প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্ব গণমাধ্যমের দৃষ্টিতে চুরিহাট্টা ট্রাজেডি

আসিফুজ্জামান পৃথিল: সারা বিশ্বের গণমাধ্যমে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে উঠে এসেছে রাজধানীর পুরান ঢাকার চুরিহাট্টায় হওয়া বিধ্বংসী অগ্নিকা-ের খবর। অধিকাংশ গণমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণে বৃহস্পতিবারের অধিকাংশ সময় খবরটিকে লিড করে রাখা হয়। কোনকোন গণমাধ্যম এটিকে বাংলাদেশের ইতহাসের সবচেয়ে ভয়ংকরতম অগ্নিকা-ের একটি বলে উল্লেখ করা হয়।

ব্রিটিশ রাষ্ট্রয়ি গণমাধ্যম বিবিসি বলছে, ঢাকার ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ন এলাকায় অগ্নিকা-ে কয়েক ডজন নিহত। বিবিসি জানিয়েছে এই ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৭৮। বিবিসি আরো জানায়, গত রোববার চট্টগ্রামের এক বস্তিতে আগুন লেগে কমপক্ষে ৯ জন নিহত হয়। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন এর শিরোনাম, আবাসিক ভবনের ভয়াবহ অগ্নিকা-ে ঢাকায় নিহত অন্তত ৭০। সিএনএন এর এই সংবাদটি গুগলের ওয়ার্ল্ড নিউজ ক্যাটগরিতে দিনের প্রায় পুরোটা সময় শীর্ষ ৩ এই ছিলো। চুরিহাট্টার এই ভয়াবহ অগ্নিকা-কে নরকতুল বলে অভিহিতস করেছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি। সংস্থাটি এই ঘটনাকে নরকের সর্বনি¤œ স্তর ইনফার্নোর সঙ্গে তুলনা করে শিরোনাম করেছে, ঢাকা শহরের আবাসিক ভবনে ইনফার্নো, নিহত কমপক্ষে ৭০। কাতিারি গণমাধ্যম আল-জাজিরার শিরোনাম, বাংলাদেশি রাজধানি ঢাকার পুরোনো অংশে ভয়াবহ আগুনে নিহত বহু। জার্মান গণমাধ্যম ডয়েচে ভেলে এই ঘটনার শুধু খবরই প্রকাশ করেনি, তারা বাংলাদেশের সব ভয়াবহ ভবন দুর্ঘটনা নিয়ে একটি ফটো ফিচার তৈরী করেছে। ব্রিটিশ জনপ্রিয় গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান বলছে, রাসায়নিক মজুদ করা হতো, ঢাকার এমন একটি আবাসিক ভবনে আগুন লেগে নিহত ৭০। ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়াও প্রায় একই রকম শিরোনাম করে লিখেছে, বাংলাদেশের রাজধানীতে বিশাল অগ্নিকা-ে নিহত ৭০। পাকিস্তানের জনপ্রিয় গণমাধ্যম ডন লিখেছে, ঢাকার বুক ছিন্নভিন্ন করা অগ্নিকা-ে নিহত কমপক্ষে ৬৯। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম জনপ্রিয় পত্রিকা নিউইয়র্ক টাইমস এর শিরোনাম, বাংলাদেশের কান্না জনারণ্য হয়ে থাকা আবাসিক এলাকায় আগুন, মারা গেলেন ৭০ জন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত