তখন দল গুলো মাঠে যায়, তখন থেকেই খেলা শুরু করে। ঠিক প্রস্তুতি বলতে যেটা বুঝায় সেটা কিন্তু আমরা দেখি না। কিন্তু আমরা যদি ভালো খেলতে চাই, একটা প্রতিযোগিতায় ভালো খেলতে চাই, ভালো খেলোয়াড়দের উঠিয়ে আনতে চাই, তাহলে প্রস্তুতি খুব জরুরী।’

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে প্রত্যেকটি দলকে ফাহিম পরামর্শ দিয়েছেন যথেষ্ট প্রস্তুতির ব্যবস্থা করার। তেমনটি করতে পারলে খেলোয়াড়দের শক্তিমত্তা এবং দুর্বলতা খুব সহজেই খুঁজে বের করা সম্ভব, মতামত অভিজ্ঞ এই কোচের। তার ভাষ্যমতে,

‘এই ব্যাপারে আমরা প্রত্যেকটা বিভাগকেই অনুরোধ করেছি , তারা যেন দল গঠন থেকে শুরু করে, খেলা শুরু হওয়ার আগে যেই প্রস্তুতির ব্যাপারটা, সবাই যেন একটা ক্যাম্প করে। একটা দল খেলার আগে যেই ধরনের প্রস্তুতি নেয়া উচিত, সেটা যেন সবাই নেয়। তাতে যেটা হবে কি, বিভিন্ন জায়গা থেকে খেলোয়াড় আসে, খেলোয়াড়রা কেমন সেটা তারা চিনবে।’

শুধু তাই নয়, প্রস্তুতির মাধ্যমে খেলার স্ট্র্যাটেজি এবং পরিকল্পনা সাজাতেও সুবিধা হয় কোচের, মতামত ফাহিমের। পাশাপাশি মাঠে গিয়ে নিজেদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলাটাও সম্ভবপর হয়। নারী ক্রিকেট দলের ম্যানেজার তাই বলেছেন,

‘গেইম স্ট্র্যাটেজি কি হওয়া উচিত, শক্তি-দুর্বলতা কোথায় এগুলো কোচের জন্য জানা দরকার। এই কারণে মাঠে গিয়েই অ্যাপ্লাই করতে পারে। না জানলে কিন্তু ভালো খেলা সম্ভব না। আমরা নিশ্চিত করতে চাইছি প্রিপারেশনটা যেন ভালো হয়। সেদিক থেকে চিন্তা করেই কিন্তু আমরা অনেক জাতীয় দলের ক্রিকেটারা ছিল, তাদেরকে আমরা ২-৩ দিনের ম্যাচ খেলিয়েছি। এমন যত বেশি খেলবে তত বেশি খেলাটা শিখতে পারবে, খেলাটা ধরতে পারবে। সেটা আমরা চেষ্টা করছি।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত