প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাব্বিরের সেঞ্চুরির পরও হোয়াইটওয়াশ এড়াতে পারলো না টাইগাররা

আক্তারুজ্জামান : নাহ শেষ রক্ষা হলো না টাইগারদের। তাসমান দ্বীপের ওয়ানডে সিরিজে ৩-০ ব্যবধানেই হোয়াইটওয়াশ হলো মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। আগের দুই ম্যাচে আগে ব্যাট করে হেরে আজ একটু বৈচিত্র্য আনতে গিয়েও কাজ হলো না। ৩৩১ রানের জবাবে নির্ধারিত ৫০ ওভারের ১৬ বল আগেই ২৪২ রানের গুটিয়ে গেছে বাংলাদেশ। ফলে ৮৮ রানে হেরে একোবরে ধবল ধোলাই হলো তামিম ইকবালরা।

যদিও এই ম্যাচে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম শতকের দেখা পেয়েছেন সাব্বির রহমান। কিন্তু দলের জয়োৎসব তৈরি করতে পারেননি। পারবেন কিভাবে? টপঅর্ডারে খেলতে নামা ব্যাটনম্যানরা যে দলকে বিপদের কিনারায় ফেলে প্যাভিলিয়নে ফিরে গেছেন। তামিম, লিটন ও সৌম্য আজ একেবারেই ব্যর্থ ছিলেন। দলীয় ২ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন এ তিনজন।

এখান থেকে দলকে উদ্ধার করেন সাব্বির ও সাইফউদ্দীন জুটি। মাহমুদউল্লাহ ও মুশফিক দলকে ৬০ রানে তুলে দিয়ে সাজ ঘরে ফেরেন। এখান থেকে ১০০ রানের জুটি উপহার দেন সাব্বির ও সাইফউদ্দিন। সাইফউদ্দিন ৪৪ রানে ফিরে গেলেও সাব্বির আজ থামেননি। ক্যারিয়ারের প্রথম শতক তুলে নিয়ে তবেই থামেন। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে যখন ফিরে যান তখন নামের পাশে জ্বলজ্বল ১১০ বলে ১০২ রানের ইনিংস।

কিন্তু টিম সাউদি যেখানে আগুনের গোলা মারছেন সেখানে জয় কিভাবে পাবে টাইগাররা? ৯.২ ওভার বল করে ৬টি উইকেট নিয়ে টাইগারদের ব্যাটিংলাইন একাই ধসিয়ে দিয়েছেন এই পেসার। তার কাচেই মূলত পরাস্ত হয়েছে বাংলাদেশ।

দলের হয়ে কেউ হাল ধরতে না পারায় ৮৮ রান দূরে থাকতেই গুটিয়ে যায় সফরকারীরা। সাব্বির ও সাইফউদ্দিনের পাশাপাশি ৩৭ রান করেন মেহেদি হাসান মিরাজ। সাউদি ছাড়া বোল্ট ২টি এবং গ্র্যান্ডহোম একটি উইকেট নেন।

এর আগে টস হেরে হেনরি নিকোলস, রস টেইলর ও টম লাথামরে ফিফটিতে ভর করে বড় সংগ্রহ পেয়েছে স্বাতগিকরা। যদিও আজ ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারেননি গাপটিল। তবে টেইলর ছিলেন ভয়ঙ্কর। ৬৯ রান করে নিউজিল্যান্ডের গয়ে সর্বোচ্চ রানের মালিক হয়েছেন। স্টিফেন ফ্লেমিংয়ের রেকর্ড ভেঙেছেন তিনি।

শেষদিকে ক্রিজে নেমে রীতিমত ছড় বইয়ে দিয়েছেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম ও মিচেল স্যান্টনার। গ্র্যান্ডহোম ১৫ বলে ৩৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। অন্যদিকে স্যান্টনার করেন ১৬ রান। এর আগে নিউজিল্যান্ডের হয়ে গাপটিল ২৯, হেনরি নিকোলস ৬৪, রস টেইলর ৬৮, টম লাথাম৫৯ এবং জিমি নিশাম ৩৭ রান করে ফেরেন। টাইগারদের হয়ে বল হাতে মুস্তাফিজ দুটি এবং মাশরাফি, রুবেল, সাইফউদ্দিন ও মিরাজ একটি করে উইকেট নেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত