প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অবশেষে রাজধানীতে স্বাভাবিক হলো গ্যাস সরবরাহ

স্বপ্না চক্রবর্তী : দীর্ঘ ১২ ঘন্টা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকায় বুধবার সকাল ৬টা নাগাদ রাজধানীর একাংশে স্বাভাবিক হয় গ্যাস সরবরাহ। তিতাস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সংস্কার কাজ শেষে ডেমরা এবং আমিন বাজার সিটি গেইট স্টেশন (সিজিএ) দিয়ে গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়।

তিতাস গ্যাসের পরিচালক (অপারেশন) কামরুজ্জামান খান জানান, রাতেই সংস্কার কাজ শেষ হলেও পূর্ব নির্ধারিত সময় অনুসারে সকাল ৬টার পরেই গ্যাসের সরবরাহ শুরু করা হয়েছে। বর্তমানে গ্যাসের স্বাভাবিক চাপ পাচ্ছেন গ্রাহকরা।

এর আগে মঙ্গলবার মেট্রোরেলের শাহবাগ এলাকার কাজের কারণে রাজধানীর বেশিরভাগ এলাকায় সন্ধ্যা ৬ থেকে বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ১২ঘন্টা গ্যাস সরবরাহ সম্পূর্ণ বন্ধ ছিলো। শুধু আবাসিক নয় বাণিজ্যিক, শিল্প এবং সিএনজিসহ সব ধরণের গ্রাহকদের কাছে গ্যাসে পৌঁছাতে পারে নি তিতাস কর্তৃপক্ষ। কিছু কিছু আবাসিকে চুলায় গ্যাসের চাপ থাকলেও তা একেবারেই নিভু নিভু পর্যায়ে ছিলো। এতে করে জনজীবনে নেমে আসে চরম দুর্ভোগ। শুধু মেট্রোরেল না গ্যাসের ভাল্ব প্রতিস্থাপন এবং লিকেজ মেরামতকেও কারণ হিসেবে দায়ী করে তিতাস। এর একদিন আগেই গত শুক্রবার রাত ১২টার পর কোনও এক সময় আশুলিয়ায় গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানির (জিটিসিএল) একটি সঞ্চালন লাইনের মধ্যে অবস্থিত গ্যাসকেট (লাইনের ভেতরের কিছু অংশ ফাঁকা থাকে, এই ফাঁকা অংশ গ্যাসকেট দিয়ে জোড়া দেওয়া হয়) ফেটে যায়।

এতে আশুলিয়া, সাভার, মিরপুর, মোহম্মদপুরসহ বেশ কিছু এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এরপর মেরামতের জায়গা নির্ধারণ করে মেরামত কাজ শুরু করা হলেও গ্যাসের অভাবে নগরবাসীকে পোহাতে হয় চরম দুর্ভোগ। দুইদিনের মাথায় আবার গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন সাধারণ জনগণ। রাজধানীর কলাবাগানের সরকারি চাকরিজীবী রুপা রায় বলেন, দিনের বেলা অফিস থাকায় বাড়ির রান্না-বাড়া কিছু করতে পারি নি। অফিসেই খবর পাই যে রাতে গ্যাস থাকবে না। কিন্তু তখন তো আর অফিস থেকে বাসায় এসে রান্না করা সম্ভব ছিলো না। তাই বাধ্য হয়েই রেস্টুরেন্ট থেকে খাবার কিনে খেতে হয়েছে।

এদিকে রাজধানীর পেট্রোলপাম্পগুলোতেও গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েন মোটরযান চালকরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত