প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টাঙ্গাইলে ১৫৫টি অবৈধ ইটভাটা, বিষাক্ত কালো ধোঁয়ার প্রভাব পড়েছে ফসলি জমিতে

হ্যাপি আক্তার : নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই টাঙ্গাইলে প্রভাবশালীরা বন এলাকার ভেতরেই গড়ে তুলেছে ইটভাটা। একদিকে ইটভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় আশপাশের কৃষকের ফসলি জমিতে প্রভাব পড়েছে। অন্যদিকে বনের শাল ও গজারি গাছগুলো ব্যাপক হুমকির মুখে রয়েছে। তবে বেশিরভাগ ভাটায় হাইকোর্টের রিট আদেশ থাকায় পরিবেশ অধিদপ্তর কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না। তবে অবৈধ ইট ভাটার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন। খবর সময় টিভি।

টাঙ্গাইল জেলায় মোট ভাটার সংখ্যা ২৮৪টি। এর মধ্যে বৈধ ভাটার সংখ্যা মাত্র ১১৯টি, অবৈধ ভাটা (হাই কোর্টে রিট করা) ১৪৮টি, অবৈধ ১৭টি। সখিপুর উপজেলার বহেড়াতৈল এলাকায় একেবারে বনের ভিতরেই বনের জায়গা দখল করে ইটভাটা নির্মাণ করে বনের গাছ পুড়িয়ে অবাধে ইট প্রস্তুত করছে তারা। ফলে একদিকে কৃষিজমি ও আশপাশের পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। অন্যদিকে টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী শাল গজার বন চরমভাবে হুমকির মুখে রয়েছে। ভাটা মালিকরা প্রভাবশালী হওয়ায় স্থানীয় সাধারণ মানুষ কিছুই বলতে সাহস পায় না।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, ভাটার কালো ধোঁয়ায় কারণে গাছে ফল আসে না এবং ফসলি জমির উৎপাদনও আগের তুলনায় অনেক কমে গেছে। ইটভাটার কালি নিয়ে আমাদের সমস্যা হয়। পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী ফসলী জমি, ঘনবসতি এলাকা এবং বন এলাকার ৩ কিলোমিটারের মধ্যে ইটভাটা নির্মাণ নিষেধ থাকলেও কোনটিই মানছে না স্থানীয় প্রভাবশালী ইটভাটার মালিকরা।

বনের ভিতরে ইটভাটা নির্মাণের সত্যতা রয়েছে। তবে ভাটাগুলোতে হাইকোর্টের রিট আদেশ থাকায় কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ মুজাহেদুল ইসলাম। তিনি বলেন, কিছু ইটভাটা আছে যেগুলোর বিরুদ্ধে এই মুহুর্তে ব্যবস্থা নিতে পারবো না। তারা আদালত থেকে সাময়িক একটা রায় নিয়ে পরিচালনা করছে। সেই রায়গুলো ভ্যাকেট করার জন্য এর মধ্যেই উত্তর দিয়েছি। সেগুলো নিষ্পত্তি হওয়ার পরে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়ে বলেন, ‘মামলাগুলোর বিষয়ে দ্রæত পদক্ষেপ নেয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মামলাগুলো নিষ্পত্তি হলে এই ইটভাটাগুলো উচ্ছেদ করতে পারি সে বিষয়য়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তথ্য পাওয়া মাত্রই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করি। নতুন কোনো ইটভাটা যাতে তৈরি না হয় সে জন্য ইউএনও কে নিদের্শ দেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত