প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভাষার মাসে ভাষা রক্ষার লড়াই; এ যেন আরো এক ৫২

সাইদুল ইসলাম, লন্ডন: ভাষা মানুষের মনের ভাব প্রকাশ করার একমাত্র মাধ্যম। পৃথিবীর প্রত্যেকটি দেশের প্রত্যেকটি অঞ্চলের মানুষের নিজস্ব ভাষা রয়েছে। মানুষ শুধুমাত্র তার নিজস্ব ভাষায় মনের মাধুরী মিশিয়ে আবেগ, অনুভূতি, ভালোবাসার প্রকাশ ঘটায়। এই ভাষার জন্যই ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বিশ্বের এক প্রান্তের লোকজন জীবন দিয়ে প্রমান করেছেন মুখের ভাষা কেড়ে নেওয়ার সাধ্য কারো নেই। পৃথিবীর ইতিহাসে এটিই একমাত্র উদাহরণ, বাংলাদেশের মানুষ বুকের রক্ত ঢেলে দিয়ে মাতৃভাষার দাবী আদায় করেছে। পরবর্তীতে ইউনেস্কো বাংলাদেশের ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে এবং আজ অবদি তা পালন হয়ে আসছে।

কিন্তু কেউ কল্পনা করেনি যে দীর্ঘ ৬৭ বছর পর আবারো ভাষার জন্য আন্দোলন করতে হবে। আর সেটি যদি হয় যুক্তরাজ্যের মত একটি উদার গনতান্ত্রিক ও বহু সংস্কৃতির দেশে, তবে অবাক ও বিষ্ময়কর । কাকতালীয়ভাবে এই ভাষা আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দুতে আবারো বাংলা ও বাঙ্গালী ও ফেব্রুয়ারি।

ইস্টলন্ডনের বাঙ্গালী অধ্যুসিত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলে বাজেট কর্তনের নামে কমিউনিটি ল্যাুংগুয়েজ সার্ভিস বন্ধ করার পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে কাউন্সিল। ১৯৮২ সাল থেকে বাংলা ভাষাসহ চাইনিজ, মেরিডিয়ান, রাশিয়ান, লিথুনিয়া, আরবি এবং সোমালিয়ান সহ ১০ টি কমিউনিটি ভাষা অর্থাৎ মাতৃভাষা শিখাতে শিশুদের ফ্রি সুযোগ সুবিধা চলে আসছিল। বিশেষ করে বাংলা ভাষা সেকেন্ডারী স্কুল পর্যন্ত পড়ানোর সুযোগ ছিলো। ইতিমধ্যে শত শত শিক্ষার্থী জিসিএসই ও এ-লেভেল পরিক্ষায় অতিরিক্ত ভাষা হিসেবে বাংলায় পরিক্ষায় দিয়ে বেশ ভালো ফলাফল অর্জন করেছে শিক্ষার্থীরা। গত ৩৬ বছর ধরে চলে আসা সেই শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে হাজার হাজার বাংলাভাষী শিক্ষার্থীদের। বাজেট কর্তনের নামে ইতিমধ্যে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল কমিউনিটি ল্যাংগুয়েজ সার্ভিস বন্ধের উদ্যোগ নিয়েছে । আজ ২০ ফেব্রুয়ারী এ ব্যাপারে ফুল কাউন্সিল মিটিংয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এদিকে কাউন্সিলের এমন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছেন কমিউনিটির সর্বস্থরের জনসাধারণ। সভা, সেমিনার সহ বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে তারা প্রতিবাদ অব্যাহত রেখেছেন। বাংলা গনমাধ্যমগুলোও সরব ভূমিকা পালন করছে। টিভি মিডিয়াগুলোতে সংবাদ প্রচারের পাশাপাশি টকশো আলোচনায় কাউন্সিলের সমালোচনা করা হচ্ছে এমন আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের। বাংলাদেশ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন এর সভাপতি আবু হোসেন টাওয়ার হ্যামলেটসের কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ বন্ধ করে দেওয়ার জন্য বাজেট কর্তনের বিরুদ্ধে তীব্র বিরোধিতা করেন। তিনি বলেন এই কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজে বাংলা, আরবি, স্পেনিশ, ম্যান্ডারিন, ক্যান্টনীস, উর্দু সহ ১০ টি ল্যাংগুয়েজ পড়ানো হয়ে থাকে।
কিন্তু রি মডেলিং এর নামে আগামী দুই বছরের মাথায় কমিউনিটি ল্যাঙ্গুয়েজ এর সমস্ত বাজেট কর্তন করে সার্ভিস বন্ধ করে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ।

এই সার্ভিস বন্ধ হলে প্রায় দুই হাজার ছেলে মেয়েরা তাদের মাতৃভাষা শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে এবং প্রায় ৯০ জন শিক্ষক চাকুরিচ্যুত হবেন। সর্বোপরি প্রায় বেয়াল্লিশটি সংগঠন বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই সমস্ত সংগঠনগুলো নিজস্ব সংস্কৃতি ও ভাষার অস্থিত্ব রক্ষায় এক সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করে যাচ্ছিল। টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন এর সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল বাসিত চৌধুরী কামরান এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, আজ সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের অফিস মালবারি প্লেসের সামনে ছাত্র ছাত্রীদের অভিবাবক সহ কমিউনিটির সর্বস্থরের জনগনকে নিয়ে প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করবেন। টাওয়ার হ্যামলেটসের অন্যতম বাংলাদেশী বংশদ্ভূত কাউন্সিলর পুরু মিয়ার কাছে কাউন্সিলের এমন সিদ্ধান্তের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত