প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নরসিংদীতে একুশে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরীতে যাওয়া হলো না স্কুল ছাত্রীর
পথিমধ্যেই ধর্ষণ করতে না পেরে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে বখাটেরা

খন্দকার শাহিন: নরসিংদীতে একুশে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরীতে যাওয়া হলো না স্কুল ছাত্রী তানজিনার। পথিমধ্যে ধর্ষণ করতে না পেরে এলোপাথারী কুপিয়ে তাকে রক্তাক্ত করেছে বখাটেরা। বৃহস্পতিবার ভোরে সদর উপজেলার মহিষাশুড়া ইউনিয়নের নরসিংদী-মদনগঞ্জ সড়কের ৫ নং সেতু সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত স্কুলছাত্রী তানজিনা আক্তার (১৩) একই ইউনিয়নের বালুসাইর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী। সে একই ইউনিয়নের দামের ভাউলা গ্রামের মফিজুল ইসলামের মেয়ে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত স্কুল তানজিনা আক্তার জানায়, ভোর পাঁচটার দিকে সে একুশে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরীতে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়। বাড়ি থেকে কিছু দূর পর্যন্ত গেলে কামারগাও এলাকার বখাটে শান্ত, আরিফ, আকাশ ও হৃদয়সহ ৯ জন তার গতিরোধ করে। পরে তারা তাকে জোরপূর্বক ৫ নং ব্রীজ এলাকায় নিয়ে আসে। তারা তাকে ধর্ষনের চেষ্টা করলে সে চিৎকার শুরু করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বখাটেরা স্কুলছাত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারী কুপাতে থাকে। তাকে মৃত ভেবে বখাটেরা পালিয়ে যায়। পরে সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় এক অটো চালক তাকে উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। পরবর্তীতে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

আহত স্কুল ছাত্রীর বাবা মফিজুল ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে ভোরে একুশে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরীতে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে স্কুলের উদ্দেশ্যে বের হয়। পরে সকাল আটটার দিকে এক অটো চালক আমাকে ফোন দিলে আমি জানতে পারি তাকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। সে হাসপাতালে ভর্তি আছে। পরে আমি হাসপাতালে আসলে আমার মেয়ের কাছ থেকে পুরো ঘটনা জানতে পারি। আমি বখাটেদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

জানতে চাইলে মাধবদী ধানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু তাহের দেওয়ান বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এই ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ অভিযুক্ত বখাটেদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

সর্বাধিক পঠিত