প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভালবাসা দিবসের ঢেউ লেগেছে কুয়াকাটার সৈকতে

উত্তম কুমার হাওলাদার, (কলাপাড়া)পটুয়াখালী: ভালবাসা দিবসের ঢেউ লেগেছে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার সৈকতে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আশা হাজার হাজার পর্যটকদের পদভারে মুখরিত। উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে গা ভাসিয়ে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেতেছেন তারা। কেউ সমুদ্র স্নানে মেতেছেন। কেউ সৈকতের বালুতে পা ডুবিয়ে অন্যরকম আনন্দ-অনুভূতিতে আত্মহারা।

এদিকে দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পর্যটকদের নিরাপত্তা দিতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নজরদারীও ছিল চোখে পড়ার মেতো।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, দক্ষিণের হাওয়ায় জোর নেই। তাই শরীরও সহনশীল। মনে রয়েছে স্বতঃস্ফুর্ততা। থেমে নেই প্রেমিক যুগলের উত্তাল বিচরণ। ফাগুনের আগুন ধরা রঙে হৃদয় রাঙানো বাসনা নিয়ে সৈকতের বেলাভূমে নীল জলের পা ভেজানো স্পন্দন কিংবা অনুভূতি কী যে শীহরণ যোগায় শরীরে তা খুব কাছাকাছি থেকেই বোঝা যায়। হাতে হাত ধরে একে অপরকে বোঝানো যায়। মনের সেই জমানো, অব্যক্ত কথা প্রকাশেই এসব যুগল বেছে নেয় বিশ্ব ভালবাসা দিবস। কেউবা আবার হাতে থাকা র্স্মাট ফোনে সেলফি তুলে সাথে সাথে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছেন। এ দিবসটি পালন উপলক্ষে পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় রেকর্ড পরিমাণে ফুল বিক্রি হয়েছে। ফুলের দোকানীরা চড়া দামে বিক্রি করেছে বলে অভিযোগও রয়েছে।

কুয়াকাটার সৈকতে কথা হয় মো.মাহাফুজ হায়দার ও লাভলী আক্তার জুটির সাথে। তারা জানান, এই প্রথম কুয়াকাটায় আসেন। গত একদিন কীভাবে কেটে গেছে তা বুঝতে পারিনি। এ দিবসটি স্মরণে থাকবে। তবে সৈকতে ঢেউয়ের সঙ্গে মিতালি স্থাপন এক অন্যরকম অনুভূতি। আর এখানকার বেশকিছু স্মৃতি মোবাইল ধারণ করে রেখেছি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে পর্যটদের উপচেপড়া ভিড় রয়েছে কুয়াকাটা সৈকতে। সৈকতসহ দর্শনীয় স্থানে নেচে-গেয়ে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উদযাপন করেছে অগণিত পর্যটক যুগল। আবাসিক হোটেল-মোটেল, খাবার হোটেল ও বিপনী বিতানগুলোতেও পর্যটকের পদচারণায় তিল ধারনের ঠাঁই ছিল না। যাতায়াত ব্যবস্থার উন্নয়নে পর্যটক সংখ্যা বেড়েছে। বিশেষ দিবসের কারণে আগমন বাড়ছে দর্শনার্থীদের। আর নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ভাল। বুধবার বিকেল থেকে পর্যটকরা আসতে শুরু করেছেন।
আবাসিক হোটেল মালিক কর্তৃপক্ষদের সাথে আলাপা করলে তারা জানান, গত দু’দিনে আগাম বুকিং দিয়ে কুয়াকাটায় এসে পর্যটকরা।

টুরিস্ট বোর্ড মালিক সমিতির সভাপতি জনি আলগীর জানান, পর্যটক’র সমাগম বেশি থাকায় সমুদ্র পথে পর্যটকদের দর্শনীয় স্থানে নিতে তাদের হিমশিম খেতে হয়েছে।

কুয়াকাটা ইলিশ পার্কের পরিচালক রুমান ইমতিয়াজ তুষার জানান, দিবসটি পালনের লক্ষ্যে এবছর পার্কের মধ্যে কাপেল মেলার আয়োজন করা হয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হওয়ায় পর্যটকের চাপও রয়েছে বেশ।

কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশের এস আই অসিম জানান, প্রত্যেকটি দর্শনীয় স্পটে আমাদের ট্যুরিষ্ট পুলিশের টহল রয়েছে।

মহিপুর থানার ওসি সাঈদুল ইসলাম জানান, ভালবাসা দিবস উপলক্ষে পর্যটকদের ঢল বাইছে। এ ক্ষেত্রে কোন ব্যক্তয় না ঘটে সে জন্য মহিপুর থানা পুলিশ সচেষ্ট রয়েছে।

কুয়াকাটা পৌর মেয়র আবদুল বারেক মোল্লা জানান, বিশ্ব ভালবাসা দিবস উপলক্ষে আমাদেও প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া আইন শৃঙ্খলা বাহিনির সাথে মিংটিং হয়েছে, আশাকরি কোন প্রকার সমস্যা ছাড়াই পর্যটকরা এ দিবসটি উদযাপন করতে পারবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত