প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শরীয়তপুরে শিক্ষক সংকটে মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান

সাজিয়া আক্তার : প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে শরীয়তপুরের ১৬৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান। এছাড়াও সরকারি শিক্ষকদের পদ শূন্য রয়েছে ৪৫৩টি। প্রশিক্ষণসহ দীর্ঘ মেয়াদী ছুটিতে রয়েছে আরো প্রায় ৩০০ শিক্ষক। শিক্ষকের এমন মারাত্মক সংকটের মুখে অনেক ক্ষেত্রে দপ্তরি, এমনকি নৈস্য প্রহরীও ক্লাস নেয় কোনো কোনো বিদ্যালয়ে। ইনডিপেন্ডেন্ট টিভি

শরীয়তপুর সদর উপজেলায় দক্ষিণ গোয়ালদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যায়লে একাই পাঁচটি শ্রেণীর পাঠদান করেন শিক্ষক রিনা আক্তার। এক শ্রেণীর পড়া শেষ না হতেই ছুটতে হয় অন্য শ্রেণীতে। সাথে আছে প্রশাসনিক কাজের চাপ। অথচ বিদ্যালয়ের স্থায়ী শিক্ষক নয় তিনি।
দীর্ঘদিন এই বিদ্যালয়ে স্থায়ী শিক্ষকের নিয়োগ নেই। পাশের বিদ্যালয় থেকে সংযুক্তির মাধ্যমে আনা হয় শিক্ষক। এভাবেই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে এখানকার শিক্ষা কার্যক্রম।

শিক্ষকরা বলেছেন, আমাদের বিদ্যালয়ে শিক্ষকের সংকট থাকায় অল্প শিক্ষক দিয়ে ক্লাস চালাতে হয়। এক ক্লাসের পড়া শেষ করে অন্য ক্লাসে যেতে হয়।

একই চিত্র শরীয়তপুরের বেশিরভাগ বিদ্যালয়ের। শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে দপ্তরি এমনকি নৈস্য প্রহরীও ক্লাস নেন অনেক ক্ষেত্রে। শিক্ষক সংকটে এসব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কমছে শিক্ষক উপস্থিতিও।

সমস্যা সমাধানে শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়ার কথা জানালেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা।
শরীয়তপুরের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, সামনে যে নিয়োগ প্রক্রিয়া আছে তা সম্পন্ন হলে আমরা আশা করছি শিক্ষকের এই স্বল্পতা পূরণ করতে সক্ষম হবো।

শরীয়তপুরের ৬৮০ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ লাখ ৩০ হাজার শিক্ষার্থীর বিপরীতে মাত্র ৩ হাজার ৪৪৯ জন শিক্ষক নিয়োজিত আছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত