প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে গোলাগুলিতে হত্যা মামলার আসামি নিহত, অস্ত্র ও কার্তুজ উদ্ধার

ফরহাদ আমিন, টেকনাফ (কক্সবাজার) : কক্সবাজারের টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে গোলাগুলিতে শীর্ষ রোহিঙ্গা ডাকাত নুরুল আলম(৩৫) নিহত হয়েছে।ঘটনা স্থল থেকে ২টি বিদেশি পিস্তল, ২টি ম্যাগাজিন ও ১৩রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়। হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।নিহত হচ্ছেন, নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের এইচ ব্লকের বাসিন্দা মৃত হোসেন প্রকাশ লাল বুইজ্জার ছেলে ডাকাত নুরুল আলমের (৩০)। সেই টেকনাফের নয়াপাড়া আনসার ক্যাম্পের অস্ত্র লুট ও আনসার কমান্ডার আলী হোসেন হত্যা মামলার প্রধান আসামি।

কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান বলেন, রাতে র‌্যাবের একটি বিশেষ টহলদল হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া এলাকায় কিছু লোককে দেখে চ্যালেঞ্জ করলে তারা র‌্যাবের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। র‌্যাবও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়।

এসময় অন্যরা পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করা হয়।পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়। পরে র‌্যাব রোহিঙ্গা ডাকাত নুরুল আলমের লাশ শনাক্ত করে।

তিনি আরও বলেন, র‌্যাব জানতে পারে, টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবস্থিত আনসার ক্যাম্পের অস্ত্র লুট ও আনসার কমান্ডার আলী হোসেনের হত্যা মামলার প্রধান আসামি এই নুরুল। সে দীর্ঘদিন পলাতক ছিল।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন,পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল গেয়ে লাশটি উদ্ধার করে।নিহত রোহিঙ্গা ডাকাতের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। সুরুতাহল রিপোর্ট তৈরি করে।ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২০১৫ সালের ১২ মে রাতে রোহিঙ্গা সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে আনসার কমান্ডার আলী হোসেনকে হত্যার পর ৬০০ রাউন্ড গুলি ও ১৩টি অস্ত্র লুঠ করে নিয়ে যায়। পরে মিয়ানমার সীমান্তের ঘুংধুম এলাকার গহীন পাহারপ অভিযান চালিয়ে লুট হওয়া পাঁচটি সহ ১৩টি অস্ত্র ও ৯৫ রাউন্ড গুলি নিয়ে তিন রোহিঙ্গাকে র‌্যাব গ্রেফতার করে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত