প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিমতলীর ঘটনায় স্ত্রী-সন্তানসহ ১১ জন স্বজনহারা ফারুক আহমেদ বলেন, নিমতলী থেকে আমরা শিক্ষা নেইনি

খন্দকার আলমগীর হোসাইন : নিমতলীর ঘটনায় আসলে আমরা শিক্ষা নেইনি। যারা স্বজন হারান, তারাই কেবল বলতে পারবেন প্রিয়জন হারানোর ব্যথা কত নির্মম। নিমতলীর ঘটনায় স্ত্রী-সন্তানসহ আমি পরিবারের ১১ জন সদস্যকে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে হারিয়েছি। চকবাজারের ঘটনা আমাদের আবার নিমতলীর ঘটনা মনে করিয়ে দিচ্ছে। আমাদের নতুন সময়ের সাথে আলাপকালে নিমতলীর ঘটনার ১১ জন স্বজনহারা ফারুক আহমেদ এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, আমি মনে করি, কারো স্বজনই যেন এই ধরনের ঘটনার স্বীকার না হয়। কেবল আহত যারা বেঁচে আছেন, শুধু তারাই বলতে পারবেন সেদিন তাদের চোখের সামনে কী বিভীষিকাময় চিত্র-ই না ফুটে উঠেছিল।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ৩ জুন নিমতলীর নবাব কাটরায় রাত ৯টার দিকে একটি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণ ঘটে। তাতে একটি প্লাস্টিক কারখানায় আগুন ধরে যায়। সেখানে বিপজ্জনক কেমিক্যাল ছিল। ফলে আগুনের লেলিহান শিখা ভয়াবহ রূপ ধারণ করে। মুহূর্তে আগুন আশপাশের ভবনে ছড়িয়ে পড়ে। শত শত মানুষের চোখের সামনে বহু মানুষ পুড়ে অঙ্গার হয়ে যায়। সেই দুর্ঘটনায় ১২৪ জন প্রাণ হারান। আহত হন অর্ধশতাধিক। পুড়ে যায় ২৩টি বসতবাড়ি, দোকান ও কারখানা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত