প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জইশ ই মুহাম্মদ নেতাকে সুরক্ষা দিচ্ছে চীন

নূর মাজিদ : অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলার দায় স্বীকারকারী জয়েশ ই মোহাম্মদ জঙ্গীগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা মাসুদ আজহারের প্রতি জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা চায় ভারত। তবে এই ক্ষেত্রে প্রধান বাধা প্রতিবেশি পাকিস্তানের ঘনিষ্ঠ মিত্র চীন। ইতোপূর্বেও, তারা নিরাপত্তা পরিষদে মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী ঘোষনার লক্ষ্যে আনীত ভারতীয় প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছে। তবে ১৪ ফেব্রুয়ারির বোমা হামলার ঘটনার পর ফের এই প্রস্তাব আনার দাবি উঠেছে ভারতে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, ইকোনমিক এক্সপ্রেস

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে প্রকাশ, চীন ইতোপূর্বে চার চার বার মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী ঘোষণার প্রস্তাবে ভেটো দিয়েছে। জয়েশ ই মোহাম্মদের সঙ্গে পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার সমর্থনের কারনেই চীন এমনটি করেছে। কারন আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলে গোষ্ঠীটিকে সহায়তা করার কারণে আইএসআই জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে। এছাড়াও, ভারতের প্রস্তাব ঠেকিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি একটি শক্তিশালী বার্তা দিচ্ছে চীন। ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে ভারত-মার্কিন জোটের চীনবিরোধী অবস্থান মোকাবেলায় চীন যে এখনো সচেষ্ট সেই বার্তাও এই পদক্ষেপের মাধ্যমে ফুটে উঠছে।

ফলে চীনা প্রভাব এড়িয়ে পাকিস্তানকে শাস্তি দেয়ার উপায় যে খুবই কম সেটি ভারতকে বুঝিয়ে দিচ্ছে চীন।
চীন যেমন একদিকে ভারতের দিকে অর্থনৈতিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে একইভাবে তারা পাকিস্তানের মাধ্যমে চাপ প্রয়োগও অব্যাহত রাখছে। ফলে মাসুদ আজহারকে সন্ত্রাসী তালিকাভুক্ত করা হলে তা চীনের পররাষ্ট্রনীতির সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ হবে।

তবে মাসুদ আজহারকে চীনের সুরক্ষা দেয়া সবচাইতে বড় কারণটি অর্থনৈতিক। চীনা রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের বানিজ্য মহাসড়ক বাস্তবায়নের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার পাকিস্তান। পাকিস্তান অধিকৃত আজাদ কাশ্মীরের ভেতর দিয়েই আরব সাগর তীরবর্তী গোয়াদার বন্দও পর্যন্ত এগিয়েছে চীন-পাকিস্তান ইকোনমিক করিডর প্রকল্প। ভারত বরাবরই পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরে সিপিইসি প্রকল্প বাস্তবায়নের বিরোধিতা করে আসছে। তাই ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর চাপ প্রয়োগের মাধ্যমে ভারতকে ব্যস্ত রাখতে চায় চীন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত