প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঐক্যফ্রন্ট উপজেলা নির্বাচনে থাকছে না
ফ্রন্ট নেতারা বললেন, ক্ষমতাসীনদের অধীনে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সাহস হারিয়েছেন তারা

শাহানুজ্জামান টিটু : বিএনপির পাশাপাশি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোর কেউ আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড়। দলগুলোর নেতারা বলছেন, গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যেভাবে ক্ষমতাসীন দল ভোটের আগের দিন ভোট করে নিবাচন নামে প্রহসন ও তামাশা করেছে এরপর আর কোনো নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সাহস হারিয়ে ফেলেছেন তারা। ফলে সরকার বিরোধী সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ছাড়াই উপজেলা নির্বাচন করতে হচ্ছে সরকারকে।

গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, ৩০ ডিসেম্বর যে প্রতারণা হয়েছে এরপর আর কি নির্বাচন? আর কোনো নির্বাচনের ধারের কাছেও আমরা যাবো না। নির্বাচনের নামে নির্যাতন হয়েছে। সব প্রতিষ্ঠান শেষ। এখানে মানুষের আর কোনো আস্থা বা বিশ্বাসের জায়গা নেই। দলীয় সিদ্ধান্ত হচ্ছে কোনো নির্বাচনে না যাওয়া।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুবর রহমান তালুকদার বলেন, আমাদের পার্টির ফোরামে সিদ্ধান্ত হয়েছে নির্বাচনে না যাওয়ার। গত সংসদ নির্বাচনের আলোকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।

নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহীদুল্লাহ কায়সার বলেন, আমাদের তিক্ত অভিজ্ঞতা যেটা হয়েছে ৩০ ডিসেম্বর। সেই অভিজ্ঞতার আলোকে প্রহসনের নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই নির্বাচনে গেলে কি হবে এমন প্রশ্ন করে তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন তার আগের দিন রাতে ২৯ তারিখে সিল মারা হয়েছে। কেউ তো কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে পারেনি। শাসকদলেরও অনেক নেতাকর্মীরাও ভোট দিতে পারে নাই। আমি আমার ভোট দিতে পারি নাই। আবার ইলেকশান হবে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী দাঁড়াবে। সেখানে অংশগ্রহণমূলক হবে কিন্তু নির্বাচন হবে না। প্রার্থী হবে, প্রার্থীর অভাব নেই। প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক যে নির্বাচন সেটা হবে না। ফলে আপনিই বলুন, এই নির্বাচনে যাওয়া ঠিক হবে?

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত