প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি ঋণের নতুন রেকর্ড, মোট দেনা ২২ লাখ কোটি ডলার ছাড়িয়েছে

নূর মাজিদ : ২০২০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ট্রা¤েপর জন্য বড় দুঃসংবাদ দেশটির ক্রমাগত সরকারি দেনা বৃদ্ধির খবর। গত ১১ ফেব্রুয়ারি দেশটির অর্থমন্ত্রণালয় প্রকাশিত প্রতিবেদনে এমন সম্ভাবনা তীব্রতর হয়েছে। প্রতিবেদন অনুসারে, দেশটির মোট সরকারি ঋণের পরিমাণ ২২ লাখ কোটি ডলার ছারিয়ে গেছে। ক্ষমতায় গেলে সরকারি দেনা কমিয়ে আনবেন এমন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ট্রা¤প। তবে তার মেয়াদে উত্তরোত্তর সরকারি ঋণের পরিমাণ বাড়ছে। ফাইন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস, রয়টার্স

এই বিষয়ে পিটার জি পিটারসন ফাউন্ডেশনের শীর্ষ নির্বাহী মাইকেল এ প্যাটারসন বলেন, এখন জাতীয় ঋণের পরিমাণ ২২ লাখ কোটি ডলার ছাড়িয়ে গেছে। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে, বিগত ১১ মাসে আরো ১ লাখ কোটি ডলারের নতুন দেনা যুক্ত হয়েছে।

‘নতুন এই দুর্ভাগ্যজনক মাইলফলক অর্জনের ভেতর দিয়ে এটাই প্রতীয়মান হচ্ছে যে আমাদের বার্ষিক অর্থনৈতিক পরিকল্পনা আর লাভজনক অবস্থানে নেই। বরং দিন দিন বাজেট ব্যয় নির্বাহে সরকারি ঋণ ও খরচের পরিমাণ বাড়ছে।’ তিনি বলছিলেন।

এদিকে বার্তা সংস্থা শিনহুয়া জানায়, ট্রা¤প প্রশাসনের দেড় লাখ কোটি ডলারের করকর্তন এবং সরকারি খরচ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বাজেট ঘাটতি এবং সরকারি ঋণের পরিমাণ বাড়ছে। গত জানুয়ারিতে মার্কিন কংগ্রেসের বাজেট বিভাগ জানায়, ২০১৯ সালে সরকারকে আরো ৯০ হাজার কোটি ডলার থেকে ১ লাখ কোটি ডলারের নতুন ঋণ নিতে হবে। এইভাবে ঋণের পরিমাণ বাড়তে থাকলে ২০২৯ সাল নাগাদ সরকারি দেনার পরিমাণ মোট দেশজ উৎপাদনের ৯৩ শতাংশে উন্নীত হবে । এমনকি ২০৪৯ সাল নাগাদ তা জিডিপির চাইতে ১৫০ শতাংশ বেশি হবে।

মাইকেল এ প্যাটারসন বলেন,আমরা যখন লাখ লাখ কোটি ডলার ঋণ নেই তখন চলতি অর্থনীতির ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করি। এমন প্রবণতা বৃহৎ বিনিয়োগকারীদেরও নিরুৎসাহিত করবে। বর্তমানে প্রতিদিন আমরা গড়ে ১শ কোটি ডলার ঋণের সুদ বাবদ পরিশোধ করছি। আগামী এক দশকে এ বাবদ আরো ৭ লাখ কোটি ডলার দিতে হবে। ঋণের বাড়তি চাপ মোকাবেলায় বাজেট কৌশল পুনঃমূল্যায়ন এবং জাতীয় দেনা নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন বলেও তিনি জানিয়েছেন।

মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংক-ফেডারেল রিজার্ভের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যালান গ্রীনপ্যান আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সরকারি দেনা বৃদ্ধির এই প্রবণতা যুক্তরাষ্ট্রকে পরবর্তী মন্দার দিকে ঠেলে দিতে পারে। সরকারি দেনা বৃদ্ধি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গতিকে স্থির করাসহ মার্কিন ডলারের মূল্যস্ফীতি এবং বেকারত্বের হার বৃদ্ধির মতো বিস্ফোরক পরিস্থিতির জন্ম দিতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত