প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অপরাধ করলেই আর শাস্তি নয়

প্রথম আলো: একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট। কারাগারের ওপর চাপ কমানো এবং ‘সংশোধনমূলক’ সাজার নীতি কার্যকর করায় ১৯৬০ সালের একটি অব্যবহৃত আইনকে কার্যকর করতে বিচারকদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। এর আওতায় অনেক দণ্ডিত অপরাধী শর্তসাপেক্ষে জেলের ঘানি না টেনে মুক্ত জীবন যাপন করার সুযোগ পাবেন। দোষী সাব্যস্ত হলেই দণ্ড পেতে বা জেলের ভাত খেতে হবে না।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ব্যারিস্টার সাইফুর রহমান ১২ ফেব্রুয়ারি প্রথম আলোকে মুঠোফোনে বলেন, আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. ইমান আলীর নেতৃত্বাধীন সাত সদস্যের (সবাই বিচারপতি) একটি সংস্কার কমিটির সুপারিশে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি ইঙ্গিত দেন, শুধু দণ্ডবিধির কতিপয় অপরাধের ক্ষেত্রে এটা কার্যকর হবে। নারী নির্যাতন দমন বা চুয়াত্তরের বিশেষ ক্ষমতা আইনের মতো বিশেষ আইনে দণ্ডিত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে এটা প্রযোজ্য হবে না।

বন্দী কমানোর ফন্দি
দুই বছর আগে কারাগারগুলোয় ধারণ ক্ষমতার দ্বিগুণেরও বেশি বন্দী রয়েছেন বলে সংসদে তথ্য এসেছিল। এরপর তা আরও বেড়েছে বলেই অনুমান করা হয়। ধারণ ক্ষমতা ৩৪ হাজার ৭৯৬ জনের। কিন্তু বর্তমানে (২৪ জানুয়ারি ২০১৬) বন্দীর সংখ্যা ৬৯ হাজার ৭৭৪। প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জাতীয় সংসদকে এ তথ্য জানিয়ে বলেছিলেন, বন্দীর সংখ্যা বৃদ্ধি ও আটক বন্দীর গড় সংখ্যা বিবেচনায় কারাগারের বন্দী ধারণ ক্ষমতা ৮০ হাজার হওয়া উচিত।

২০০৬ সালে বিচারপতি মো. ইমান আলী হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে বর্তমান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং ড. শাহদীন মালিকের আইনি মতামত সাপেক্ষে ১৯৬০ সালের ওই আইনে একজন দণ্ডিত ব্যক্তিকে খালাস দিয়েছিলেন।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের আদেশে জারি করা পরিপত্রে বলা হয়েছে, ‘বর্তমানে দেশের ফৌজদারি বিচারব্যবস্থার প্রায় সর্বক্ষেত্রেই দণ্ডিত অপরাধীদের সাজা ভোগের নিমিত্তে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। এতে দেশের কারাগারসমূহের সাজাপ্রাপ্ত অপরাধীর সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়াসহ দেশের একটি প্রচলিত আইনের বিধানকে সরাসরি অবজ্ঞা করা হচ্ছে। ফলে কারাগারের পরিবেশসহ সমাজে নেতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি হতে চলেছে।’

কোন কোন শর্তে
কিছু অপরাধী, বিশেষ করে যাঁরা জীবনে প্রথমবারের মতো দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন, তাঁদের কেউ কেউ এখন থেকে দণ্ড লাভের পর আর কারাগারে যাবেন না। কেউ যদি অনধিক দুই বছরের দণ্ড পাওয়ার মতো অপরাধ করেন, তাহলে বিচারক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে তাঁকে সাজা না দিয়ে সতর্ক করে ছাড়তে পারেন। জামিনদার রেখে বা না রেখে শর্তসাপেক্ষেও ছাড়তে পারেন।

১৯৬০ সালের আইনটি কার্যত কাগুজে আইন হিসেবে বহাল আছে। কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশে আইনটির কার্যকারিতা কখনো ছিল না বললেই চলে। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনটি কার্যকর করতে সারা দেশের বিচারকদের নির্দেশনা দিয়ে ১২ ফেব্রুয়ারি একটি পরিপত্র জারি করেছেন। এ ধরনের পরিপত্র বাংলাদেশের ইতিহাসে সম্ভবত এই প্রথম।

দ্য প্রবেশন অব অফেন্ডার্স অরডিন্যান্স, ১৯৬০–এর ৪ ধারার বিধান অনুযায়ী পূর্বে দণ্ডিত হয়নি—এমন কোনো অপরাধী অনধিক দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় অপরাধের জন্য দণ্ডিত হলে আদালত অপরাধীর বয়স, স্বভাব-চরিত্র, প্রাক-পরিচয় অথবা শারীরিক বা মানসিক অবস্থা এবং অপরাধের ধরন অথবা অপরাধ সংঘটনে শাস্তি লাঘবকারী পরিস্থিতি বিবেচনাপূর্বক যদি মনে করেন যে দণ্ড প্রদান অসমীচীন এবং প্রবেশনের আদেশ প্রদান করা যথাযথ নয়, তাহলে আদালত কারণ লিপিবদ্ধ করে সতর্ক করত অপরাধীকে অব্যাহতি দিতে পারেন অথবা উপযুক্ত মনে করলে আদেশে বিবৃত সময় হতে অনধিক এক বছর সময়ের জন্য কোনো অপরাধ না করার এবং সদাচারণে থাকার শর্তে জামিনদারসহ বা জামিনদার ছাড়া মুচলেকা প্রদানে বিমুক্ত হওয়ার আদেশ দিতে পারেন। সুপ্রিম কোর্টের পরিপত্র বলেছে, ‘প্রবেশন মঞ্জুর করার সময় সংশ্লিষ্ট বিচারক বা ম্যাজিস্ট্রেটকে আদালতে প্রবেশন অফিসারের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে। এ ক্ষেত্রে এই আইন অনুযায়ী কোন কার্যক্রম গ্রহণ করা না হলে আদালত তার যুক্তিগ্রাহ্য কারণ লিপিবদ্ধ করবেন।’

শাস্তি নয় সংশোধনই উদ্দেশ্য
সুপ্রিম কোর্টর সংস্কার কমিটি মনে করে, এ ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য দ্য প্রবেশন অব অফেন্ডার্স অরডিন্যান্স, ১৯৬০–এর বিধানাবলির যথাযথ প্রয়োগ অপরিহার্য হয়ে দেখা দিয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট গতকাল মঙ্গলবার বলেছেন, ‘আমাদের ফৌজদারি বিচারব্যবস্থার মাধ্যমে অপরাধীকে শাস্তি আরোপ করা আইন সমর্থন করে না; কেননা সাজা প্রদানের অন্যতম উদ্দেশ্য সংশোধনমূলক, প্রতিহিংসামূলক নয়। সাজা প্রদানের উক্ত আদর্শিক বিষয় বিবেচনায় রেখে অপরাধীদের বয়স, পূর্বাপর আচার-আচরণ, দৈহিক ও মানসিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে উপর্যুক্ত আইনের বিধানাবলির যথাযথ প্রয়োগ পরিস্থিতি উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়।

‘এমতাবস্থায়, দণ্ডিত অপরাধীদের সমাজের মূল স্রোতে পুনর্বাসনের এবং সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে অধস্তন ফৌজদারি আদালতসমূহকে উপযুক্ত ক্ষেত্রে এই আইনের বিধানাবলি যথাযথভাবে প্রতিপালনের জন্য নির্দেশিত হয়ে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।’

সহজবোধ্য ভাষায় বলতে হবে
উল্লেখ্য, উচ্চ আদালতে ইংরেজির এখনো প্রাধান্য চললেও গতকালের আদেশে বাংলার ওপর প্রকারান্তরে বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে। পরিপত্রটিতে বলা হয়েছে, ‘শর্তসাপেক্ষে অব্যাহতির উক্তরূপ আদেশ প্রদানের পূর্বে আদালত অপরাধীকে সহজবোধ্য ভাষায় ব্যাখ্যা করে বুঝিয়ে দেবেন যে ওই সময়কালে কোনো অপরাধ সংঘটন করলে বা সদাচরণের মধ্যে না থাকলে সে মূল অপরাধের জন্য প্রদত্ত সাজা ভোগ করবে।’

আইনটির ইতিহাস
১৯৬০ সালের ওই আইন ঐতিহাসিকও বটে। ১৯৬৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি পূর্ব পাকিস্তানে নির্দিষ্টভাবে ওই আইন কার্যকর করা হয়েছিল। এরপর একই বছরর ১ এপ্রিল একটি সংশোধনীও আনা হয়েছিল। কিন্তু ১৯৬৬ সালে আইয়ুব খান আরেকটি অধ্যাদেশ দিয়ে পূর্ব পাকিস্তানের জন্য আইনটির প্রয়োগ বাতিল করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু ওই বছরেই তাঁর বিখ্যাত ছয় দফা ঘোষণা করলেন। সেই বছরে কিন্তু স্বাধীন বাংলাদেশে সংযোজন আইনের অধীনে ১৯৬০ সালের মূল অধ্যাদেশটি বৈধ আইনের মর্যাদা লাভ করে। ১৯৬৬ সালে পূর্ব পাকিস্তানে প্রযোজ্য আইনটি বাতিল করলেও একাত্তরে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নভেম্বর মাসে ১৯৬০ সালের মূল আইনের ১৪ ধারার অধীনে একটি রুলস জারি করেছিল। তার নাম ছিল ইস্ট পাকিস্তান প্রবেশন অব অফেন্ডার্স রুলস। সুপ্রিম কোর্টের পরিপত্রে এই রুলসের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। তবে ২০০৬ সালের ৯ মার্চ বিচারপতি মো. ইমান আলী তাঁর একক বেঞ্চের রায়ে লিখেছিলেন, ‌‘আমার জানামতে ১৯৬০ সালের অধ্যাদেশটি সংশোধন বা বাতিল হয়নি।’

১৯৬০ সালের আইনটি বাস্তবে সচল না অচল, তা নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব আইনি মহলে কম ছিল না। আর বিষয়টিতে সরকারের কিছু করার ছিল না, এটা একান্তই বিচারকদের বিষয় ছিল ও আছে। গতকাল সর্বোচ্চ আদালত বলেছেন, ‘কোনো অবস্থাতেই প্রচলিত আইনের বিধান ইচ্ছাকৃতভাবে অবজ্ঞা করা শুধু অনাকাঙ্ক্ষিতই নয়, বরং অসদাচরণের শামিল।’ ওই নির্দেশনাটি সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে সারা দেশের বিচারকদের উদ্দেশে গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করা হয়েছে।

নারীর জন্য বেশি শিথিল
ওই আইনের ৫ ধারার বিধান অনুযায়ী, মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় কোনো অপরাধসহ দণ্ডবিধির অন্য কিছু ব্যতিক্রমধর্মী অপরাধ ব্যতীত অন্য সব অপরাধে দণ্ডিত নারী অপরাধীর ক্ষেত্রে পুরুষ অপরাধী এবং মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডনীয় অপরাধ ব্যতীত অন্য সব অপরাধে দণ্ডিত নারী অপরাধের ক্ষেত্রে আদালত তাৎক্ষণিকভাবে সাজা আরোপ না করে উপযুক্ত ক্ষেত্রে এক থেকে তিন বছর পর্যন্ত একজন প্রবেশন অফিসারের তত্ত্বাবধানে থাকার নির্দেশ প্রদান করতে পারেন। ওই ধারায় উল্লিখিত দণ্ডবিধির শাস্তিযোগ্য অপরাধ ব্যতীত অন্য সব শাস্তিযোগ্য অপরাধের ক্ষেত্রে এই আইনের বিধান প্রয়োগযোগ্য।

প্রয়োগে যা করতে হবে
ওই আইনের ৬ ধারার বিধান অনুযায়ী আদালত যুক্তিযুক্ত মনে করলে অপরাধী কর্তৃক ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের এবং মামলার খরচ পরিশোধের আদেশ দিতে পারেন। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রশ্নের জবাবে স্বীকার করেন যে দেশে এই আইনের প্রয়োগ প্রথম এবং নতুনত্ব থাকার কারণে বিচারকদের প্রশিক্ষণের ওপর বিশেষ জোর দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বলা বাহুল্য, একে সার্থক রূপ দিতে হলে বার কাউন্সিলকেও এগিয়ে আসতে হবে।

ওই সার্কুলারের কোনো নির্দেশাবলি অনুসরণে কোনো সমস্যা বা অসুবিধা দেখা দিলে বা কোনো বিচারক বা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক ওই আইন প্রতিপালনে অনীহা বা গাফিলতি পরিলক্ষিত হলে বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টর নজরে আনার জন্য স্থানীয় নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করা হয়েছে।

আমরা সুপ্রিম কোর্টের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। তবে জারি করা পরিপত্রটিকে আরও স্পষ্টকরণ এবং শাস্তি প্রদানের ক্ষেত্রে একটি গাইডলাইন করে দেওয়া হলে সেটা বেশি সহায়ক হতে পারে বলে প্রতীয়মান হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত