প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের কারনেই অগ্নিকান্ডের সংখ্যা বাড়ছে

জাবের হোসেন: অর্থনৈতিক উন্নয়নের সঙ্গে বাড়ছে শিল্পায়ন ও নগরায়ণ। অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অগ্নিকান্ডের সংখ্যা। গত বছর অগ্নিকান্ডে প্রাণ হারিয়েছেন ১৩০ জন। আর গত ৫ বছরে অর্থের অংকে এ ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা। ফায়ার সার্ভিস বলছে, অগ্নিনিরাপত্তার নিয়ম না মেনে ভবন নির্মাণের কারণেই বাড়ছে দুর্ঘটনা। ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি

ক্রেতাদের চাপে দেশের রপ্তানিমূখী বেশির ভাগ শিল্প কারখানায় অগ্নিনিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে ব্যক্তি মালিকানাধীন ভবন ও অভ্যন্তরীণ শিল্প প্রতিষ্ঠান এখনো পিছিয়ে রয়েছে। ২০১৮ সালে অগ্নিকান্ড ঘটেছে সাড়ে ১৯ হাজার। গেল বছর মৃতের সংখ্যা ১৩০, আহত ৬৬৪ এবং পাঁচ বছরে আর্থিক ক্ষতি ২৫ হাজার কোটি টাকা

গত দশ বছরে শুধুমাত্র রাজধানীতেই ৫ গুণ বেড়েছে উচ্চ ভবনের সংখ্যা। তবে এসব ভবনে অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা কতটুকু জোরদার করা হয়েছে তা নিয়ে আছে সংশয়। গত কয়েক বছরের দুর্ঘটনার পরিসংখ্যানের মাধ্যমে তা সহজে অনুমান করা যায়।
ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তথ্যমতে, ২০১৮ সালে ছোট বড় মিলিয়ে ১৯ হাজার ৬৪২টি অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। ২০১৭ সালে যা ছিলো ১৮ হাজার। আগের তিন বছরেও দুর্ঘটনার পরিমান ছিলো ১৭ হাজারের বেশি।

২০১৪ সালে অগ্নি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ৩২৪ জন। ২০১৫ সালে এই পরিমান ছিলো ২৪৪ জন। পরের দুই বছর প্রাণহানির সংখ্যা কিছুটা কমলেও ২০১৮ সালে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৩০ জনে। আহত হন ৬৬৪ জন মানুষ। অগ্নি দুঘটনায় গত পাঁচ বছরে ২৫ হাজার কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে কম ক্ষতি হয়েছে ২০১৮ সালে, ৩৮৬ কোটি টাকা। অগ্নি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দেশে বর্তমানে উন্নতমানের প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে অগ্নি দুর্ঘটনা কমিয়ে আনতে সচেতনতা বাড়ানোর পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত